Comm Ad 2020-LDC epic

মৃত্যুর পরে নিজের সৃষ্টির ধ্বংস চাইলেন কবীর সুমন

Share Link:

মৃত্যুর পরে নিজের সৃষ্টির ধ্বংস চাইলেন কবীর সুমন

কবীর সুমনের নিজের হাতে লেখা চিঠি।

নিজস্ব প্রতিনিধি: আপন খেয়ালে চলেন তিনি। রোজকার জীবনধারা, নগর জীবনের বাস্তবতা ফুটে ওঠে তাঁর কথায়, তাঁর গানে। শ্রোতাদের কাছে তিনি জীবনমুখী গানের এক বিদ্রোহী সেনানি। সেই জীবনমুখী গায়ক কবীর সুমন শুক্রবার নিজের সৃষ্টির ধ্বংসের ইচ্ছাপত্র সই করলেন। ফেসবুকে এক পোস্টে বিদ্রোহী গায়ক জানিয়েছেন, তাঁর মৃত্যুর সঙ্গে সঙ্গে যেন গান, কবিতা, স্বরলিপি, বাদ্যযন্ত্র সহ সঙ্গীতসাধনার কাজে ব্যবহৃত যাবতীয় সরঞ্জাম ধ্বংস করে দেওয়া হয়। আর মৃতদেহ দান করা করা হয় চিকি‍ৎসাশাস্ত্রের গবেষণার জন্য।

দুটি বাংলার অন্যতম জনপ্রিয় গায়কের এমন ইচ্ছাপত্র শোরগোল ফেলে দিয়েছে। অনেকেই প্রশ্ন করেছেন, কী এমন হল যে নিজের সৃষ্টিকেই ধ্বংসের ইচ্ছা প্রকাশ করলেন কবীর সুমন? জীবনের কোনও তিক্ত অভিজ্ঞতায় নাকি স্বেচ্ছায় নাকি কোনও অভিমান থেকে? যদিও বার বার যোগাযোগের চেষ্টা করেও জীবনমুখী গায়কের প্রতিক্রিয়া জানা যায়নি।

মহা সপ্তমীতে যখন আপামর বাঙালি উ‍ৎসবের আমেজে মজে ঠিক তখনই নিজের ফেসবুক পেজে এক পোস্ট করেছেন কবীর সুমন। তাতে তিনি লিখেছেন, ‘খুব জরুরি বিষয়। আবেগহীনভাবে সকলকে জানিয়ে রাখছি, কারণ হঠাৎ কিছু ঘটে গেলে কঠিন সমস্যা দেখা দেয়। প্রায় অনুরূপ একটা সমস্যা দেখা দিয়েছিল ২০১২ সালে আমি নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হবার পর। খোলাখুলি সকলকে জানিয়ে রাখছি।  অনুগ্রহ করে মতামত দেবেন না। ভাল মন্দ কিছু লিখবেন না। এটা এক প্রবীণ মানুষের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিজ্ঞপ্তি। অনেক অভিজ্ঞতার পর, অনেক ভেবেচিন্তে লিখছি।  ফেসবুকে, যাতে অনেকেই এটা জেনে যান। অনুগ্রহ করে আবেগের বশবর্তী হবেন না, উপদেশ পরামর্শ দেবেন না। আমি আমার কাজ করে যাচ্ছি, যাবো। আমার জীবনে কোনও হতাশা, দুঃখ, ব্যর্থতাবোধ, অবসাদ নেই। আমি সানন্দে বেঁচে আছি, আমার কাজ করে যাচ্ছি। আমার জীবনে ভালবাসা কামনা কাম লালসা আনন্দ স্ফুর্তি মজা রঙ্গরগড় হাসাহাসি নিভৃত কান্না কাজ অধ্যবসায় নিয়মিত রেয়াজ পরিশ্রম সৃজনশীলতা সবই আছে। প্রয়াত খুশওয়ান্ত সিং তাঁর ' দি এণ্ড অফ ইণ্ডিয়া' গ্রন্থে লিখেছিলেন - "কাজই ধর্ম"। আমি তাইই মনে করি। আমার ধর্ম কাজ। প্রতিনিয়ত আমি আমার কাজ করে যাচ্ছি, অর্থাৎ স্বধর্ম পালন করছি। আমি জানি আমি সানন্দে,খুশি মনে মারা যাবো। আমি বেঁচে আছি বাংলা খেয়াল বাংলা গান সুরতালছন্দলয়, আমার স্বভাবসিদ্ধ ভালবাসা কাম কামনা খামখেয়ালিপনা inconsistency এক ধরণের ক্ষ্যাপামি আর সুরতাললয়ে থেকে মৃত্যুর অপেক্ষায়। অন্য কোনও বিষয়ে আমি নেই।’

ফেসবুক পেজে নিজের হাতে লেখা এক চিঠিও পোস্ট করেছেন। সেই চিঠি পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে দেওয়া হল—

‘সকলের অবগতির জন্য স্বজ্ঞানে সচেতন অবস্থায় স্বাধীন ভাবনা চিন্তা ও সিদ্ধান্তের ভিত্তিতে আমি জানাচ্ছি আমার কোন অসুখ করলে আমায় হাসপাতালে ভর্তি হতে হলে অথবা আমি মারা গেলে আমার সম্পর্কিত সবকিছুর প্রতিটি বিষয় ও ক্ষেত্রে দায়িত্ব গ্রহণ এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণের অধিকার থাকবে একমাত্র মৃন্ময়ী তোকদারের (মায়ের নাম প্রয়াত প্রতিমা তোকদার, বাবার নাম দেবব্রত তোকদার) অন্য কারুর কোন অধিকার থাকবে না। এই সব বিষয় ও ক্ষেত্রে আমার মৃতদেহ যেন দান করা হয়। চিকিৎসা বিজ্ঞানের কাজে। কোন স্মরণ সভা, শোকসভা, প্রার্থনা সভা যেন না হয়। আমার সমস্ত পাণ্ডুলিপি, গান রচনা, স্বরলিপি রেকর্ডিং, হার্ডডিক্স, পেইনড্রাউভ লেখার খাতা প্রিন্ট অডিট যেন কলকাতা পুরসভার গাড়ি ডেকে তাদের হাতে তুলে দেওয়া হয়-সেগুলি ধ্বংস করার জন্য। হাতে লেখা সবকিছু অডিও ও ভিডিও ফাইল সব। আমার কোন কিছু যেন আমার মৃত্যুর পর পড়ে না থাকে। আমার ব্যবহার করা সব যন্ত্র বাজনা সরঞ্জাম যেন ধ্বংস করা হয়। এর অন্যথা হবে আমার অপমান।’

চিঠিতে নিজের ইচ্ছাপূরণের দায়িত্ব মৃন্ময়ী তোকদার নামে রাজ্য সরকারের এক কর্মীর কাঁধে দিয়েছেন নগর জীবনের গায়ক।

Comm AD 12 Myra

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Comm Ad 2020-WBSEDCL RC

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

2020 New Ad HDFC 05

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 026 BM

Editors Choice

Comm Ad 2020-WBSEDCL RC