Comm Ad 005 TBS

বউবাজার অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ফিরলো স্টিফেন কোর্টের স্মৃতি! মৃত ২

Share Link:

বউবাজার অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ফিরলো স্টিফেন কোর্টের স্মৃতি! মৃত ২

নিজস্ব প্রতিনিধি: পুজোর মুখে শহরে এক রাতের দুর্ঘটনায় ফিরে এল স্টিফেন কোর্টের স্মৃতি। পার্ক স্ট্রীটের সেই বহুতলে এক দশক আগে লাগা আগুন কেড়ে নিয়েছিল অনেকগুলি প্রাণ। এখনও অনেকেই রয়ে গিয়েছেন নিখোঁজের তালিকায়। ২০১০ সালের মার্চ মাসের সেই ভয়বহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় শহর প্রত্যক্ষ করেছিল প্রাণে বাঁচার তাগিদে সুউচ্চ বাড়ি থেকে মরণঝাঁপ দেওয়ার ঘটনা। সেই ভয়াবহ স্মৃতি আবার ফিরে এল কলকাতার বুকে শুক্রবার রাতে। বউবাজারে গণেশচন্দ্র অ্যাভেনিউয়ে এক পুরাতন বহুতলে আগাউন লাগার জেরে এক কিশোরকে ঝাঁপ দিতে দেখা গেল বাড়ির ৬তলা থেকে। শনিবার ভোরে তাঁর মৃত্যু হয়। একই সঙ্গে বাড়িটির ভেতর থেকে এক বৃদ্ধের দগ্ধ দেহ এদিন সকালে উদ্ধার করেন দমকলকর্মীরা।

শুক্রবার রাত ১০টা নাগাদ গণেশচন্দ্র অ্যাভেনিউয়ের আটতলা পুরাতন ওই বহুতলে আগুন লাগে। ওই বাড়িটিতে প্রায় ৫০টি পরিবারের বসবাস ও রয়েছে বেশ কিছু বেসরকারি অফিস। আগুন প্রথমে লাগে বাড়ির মিটারবক্সে। সেখান থেকে তা ছড়িয়ে পড়ে বাড়িটির ওপরের দিকে থাকা ফ্লোরগুলিতে। গোটা এলাকা ঢেকে যায় ঘন কালো ধোঁয়ায়। দুই দফায় ঘটনাস্থলে পৌঁছায় দমকলের দশটি ইঞ্জিন, আনা হয় ৫৫ মিটার মইও। ওই বহুতলের বেশির ভাগ বাসিন্দা ততক্ষনে বাড়টির বাইরে বার হয়ে আসতে সক্ষম হলেও একটি ফ্ল্যাটের বাথরুমে আটকে পড়েন এক বৃদ্ধ। দমকল ও কলকাতা পুলিশের বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর হাজারো চেষ্টার পরেও তাঁর কাছে পৌঁছানো যায়নি। এদিন সকালে তাঁর দগ্ধ দেহ উদ্ধার করেন দমকলকর্মীরা। একই সঙ্গে আগুনের লেলিহান শিখা দেখা ভয় পেয়ে দমকলকর্মীদের চোখের সামনেই ৬ তলার এক বারান্দা থেকে ঝাঁপ দেয় এক কিশোর। দ্রুত তাঁকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলেও শেষ রক্ষা হয়নি। শনিবার ভোরে মারা যায় ওই কিশোর। তাঁর মাথায় গুরুতর চোট লেগেছিল।

রাত ১টার পরে ওই বহুতলের আগিন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হন দমকলকর্মীরা। যদুই তার আগেই ঘটনাস্থলেচলে আসেন রাজ্যের দমকলমন্ত্রী সুজিত বসু। এদিন সকালে আগুন সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে চলে আসার কথা জানান দমকলের আধিকারিকেরা। তবে ছয় তলা থেকে ফের ধোঁয়া বের হওযায় বাসিন্দাদের মধ্যে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। ফের খবর দেওয়া হয়েছে দমকলকে। পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে পুরোপুরি পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত ভিতরে কাউকেই যেতে দেওয়া হবে না। গতকাল থেকে রাস্তাতেই রয়েছেন এখানকার বাসিন্দারা। জানা গিয়েছে ওই বহুতল বাড়িতে অগ্নিনির্বাপণের যেমন কোনও ব্যবস্থা ছিল না তেমনি আগুনের গ্রাসে চলে যাওয়া ১০-১২টি ফ্ল্যাটে বড় বড় ফাটল দেখা দিয়েছে। শনিবার সকাল পর্যন্ত জল দিয়ে বাড়িটিকে ঠান্ডা করার কাজ চালায় দমকল বাহিনী। এদিন দুপুরে দমকলের আধিকারিকেরা গোটা বাড়িটি ভালো করে ঢুকে বাড়িটির অবস্থা পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবেন যে বাড়িটিতে আর কেউ থাকতে পারবেন কি পারবেন না। বিশেষ করে পঞ্চম থেকে অষ্টম তলা পর্যন্ত বাড়িটি সব থেকে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় এবং ফাটল দেখা দেওয়ায় ওই সব ফ্লোরের ফ্ল্যাটগুলিতে থাকা পরিবারগুলি আদৌ আর তাঁদের বাসস্থান ফিরে পাবেন কিনা তা নিয়েই ঘোর সন্দেহ দেখা দিয়েছে। হুট করে বা জোর করে যাতে এখন কেউ ওই বাড়িটিতে ঢুকে না পড়ে তার জন্য রীতিমত ঘটনাস্থল ঘিরে রয়েছে কলকাতা পুলিশের বিশাল বাহিনী।

2020 New Ad HDFC 04

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

2020 New Ad HDFC 05

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

2020 New Ad HDFC 05

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

এক আধটা নয়, পুরো ১১০টি পুজোর উদ্বোধন একঘন্টার মধ্যেই সেরে ফেলে রেকর্ড গড়ে দিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এক আধটা নয়, পুরো ১১০টি পুজোর উদ্বোধন একঘন্টার মধ্যেই সেরে ফেলে রেকর্ড গড়ে দিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

নবান্ন থেকে ভার্চুয়ালি ভাবে রাজ্যের ১২টি জেলার এই ১১০টি পুজোর উদ্বোধন এদিন করে দিলেন তিনি।

নবান্ন থেকে ভার্চুয়ালি ভাবে রাজ্যের ১২টি জেলার এই ১১০টি পুজোর উদ্বোধন এদিন করে দিলেন তিনি।

কখনও দূর্গাস্তোত্র পড়ে, কখনও শাঁখ বাজিয়ে, কখনও বা কাঁসর বাজিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে এদিন দেখা গেল একের পর এক জেলায় পুজোর উদ্বোধন করতে।

কখনও দূর্গাস্তোত্র পড়ে, কখনও শাঁখ বাজিয়ে, কখনও বা কাঁসর বাজিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে এদিন দেখা গেল একের পর এক জেলায় পুজোর উদ্বোধন করতে।

একই সঙ্গে নাম না করেই মাঝে মধ্যে গেরুয়া শিবিরকে খোঁচা দিয়ে তাঁকে মা দুর্গার কাছে প্রার্থনা করতে দেখা গেল যে মা যেন বাংলাকে দাঙ্গা থেকে বাঁচান

একই সঙ্গে নাম না করেই মাঝে মধ্যে গেরুয়া শিবিরকে খোঁচা দিয়ে তাঁকে মা দুর্গার কাছে প্রার্থনা করতে দেখা গেল যে মা যেন বাংলাকে দাঙ্গা থেকে বাঁচান

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 2020-WBSEDCL RC

Editors Choice

Comm Ad 026 BM