Comm Ad 005 TBS

করোনার গ্রাসে এশিয়ার সবচেয়ে বড় দুর্গাপুজো

Share Link:

করোনার গ্রাসে এশিয়ার সবচেয়ে বড় দুর্গাপুজো

নিজস্ব প্রতিনিধি, বাগেরহাট: আজ থেকে নয় বছর আগে পুজোর সূচনা। কিন্তু শুরুতেই গোটা বিশ্বের বাঙালিকে চমকে দিয়েছিল বাগেরহাটের হাকিমপুরের শিকদার বাড়ির পুজো। প্রথম বছর ২৫১টি প্রতিমার মাধ্যমে শুরু হয়েছিল উর্সব। গত বছর পুজোমণ্ডপ জুড়ে সাজানো হয়েছিল ৮০১টি প্রতিমা। বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে তো বটেই ভারত সহ অন্যান্য দেশ থেকেও প্রচুর পর্যটক জড়ো হয়েছিলেন এশিয়ার সবচেয়ে বড় দুর্গোপুজো চাক্ষুস করতে। কিন্তু এ বছর করোনার কারণে সেই শিকদার বাড়ির দুর্গাপুজো যেন প্রাণহীন। দুর্গামণ্ডপ খা-খা করছে। ধর্মীয় রীতি রক্ষায় এ বছর ঘট পুজোর আয়োজন করেছেন শিকদার বাড়ির পুজো উদ্যোক্তারা।

দুর্গোৎসব আরও প্রাণবন্ত এবং সব ধর্মের মানুষের মধ্যে উৎসব ছড়িয়ে দিতে গত ২০১১ সাল থেকে পুজো শুরু করেছিলেন শিকদার বাড়ির সদস্যরা। তার পর থেকে প্রতি বছরই ভিন্নতার ছোঁয়া থাকত উ‍ৎসবে। দর্শনার্থীদের আকৃষ্ট করতে প্রতিমার মাধ্যমে বৈচিত্র্য ফুটিয়ে তোলা হয়। ওই পূজামন্ডপ এমনভাবে সাজানো হয় দেখলে মনে হতো দেব-দেবীরা যেন স্বর্গ থেকে মর্তলোকে নেমে এসেছেন। মৃ‍ৎশিল্পীদের নিপুন হাতের ছোঁয়া আর রং তুলিতে মাটির প্রতিমা এমনভাবে সাজানো হত, দেখলে মনে হত যেন দেব-দেবীর প্রতিচ্ছবি।

শিকদার বাড়ির পাঁচ দিনের শারদীয় দুর্গোৎসবকে ঘিরে জাতিধর্ম নির্বিশেষে দেশ-বিদেশের লাখ লাখ দর্শনার্থী আর ভক্তকূলের ঢল নামত পুজোমণ্ডপে। পুজোর ক’দিন আশপাশের এলাকা রীতিমতো জনসমুদ্রে পরিণত হত। প্রতিমা শিল্পীরা ৬-৭ মাস আগে থেকে খড়-কুটা আর মাটি দিয়ে প্রতিমা তৈরির কাজ শুরু করতেন। দেশি-বিদেশি নানা রং আর নানা ধরণের অলঙ্কার দিয়ে প্রতিমা সাজানো হত। দুর্গোৎসবের তিন মাস আগে থেকে সাজসজ্জা আর আলোকসজ্জার কাজে ব্যস্ত সময় কাটত শিল্পীদের। দেবী দুর্গার সঙ্গী হিসেবে সত্য, ত্রেতা, দ্বাপর ও কলিযুগের বিভিন্ন দেব-দেবীর প্রতিমা দিয়ে সাজানো হত পুজোমণ্ডপ। কিন্তু এবার সব কিছু কেমন যেন বদলে গিয়েছে।

এ বছর জমকালো পুজো আয়োজন না করার কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে শিকদার বাড়ির দুর্গোৎসবের অন্যতম আয়োজক তথা শিল্পপতি লিটন শিকদার বলেছেন, ‘করোনা মহামারীর কারণে এবছর আমরা উৎসব থেকে পিছিয়ে এসেছি। এই কারণে দেব-দেবীর কোনও প্রতিমা তৈরি করা হচ্ছে না। সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে এখানে এই উৎসব পালন করা সম্ভব হবে না। প্রতিমা তৈরি করলে দেশি-বিদেশি লাখ লাখ দর্শনার্থী উৎসব দেখতে আসবে। তাই ঘটে পুজো করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।০’

শিকদার বাড়ি পূজামন্ডপে গত বছর ৮০১টি প্রতিমা তৈরির গুরুদায়িত্ব যাঁর কাঁধে ছিল সেই প্রতিমাশিল্পী বিজয় কৃষ্ণ বাছাড় ভারাক্রান্ত কণ্ঠে বলেই ফেললেন, ‘প্রতিমা তৈরি করে যে অর্থ পাই, তা দিয়েই আমাদের সংসার চলে। গত বছর প্রায় ছয় মাস ধরে ১৫ জনে মিলে ৮০১টি দেব-দেবীর প্রতিমা তৈরি করেছিলাম। এবছরও প্রতিমা তৈরির কথা ছিল। কিন্তু করোনার কারণে প্রতিমা তৈরি হচ্ছেনা। কিভাবে সংসার চলবে তা ভেবেই পাচ্ছি না।’
 

Comm Ad 2020-LDC epic

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Comm Ad 2020-himalaya RC

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 2020-himalaya RC

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 2020-LDC Momo

Editors Choice

Comm Ad 2020-WBSEDCL RC