এই মুহূর্তে

WEB Ad Valentine 3

WEB Ad_Valentine

মদনমোহনের পাশেই কাঠামিয়া মন্দিরে ‘বড় তারা’র পুজো হয় কোচবিহারে

Courtesy - Google

নিজস্ব প্রতিনিধি: রাজাদের রাজত্বপাট আজ আর নেই। কিন্তু তাঁদের হাতে শুরু হওয়া পুজো আজও সমান ভক্তিভরেই আয়োজিত হয় প্রতিবছর কার্তিক মাসের অমাবস্যা তিথিতে। উত্তরবঙ্গের(North Bengal) এক কোনে রয়েছে কোচবিহার জেলা(Coachbehar District)। সেই জেলার প্রাণজেন্দ্র কোচবিহার শহর। এই শহরই ছিল কোচ রাজাদের(Coach Dynasty) রাজধানী। তাই আজও কোচবিহারকে রাজাদের শহর বলা হয়। এই শহরেই রয়েছে রাজপরিবারের ইষ্টদেবতা মদনমোহনের মন্দির। সেই মন্দিরের পাশেই আছে কাঠামিয়া মন্দির। সেখানেই প্রতিবছর কালিপুজোর(Kali Puja 2023) দিন পুজো পান ‘বড় তারা’ মা। এই পুজো দেখভালের দায়িত্বে রয়েছে কোচবিহার দেবত্র ট্রাস্ট বোর্ড। কোচবিহারের অন্যতম প্রাচীন ও বড় কালিপুজো হল ‘বড় তারা’র পুজো(Bara Tara Puja)। প্রায় দুই শতাব্দী ধরে কোচবিহারের এই পুজো হয়ে আসছে। স্থানীয়দের কাছে দেবী ‘বড় তারা’ নামেই পরিচিত। এই পুজো ঘিরে রয়েছে বহু ইতিহাস, বহু সম্ভ্রমের গল্প। এলাকাবাসীর মতে, ‘দেবী মা এতটাই জাগ্রত যে মায়ের কাছে কোনও কিছু নিষ্ঠা ভরে চাইলে মা কখনও কাউকে খালি হাতে ফেরান না।’

জানা যায়, কোচবিহার রাজপরিবারের(Royal Family) হাতেই শুরু হয়েছিল এই পুজো। তাঁরাই এই পুজোর নিয়মকানুন চালু করে দিয়ে গিয়েছেন। ট্রাস্ট বোর্ডের মতে, পুজোর বয়স ২০০ বছরেরও বেশি। এই পুজোকে কেন্দ্র করে সাধারণ মানুষের উৎসাহে কিন্তু কোনওদিনও একটুও ভাঁটা পড়েনি৷ এই পুজোর রীতি, সাধারণ কালী পুজোর থেকে সম্পূর্ণ আলাদা। দেবী মূর্তিরও আলাদা বিশেষত্ব রয়েছে। এখানে দেবী প্রতিমার গায়ের রং কালো। এক হাতে খড়্গ, অন্য হাতে কাটারু। দেবী প্রতিমার দৃষ্টি যে দিকে থাকে, সেই দিকেই মাথা দিয়ে শায়িত থাকেন শিব। তাঁর জটার মধ্যে থাকে পদ্ম। প্রতিমার পাশে একটির বদলে দু’টি শেয়াল থাকে। দীপান্বিতা অমাবস্যার রাতে ১০৮টি সোনা ও রুপোর মুণ্ডমালায় সেজে ওঠেন কোচবিহারের রাজপরিবারের ‘বড় তারা’। সঙ্গে থাকে রাজপরিবারের অন্যান্য স্বর্ণালঙ্কারও।  

লক্ষ্যণীয় ভাবে এখানে প্রতিমার হাতে কোনও মুন্ডমালা থাকে না। তাঁর জায়গায় থাকে রক্ত ভর্তি একটি পাত্র। বংশ পরম্পরায় এই মূর্তি তৈরি করে প্রভাত চিত্র করের পরিবার। এই পুজোর রীতি অন্য পুজোর থেকে সম্পূর্ণ আলাদা হওয়ায় বলি ও ভোগের নিয়মও আলাদা। এই পুজোতে পাঁচ রকমের বলির নিয়ম রয়েছে — পাঁঠা, হাস, মেষ, পায়রা ও মাগুর মাছ। আগে অবশ্য কচ্ছপও বলি দেওয়া হত। তবে এখন তা হয় না। একই সঙ্গে পাঁঠার মাংসের ভোগ নিবেদন করা হয় দেবীকে। সঙ্গে থাকে শোল মাছ পোড়াও। পুজোর পরের দিন সকালের পুজো শেষে ‘বড় তারা’কে লম্বা দিঘিতে বিসর্জন দেওয়া হয়।

Published by:

Ei Muhurte

Share Link:

More Releted News:

মুর্শিদাবাদের কোথাও রোদের তাপে ফাটছে বোমা ,কোথাও আবার উদ্ধার সকেট বোমা

‘রাজনীতিতে নেমেও মেকআপ করতে হচ্ছে, নয়তো কালো হয়ে যাব’: রচনা

সন্দেশখালিতে ইডি অফিসারদের ওপর হামলার ঘটনায় ধৃত ৩ জনের জামিন

মালদাতে ভোররাতে রহস্যজনকভাবে বাড়ি থেকে নিখোঁজ স্কুল ছাত্রী, তদন্তে পুলিশ

পুরুলিয়ার মাটিতে জ্যোতির্ময়ের পাশ থেকে সরে দাঁড়ালো আজসুও

ইজরায়েলে থাকা বোনের চিন্তায় ঘুম উবেছে জলপাইগুড়িতে থাকা দুই সহোদরার

Advertisement
এক ঝলকে
Advertisement

জেলা ভিত্তিক সংবাদ

দার্জিলিং

কালিম্পং

জলপাইগুড়ি

আলিপুরদুয়ার

কোচবিহার

উত্তর দিনাজপুর

দক্ষিণ দিনাজপুর

মালদা

মুর্শিদাবাদ

নদিয়া

পূর্ব বর্ধমান

বীরভূম

পশ্চিম বর্ধমান

বাঁকুড়া

পুরুলিয়া

ঝাড়গ্রাম

পশ্চিম মেদিনীপুর

হুগলি

উত্তর চব্বিশ পরগনা

দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা

হাওড়া

পূর্ব মেদিনীপুর