Comm Ad 005 TBS

​শ্রীলঙ্কায় জন্মানোই কী আমার ভুল? বায়োপিক বিতর্কে প্রশ্ন মুরলীধরনের

Share Link:

​শ্রীলঙ্কায় জন্মানোই কী আমার ভুল? বায়োপিক বিতর্কে প্রশ্ন মুরলীধরনের

নিজস্ব প্রতিনিধি: সিনে দুনিয়ায় বায়োপিকের চল এখন বেড়েই চলেছে। বিশেষ করে স্পোর্টস পার্সোনালিটিদের মধ্যে একাধিক তারকাকে নিয়ে ইতিমধ্যে ভারতে সিনেমা হয়েছে। তবে যাঁদেরকে নিয়ে হয়েছে সকলেই এদেশের। কিন্তু আমাদের কোনও পড়শি দেশ খেলোয়াড়দের নেই সেভাবে সিনেমা হয়নি। তবে এবার শ্রীলঙ্কার কিংবদন্তী তারকা মুথাইয়া মুরলীধরনকে নিয়ে ছবি তৈরি হচ্ছে ভারতে, একথা প্রকাশ্যে আসতেই বিতর্কে ঝড় বইতে থাকে সোশাল মিডিয়ায়।

আসলে এর প্রধান কারণ হল শ্রীলঙ্কায় সংখ্যালঘু তামিলদের প্রতি অত্যাচার। আর দ্বিতীয়ত, এই অত্যাচার নিয়ে মুরলীধরনের এককালের মন্তব্য। তিনি সরাসরি এই অভিযোগ নাকচ করে বলেছিলেন, তাঁদের দেশে সংখ্যালঘু তামিলদের হত্যা করা হয়নি। ঠিক এই কারণেই তাঁর বায়োপিক ৮০০ বয়কটে শ্লোগান উঠেছে। আর এই ছবিতে যেহেতু মুরলীধরনের চরিত্রে বিজয় সেতুপতি অভিনয় করছেন, তাই তাঁকেও ব্যান করার দাবি উঠছে।

তবে এই নিয়ে সম্প্রতি শ্রীলঙ্কান স্পিনার একটি প্রেস বিবৃতি প্রকাশ করেন। সেখানে তিনি বলেন, আমি এক যুদ্ধকালীন পরিস্থিতিতে বড় হয়েছি। যুদ্ধের পরবর্তীকালে যে ভয়াবহতা ও বেদনা সৃষ্টি হয়েছিল সেটাই আমি সকলের সঙ্গে ভাগ করতে চাই। আমরা শ্রীলঙ্কায় ৩০ বছরেরও বেশি সময় ধরে যুদ্ধের মধ্যে থেকেছি। এবং আমি কীভাবে ক্রিকেট দলে যোগ দিতে পেরেছি এবং ওই পরিস্থিতি থেকে নিজেরা কিভাবে সাফল্যের স্বাদ পেয়েছি, সেই গল্পই বলা হচ্ছে ৮০০-তে। তবে যেহেতু আমি শ্রীলঙ্কায় জন্মেছি, তাই আমি আমার জীবনের গল্প তুলে ধরতে পারব না?

উদাহরণস্বরূপ আমি একটাই কথা বলতে চাই, ২০১৯ সালে, আমি বলেছিলাম যে ২০০৯ সালটি আমার পুরো জীবনের সবচেয়ে সুখের বছর ছিল। কিন্তু, লোকেরা মনে করেন ওই বছরটি আমাদের দেশে তামিলিয়ানদের হত্যা করা নিয়ে যে খবর ছড়িয়েছিল, সেটার সমর্থনে আমি ওই বছরটিকে আনন্দময় বছর বলেছি। একটি সাধারণ মানুষের দৃষ্টিকোণ থেকে চিন্তা করুন। যুদ্ধকালীন সময়ে আমি বড় হয়েছি, অনেক কষ্টে আমি সাফল্য অর্জন করেছি। স্কুলে গিয়ে আমি প্রতিনিয়ত দেখতাম আমার সাথে খেলার জন্য কতজন বন্ধু বেঁচে আছে।

আর এমন পরিস্থিতিতে যুদ্ধের অবসান ঘটে। একজন সাধারণ নাগরিক হিসাবে, আমি সুরক্ষা সম্পর্কে ভেবেছিলাম। এবং আমি হলফ করে বলতে পারি গচ ১০ বছরে উভয় পক্ষের কোনও প্রাণহানির ঘটনা ঘটেনি। আর এ কারণেই আমি বলেছিলাম যে ২০০৯ সালটি আমার জীবনের সবচেয়ে সুখের বছর। আমি কখনই নিরীহ মানুষ হত্যার পক্ষে সমর্থন করি নি এবং ভবিষ্যতেও কখনও এ জাতীয় কাজ সমর্থন করব না।

Comm Ad 2020-LDC epic

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Comm Ad 2020-LDC Momo

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 006 TBS

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

এক আধটা নয়, পুরো ১১০টি পুজোর উদ্বোধন একঘন্টার মধ্যেই সেরে ফেলে রেকর্ড গড়ে দিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এক আধটা নয়, পুরো ১১০টি পুজোর উদ্বোধন একঘন্টার মধ্যেই সেরে ফেলে রেকর্ড গড়ে দিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

নবান্ন থেকে ভার্চুয়ালি ভাবে রাজ্যের ১২টি জেলার এই ১১০টি পুজোর উদ্বোধন এদিন করে দিলেন তিনি।

নবান্ন থেকে ভার্চুয়ালি ভাবে রাজ্যের ১২টি জেলার এই ১১০টি পুজোর উদ্বোধন এদিন করে দিলেন তিনি।

কখনও দূর্গাস্তোত্র পড়ে, কখনও শাঁখ বাজিয়ে, কখনও বা কাঁসর বাজিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে এদিন দেখা গেল একের পর এক জেলায় পুজোর উদ্বোধন করতে।

কখনও দূর্গাস্তোত্র পড়ে, কখনও শাঁখ বাজিয়ে, কখনও বা কাঁসর বাজিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে এদিন দেখা গেল একের পর এক জেলায় পুজোর উদ্বোধন করতে।

একই সঙ্গে নাম না করেই মাঝে মধ্যে গেরুয়া শিবিরকে খোঁচা দিয়ে তাঁকে মা দুর্গার কাছে প্রার্থনা করতে দেখা গেল যে মা যেন বাংলাকে দাঙ্গা থেকে বাঁচান

একই সঙ্গে নাম না করেই মাঝে মধ্যে গেরুয়া শিবিরকে খোঁচা দিয়ে তাঁকে মা দুর্গার কাছে প্রার্থনা করতে দেখা গেল যে মা যেন বাংলাকে দাঙ্গা থেকে বাঁচান

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 2020-WBSEDCL RC

Editors Choice

2020 New Ad HDFC 05