2020 New Ad HDFC 04

পাকিস্তানে বিমান দুর্ঘটনায় উদ্ধার ৯৭ জনের মৃতদেহ

Share Link:

পাকিস্তানে বিমান দুর্ঘটনায় উদ্ধার ৯৭ জনের মৃতদেহ

নিজস্ব প্রতিনিধি, ইসলামাবাদ: করাচির জিনা গার্ডেনের কাছে পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্সের (পিআইএ) বিমান দুর্ঘটনায় শনিবার দুপুর পর্যন্ত ৯৭ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছেন উদ্ধারকারীরা। তবে উদ্ধার হওয়া মৃতদেহের সবাই অভিশপ্ত বিমানটির যাত্রী ছিলেন কিনা, তা নিশ্চিত করতে পারেনি উদ্ধারকারীরা। পাশাপাশি জাফর মাসুদ ও মোহাম্মদ জুবায়ের নামে দু’জনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ধংসস্তুপ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সিন্ধ প্রদেশের তথ্য মন্ত্রী নাসির হুসায়েন শাহ। তবে ধ্বংসস্তুপের ভিতরে আরও কেউ জীবিত অবস্থায় রয়েছেন কিনা, তা জানাতে পারেননি তিনি। বিমান দুর্ঘটনায় তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

এদিন দুপুর একটার সময়ে ৯১ জন বিমান যাত্রী ও আটজন ক্রু নিয়ে লাহোর বিমানবন্দর ছেড়ে করাচির উদ্দেশে রওনা দিয়েছিল পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্সের (পিআইএ) A-320 এয়ারবাসটি। দুপুর পৌনে তিনটে নাগাদ করাচির জিন্নাহ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করার কথা ছিল বিমানটির। চালকের আসনে ছিলেন দেশের অন্যতম অভিজ্ঞ পাইলট ক্যাপ্টেন সাজ্জাদ গুল। করাচি বিমানবন্দরে অবতরণের কয়েক মিনিট আগেই তিনি এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল রুমে (এটিসি) বার্তা পাঠিয়ে জানান, বিমানের একটি ইঞ্জিন কাজ অচল হয়ে পড়েছে। রানওয়ের বাঁ দিকে নামা যাবে কিনা, তাও জানতে চান। এটিসি থেকে বলা হয়, বাঁ দিকের রানওয়েতে অবতরণ করতে পারেন তিনি। কিন্তু বেলা ২টো বেজে ৩৭ মিনিটে এটিসির সঙ্গে বিমানের সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

তার পরেই বিমানবন্দর থেকে খানিকটা দূরে মডেল কলোনির কাছে জিনা গার্ডেনে বসতি এলাকায় ভেঙ্গে পড়ে যাত্রীবাহী বিমানটি। বিকট শব্দের পাশাপাশি পুরো এলাকা কালো ধোঁয়ায় ঢেকে যায়। শাকিল আহমেদ নামে এক প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন, বিমানবন্দর থেকে কয়েক কিলোমিটার দূরে বিমানটি বিধ্বস্ত হওয়ার আগে মোবাইল টাওয়ারে ধাক্কাতার পরেই একটি আবাসিক ভবনের ওপর ভেঙে পড়ে। দুর্ঘটনার খবর পেয়েই দুর্ঘটনাস্থলে পৌঁছে যুদ্ধকালীন ত‍ৎপরতায় উদ্ধারকার্য শুরু করে পাক সেনার ক্যুইক রিঅ্যাকশন ফোর্স ও পাক রেঞ্জার্সের বিপর্যয় মোকাবিলা দলের সদস্যরা। ধ্বংসস্তুপ সরিয়ে উদ্ধার করতে প্রচণ্ড বেগ পেতে হচ্ছে তাদের।

সিন্ধ প্রদেশের তথ্যমন্ত্রী নাসির হুসায়েন শাহ জানিয়েছেন, ৯৭ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হলেও তারা সবাই বিমানের যাত্রী কিনা, তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। কেননা, বিমানটি যেখানে ভেঙে পড়েছে সেই জিনা গার্ডেন আবাসিক এলাকা হওয়াতে স্থানীয় বাসিন্দারাও চাপা পড়ে মারা যেতে পারেন।

পিআইএর মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক আবদুল্লাহ হাফিজ জানিয়েছেন, তিন-তিনবার চেষ্টা করেও বিমানের চালক রানওয়েতে নামতে পারেননি। কেন এমন ঘটনা ঘটল তা বিধ্বস্ত বিমানের ব্ল্যাক বক্স উদ্ধারের পরেই জানা যাবে। তবে বিমানটিতে কতজন যাত্রী চিলেন তা নিয়ে কিছুটা সংশয় দেখা দিয়েছে। পিআইএয়ের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক দাবি করেছেন, বিধ্বস্ত বিমানটিতে ৯৯ জন যাত্রী ছিলেন। কিন্তু একাধিক আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থার দাবি, অভিশপ্ত বিমানটিতে ১০৭ জন যাত্রী ছিলেন।

Comm Ad 005 TBS

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Comm Ad 023 MZP

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 006 TBS

নবান্নের কন্ট্রোলরুমে মুখ্যসচিবের সঙ্গে আলোচনায় মুখ্যমন্ত্রী।

নবান্নের কন্ট্রোলরুমে মুখ্যসচিবের সঙ্গে আলোচনায় মুখ্যমন্ত্রী।

বুধবার সারারাত নবান্নে থেকেই পরিস্থিতি পর্যালোচনা করবেন মুখ্যমন্ত্রী।

বুধবার সারারাত নবান্নে থেকেই পরিস্থিতি পর্যালোচনা করবেন মুখ্যমন্ত্রী।

মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন মুখ্যসচিব, ডিজি-সহ অন্য কর্তারা।

মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন মুখ্যসচিব, ডিজি-সহ অন্য কর্তারা।

মঙ্গলবারের পর বুধবার বিকেলেও শহরের বিভিন্ন জায়গায় যান মুখ্যমন্ত্রী।

মঙ্গলবারের পর বুধবার বিকেলেও শহরের বিভিন্ন জায়গায় যান মুখ্যমন্ত্রী।

তাঁর সঙ্গে ছিলেন কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা ও মেয়র ফিরহাদ হাকিম।

তাঁর সঙ্গে ছিলেন কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা ও মেয়র ফিরহাদ হাকিম।

এদিন খিদিরপুর, পার্ক সার্কাস, বালিগঞ্জ ফাঁড়ির মতো দক্ষিণ কলকাতার একাধিক জায়গায় যান।

এদিন খিদিরপুর, পার্ক সার্কাস, বালিগঞ্জ ফাঁড়ির মতো দক্ষিণ কলকাতার একাধিক জায়গায় যান।

এদিনও স্থানীয়দের লকডাউন মেনে চলার অনুরোধ করেন তিনি।

এদিনও স্থানীয়দের লকডাউন মেনে চলার অনুরোধ করেন তিনি।

এই নিয়ে পরপর দু'দিন শহরের বিভিন্ন জায়গায় গেলেন মুখ্যমন্ত্রী।

এই নিয়ে পরপর দু'দিন শহরের বিভিন্ন জায়গায় গেলেন মুখ্যমন্ত্রী।

তাঁর এই কাজকে তীব্র ভাষায় বিঁধেছেন বিরোধীরা।

তাঁর এই কাজকে তীব্র ভাষায় বিঁধেছেন বিরোধীরা।

পূবস্হলি দক্ষিণ বিধানসভার কালনা ১নং ব্লকের শাখাটি আদিবাসী পাড়ার বাহা পুজোর উৎসব

পূবস্হলি দক্ষিণ বিধানসভার কালনা ১নং ব্লকের শাখাটি আদিবাসী পাড়ার বাহা পুজোর উৎসব

সেখানেই যান মাননীয় মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ

সেখানেই যান মাননীয় মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ

গ্রামবাসীদের সঙ্গে কথা বলেন। জানতে চান সুবিধা-অসুবিধার কথা

গ্রামবাসীদের সঙ্গে কথা বলেন। জানতে চান সুবিধা-অসুবিধার কথা

পরে একাধিক প্রকল্পের উদ্বোধনও করেন মন্ত্রী

পরে একাধিক প্রকল্পের উদ্বোধনও করেন মন্ত্রী

জনগণের সঙ্গে বসে অনুষ্ঠানও দেখেন মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ

জনগণের সঙ্গে বসে অনুষ্ঠানও দেখেন মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ

প্রায় ঘণ্টাখানেক এই অনুষ্ঠানেই ছিলেন তিনি

প্রায় ঘণ্টাখানেক এই অনুষ্ঠানেই ছিলেন তিনি

#

#

Voting Poll (Ratio)

corona 02

Editors Choice

Comm Ad 026 BM