Comm Ad 2020-LDC epic

ভ্যাকসিনের ট্রায়ালের জন্য চিনের সংস্থাকে আর্থিক সাহায্যে নারাজ বাংলাদেশ

Share Link:

ভ্যাকসিনের ট্রায়ালের জন্য চিনের সংস্থাকে আর্থিক সাহায্যে নারাজ বাংলাদেশ

নিজস্ব প্রতিনিধি, ঢাকা: প্রাণঘাতী করোনাভ্যাকসিনের সম্ভাব্য প্রতিষেধকের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের জন্য চিনের সংস্থা সিনোভ্যাককে আর্থিক সাহায্য দিতে অস্বীকৃতি জানাল বাংলাদেশ। আন্তর্জাতিক বার্তা সংস্থা ‘রয়টার্স’কে দেওয়া সাক্ষা‍ৎকারে বাংলাদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক স্পষ্ট ভাষায় জানিয়েছেন, ‘করোনা ভ্যাকসিনের ট্রায়ালের জন্য সিনোভ্যাককে কোনও ভাবেই আর্থিক সাহায্য করা হবে না।’ তবে সে ক্ষেত্রে চিনের সংস্থা ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চালানোর সিদ্ধান্ত থেকে পিছু হঠলে বাংলাদেশ সরকার কী অবস্থান নেবে, তা নিয়ে স্পষ্ট করে কিছু বলতে রাজি হননি তিনি।

বিশ্বের যে কয়টি সংস্থার সম্ভাব্য করোনা ভ্যাকসিন নিয়ে আশার আলো দেখা যাচ্ছে, তার মধ্যে অন্যতম হল চিনের বেসরকারি সংস্থা সিনোভ্যাক। গত জুনে বাংলাদেশে করোনা ভ্যাকসিনের তৃতীয় ধাপের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চালাতে চেয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রককে চিঠিও দেয় সংস্থাটি। বাংলাদেশ চিকি‍ৎসা গবেষণা পরিষদ সিনোভ্যাকের প্রস্তাবে সম্মতি দিলেও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ‘মার্কিন’ বান্ধব আধিকারিকরা সিনোভ্যাকের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের পরিকল্পনা ভেস্তে দিতে আসরে নামেন। প্রায় দু’মাস বাদে সিনোভ্যাককে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের জন্য চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়।
স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এমন ভূমিকায় কিছুটা ক্ষুব্ধ হন সিনোভ্যাকের শীর্ষ আধিকারিকরা। সম্প্রতি সংস্থার পক্ষ থেকে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে এক চিঠি পাঠিয়ে ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চালানোর জন্য আর্থিক সাহায্য চাওয়া হয়। ওই চিঠিতে বলা হয়, ‘বাংলাদেশে অনুমোদন পেতে দেরি হওয়ার ফলে অন্যান্য দেশে টিকা পরীক্ষার জন্য অর্থ বরাদ্দ করা হয়েছে। ফলে বাংলাদেশ সরকারের আর্থিক সাহায্য ছাড়া এই মুহূর্তে দেশে ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চালানো সম্ভব নয়।’

সিনোভ্যাকের এমন প্রস্তাবকে চাপের কৌশল হিসেবেই দেখছেন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ‘মার্কিন’ বান্ধব আধিকারিকরা। ‘রয়টার্স’কে দেওয়া সাক্ষা‍ৎকারে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেছেন, ‘সিনোভ্যাক যখন ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চালানোর জন্য প্রস্তাব দিয়েছিল, তখন টাকা চায়নি। চুক্তি অনুসারে, পরীক্ষার সমস্ত ব্যয়ভার  নিজেরাই বহন করার কথা জানিয়েছিল। এমনকী আমাদের বিনামূল্যে ১ লাখ ১০ হাজার ডোজ ভ্যাকসিন দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। ফলে আমরা কোনও আর্থিক সাহায্য করব না।’
 

Comm Ad 018 Kalna

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Comm Ad 2020-himalaya RC

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 2020-Valentine RC

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

এক আধটা নয়, পুরো ১১০টি পুজোর উদ্বোধন একঘন্টার মধ্যেই সেরে ফেলে রেকর্ড গড়ে দিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এক আধটা নয়, পুরো ১১০টি পুজোর উদ্বোধন একঘন্টার মধ্যেই সেরে ফেলে রেকর্ড গড়ে দিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

নবান্ন থেকে ভার্চুয়ালি ভাবে রাজ্যের ১২টি জেলার এই ১১০টি পুজোর উদ্বোধন এদিন করে দিলেন তিনি।

নবান্ন থেকে ভার্চুয়ালি ভাবে রাজ্যের ১২টি জেলার এই ১১০টি পুজোর উদ্বোধন এদিন করে দিলেন তিনি।

কখনও দূর্গাস্তোত্র পড়ে, কখনও শাঁখ বাজিয়ে, কখনও বা কাঁসর বাজিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে এদিন দেখা গেল একের পর এক জেলায় পুজোর উদ্বোধন করতে।

কখনও দূর্গাস্তোত্র পড়ে, কখনও শাঁখ বাজিয়ে, কখনও বা কাঁসর বাজিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে এদিন দেখা গেল একের পর এক জেলায় পুজোর উদ্বোধন করতে।

একই সঙ্গে নাম না করেই মাঝে মধ্যে গেরুয়া শিবিরকে খোঁচা দিয়ে তাঁকে মা দুর্গার কাছে প্রার্থনা করতে দেখা গেল যে মা যেন বাংলাকে দাঙ্গা থেকে বাঁচান

একই সঙ্গে নাম না করেই মাঝে মধ্যে গেরুয়া শিবিরকে খোঁচা দিয়ে তাঁকে মা দুর্গার কাছে প্রার্থনা করতে দেখা গেল যে মা যেন বাংলাকে দাঙ্গা থেকে বাঁচান

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 2020-WB Tourism RC

Editors Choice

Pujo2020-T01