Comm Ad 2020-tantuja-body

সেলসম্যান থেকে ১৫০০ কোটি টাকার মালিক, পাকড়াও ‘গোল্ডেন মনির’

Share Link:

সেলসম্যান থেকে ১৫০০ কোটি টাকার মালিক, পাকড়াও ‘গোল্ডেন মনির’

ইনসেটে 'গোল্ডেন মনির'।

নিজস্ব প্রতিনিধি, ঢাকা: তাঁর উত্থান কাহিনী রূপকথার গল্পকেও হার মানায়। জীবন শুরু করেছিলেন এক কাপড়ের দোকানের সেলসম্যান হিসেবে। তার পরে সেই চাকরিতে ইস্তফা দিয়ে শুরু করেন সোনার চোরাকারবার। গত কয়েক বছরেই ফুলেফেঁপে উঠেছিলেন। শনিবার রাতেই এমিরেটাস এয়ারলাইন্সের (ইকে-৫৮৫) বিমানে দুবাইয়ে পালিয়ে যাওয়ার কথা ছিল মনির হোসেন ওরফে গোল্ডেন মনিরের। কিন্তু শেষ রক্ষা হল না। দেশ থেকে পালিয়ে যাওয়ার আগেই র‍্যাবের হাতে গ্রেফতার হতে হল।

র‍্যাবের বিশেষ ম্যাজিস্ট্রেট পলাশ কুমার বসুর নেতৃত্বে শুক্রবার রাতে মেরুল বাড্ডায় মনিরের বাড়িতে হানা দেয় র‍্যাব। অভিযানে ৬০০ ভরি সোনা, বিদেশি পিস্তল-গুলি, মদ, বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা ও নগদ ১ কোটি ৯ লাখ টাকা উদ্ধার হয়। তাছাড়াও অনুমোদনহীন দুটি বিলাসবহুল গাড়িও বাজেয়াপ্ত করা হয়। যার প্রতিটির বাজারমূল্য প্রায় তিন কোটি টাকার কাছাকাছি। ধৃত মনিরের বিরুদ্ধে অবৈধ অস্ত্র, মাদক ও বিদেশি মুদ্রা রাখার অভিযোগে মামলা দায়ের করেছে র‍্যাব।

র‌্যাবের মুখপাত্র আশিক বিল্লাহ জানিয়েছেন, একটি গোয়েন্দা সংস্থার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে মনির হোসেনের বাড়ি বিশেষ অভিযান চালানো হয়। নব্বইয়ের দশকে গাউছিয়া মার্কেটের একটি কাপড়ের দোকানের সেলসম্যান হিসেবে কাজ করতেন মনির। তার পরে রাজধানীর মৌচাকের একটি ক্রোকারিজের দোকানে তিনি কাজে যোগ দেন। সেই সময় এক লাগেজ ব্যবসায়ীর সঙ্গে পরিচয় হলে মনির লাগেজ ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত হন। ঢাকা-সিঙ্গাপুর–ভারত, এই রুটে তিনি প্রথমে লাগেজে করে কাপড়, কসমেটিক, ইলেকট্রনিকস, কম্পিউটারসামগ্রী, মোবাইল, ঘড়িসহ বিভিন্ন জিনিসপত্র শুল্ক ফাঁকি দিয়ে নিয়ে আসতেন এবং নিয়ে যেতেন। তার পরে সোনা চোরাচালানে জড়িয়ে পড়েন। কিছুদিন বাদে বায়তুল মোকাররম মার্কেটে একটি সোনার গয়নার দোকান খোলেন। সময়ের ব্যবধানে মনির বড় ধরনের সোনা চোরাচালানকারী হিসেবে পরিচিতি লাভ করেন। তার নাম হয়ে যায় গোল্ডেন মনির। চোরাচালানের দায়ে ২০০৭ সাল বিশেষ ক্ষমতা আইনে রাজধানীর বিভিন্ন থানায় তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা দায়ের হয়।’

শুধু সোনার বড় চোরাচালানকারী হিসেবে পরিচিত হয়েও ক্ষান্ত থাকেননি মনির হোসেন। আরও ধনী হওয়ার নেশায় জমি ব্যবসায় নামেন। আর  রাজউক থেকে প্লটসংক্রান্ত সরকারি নথিপত্র চুরি করে এবং অবৈধভাবে রাজউকের বিভিন্ন কর্মকর্তাকে দাফতরিক কাজে ব্যবহার করে রাজউক, পূর্বাচল, বাড্ডা, নিকুঞ্জ, উত্তরা এবং কেরানীগঞ্জে অন্তত দুই শতাধিক প্লট নিজের নামে করে নেন। গত কয়েক বছরেই দেড় হাজার কোটি টাকার সাম্রাজ্য গড়ে তোলেন।
 

corona 01

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

corona 02

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

corona 02

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 2020-himalaya RC

Editors Choice

Comm Ad 2020-himalaya RC