Comm Ad 2020-LDC epic

মর্গে তরুণীদের লাশের সঙ্গে যৌনাচার, বাংলাদেশে গ্রেফতার যুবক

Share Link:

মর্গে তরুণীদের লাশের সঙ্গে যৌনাচার, বাংলাদেশে গ্রেফতার যুবক

ধৃত মুন্না ভক্ত।

নিজস্ব প্রতিনিধি, ঢাকা: রাজধানীর শহীদ সোহরাওয়ার্দি হাসপাতালের মর্গে ডোমের সহকারীর দায়িত্বের নিযুক্ত ছিল। আর সেই সুযোগে নিজের বিকৃত যৌন লালসা মেটাতে দীর্ঘদিন ধরেই মর্গে রাখা মহিলাদের ধর্ষণের মতো ঘৃণ্য কাজে লিপ্ত হয়েছিল মুন্না ভক্ত নামে এক নরপিশাচ। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি।  বৃহস্পতিবার রাতে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে সিআইডি। শুক্রবার ঢাকা মহানগর আদালতের  বিচারক মামুনুর রশিদের কাছে নিজের কুকীর্তির কথা স্বীকার করেছে মুন্না। বয়ান রেকর্ডের পরে ধৃতকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন বিচারক। এমন ঘটনার কথা জানাজানি হতেই হইচই পড়ে গিয়েছে দেশজুড়ে।

শুক্রবার সিআইডির অর্গানাইজড ক্রাইম বিভাগের প্রধান তথা অতিরিক্ত ডিআইজি শেখ মোহাম্মদ রেজাউল হায়দার সাংবাদিক সম্মেলনে জানান,  গত চার বছর ধরে রাজধানীর শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের মর্গে মামা যতন কুমার লালের সঙ্গে ডোম সহকারী হিসেবে কাজে নিযুক্ত ছিল মুন্না ভক্ত। আর সেই কাজ করতে গিয়ে এক বিকৃত যৌনাচারে লিপ্ত হয়ে পড়ে সে। মর্গে ১২ থেকে ২০ বছর বয়সী সুন্দরী মেয়েদের লাশ এলেই ধর্ষণ করত মুন্না। চার বছর ধরে বিকৃত কাজ বেশ নির্বিঘ্নেই চালিয়ে যাচ্ছিল মুন্না। কিন্তু হাসপাতালের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগ থেকে পাঠানো ময়নাতদন্তের রিপোর্টেই তার বিকৃত কাজের পর্দা ফাঁস হয়।’

কীভাবে হল মুন্নার বিকৃত যৌনাচারের পর্দাফাঁস? অতিরিক্ত ডিআইজির কথায়, ‘ময়নাতদন্তের জন্য ১২ থেকে ২০ বছর বয়সী বেশ কয়েকজন তরুণীর লাশ এসেছিল সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের মর্গে। প্রত্যেকেই আত্মঘাতী হয়েছিল। সুরতহাল প্রতিবেদনে কোনও আঘাতের চিহ্ন এবং  ধর্ষণের প্রমাণ ছিল না। অথচ সিআইডির ল্যাবরেটরিতে চিকি‍ৎসকদের পাঠানো প্রতিটি রিপোর্টেই লাশের ‘হাই ভেজাইনাল সোয়াবে’ (এইচভিএস) পুরুষ শুক্রাণু মেলার কথা জানানো হয়। শুধু তাই নয়, প্রত্যেকের ক্ষেত্রেই একই পুরুষের শুক্রাণুর উপস্থিতি পাওয়া যায়।  বিষয়টি সন্দেহজনক হওয়ায় তদন্ত শুরু করা হয়। কোডিস (CODIS)  সফটওয়্যারে সার্চ দিয়ে দেখেন যে মোহাম্মদপুর ও কাফরুল থানার কয়েকটি ঘটনায় প্রাপ্ত ডিএনএ’র প্রোফাইলের সঙ্গে একই ব্যক্তির ডিএনএ বারবার ম্যাচ করছে। যেটা অনেকটাই অস্বাভাবিক ছিল। তখনই তদন্তকারীদের সন্দেহ হয়, কোনও না কোনও ভাবে মৃতাদের লাশের সঙ্গে কোনও ব্যক্তি বিকৃত যৌনচার করেছে। তদন্তকারীরা জানতে পারেন, সাধারণত ময়নাতদন্ত ও ডিএনএ বিশ্লেষণ করতে সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের ওই মর্গে সব লাশই রাখা হয়। সেখানে বেশ কয়েকজন ডোম নিয়মিত পাহারায় থাকে। কিন্তু যে পাঁচ জনের মৃতদেহে পুরুষ শুক্রাণু মিলেছে সেই লাশগুলোর ক্ষেত্রে একজন ডোম সহকারী নিয়মিত ডিউটিতে থাকত। এতেই সন্দেহ আরও গাঢ় হয় তাদের। তদন্তকারীরা কৌশলে মুন্না ভক্ত নামে ওই সহকারীর ডিএনএ সংগ্রহ করে তা সংস্থার ল্যাবে নিয়ে বিশ্লেষণ করলে ওই ৫ তরুণীর লাশের ডিএনএ ম্যাচিং করে যায়।’

হাসপাতালে মৃতা তরুণীদের সঙ্গে মুন্নাই বিকৃত যৌনচার করেছেন তা নিশ্চিত হওয়ার পরেই গ্রেফতারে ঝাঁপিয়ে পড়েন সিআইডি আধিকারিকরা।  বৃহস্পতিবার রাতে ওই নরপিশাচকে গ্রেফতার করা হয়। ধৃত মুন্নার বাড়ি রাজবাড়ীর গোয়ালন্দের জুরান মোল্লার পাড়ায়।

Comm Ad 2020-Valentine body

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Comm Ad 026 BM

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 006 TBS

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 006 TBS

Editors Choice

Comm Ad 006 TBS