corona 01

ক্ষমতায় ফিরলে বাড়তে পারে স্বাস্থ্যসাথীর চিকিৎসা পিছু খরচ! ইঙ্গিত মুখ্যসচিবের

Share Link:

ক্ষমতায় ফিরলে বাড়তে পারে স্বাস্থ্যসাথীর চিকিৎসা পিছু খরচ! ইঙ্গিত মুখ্যসচিবের

নিজস্ব প্রতিনিধি: আসন্ন রাজ্য বিধানসভা নির্বাচনে ‘স্বাস্থ্যসাথী’ প্রকল্পটি যে রাজ্যের শাসক দলের কাছে ট্রাম্পকার্ড হতে চলেছে এ নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই। এখনও পর্যন্ত রাজ্যে ‘দুয়ারে দুয়ারে সরকার’ কর্মসূচিতে ৫৫ লক্ষ আবেদন জমা পড়েছে শুধুমাত্র স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পের জন্য। তার মধ্যে ২৪ লক্ষ আবেদনের ভিত্তিতে কার্ডও পেয়ে গিয়েছেন সাধারন মানুষ। তাই রাজ্য সরকারও প্রথম থেকেই বেশ নজর রেখে চলেছে যাতে এই প্রকল্পের আওতায় থাকা মানুষজন যেন কোনঅভাবেই ভোগান্তির মুখে না পড়েন। কার্ড থাকা সত্ত্বেও যেন কাউকে হাসপাতাল থেকে ফিরে যেতে না হয়। আর এই লক্ষ্যেই শনিবার সন্ধ্যায় স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পে যোগ দেওয়া বেসরকারি হাসপাতালের প্রতিনিধিদের সঙ্গে এক বৈঠকে বসলেন রাজ্যের মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। আর সেই বৈঠকেই তিনি ইঙ্গিত দিলেন এই সরকার ভোটে জিতে ক্ষমতায় ফিরলে নানা রোগের চিকিৎসার জন্য যে খরচ বেঁধে দেওয়া হয়েছে স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পে তা বাড়ানো হতে পারে।
 
স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পে যোগদানকারী বেসরকারি হাসপাতালগুলির দাবি ছিল, বিভিন্ন রোগের চিকিৎসার জন্য যে খরচ বেঁধে দেওয়া হয়েছে তা খুবই কম। এই খরচের মধ্যে চিকিৎসা করা কার্যত অসম্ভব। বেসরকারি হাসপাতালগুলির এই দাবিকে মাথায় রেখেই শনিবারের বৈঠক ডাকা হয়েছিল। কারন রাজ্য সরকার চায় না স্বাস্থ্যসাথী কার্ড পেয়েও যেন কেউ চিকিৎসা না পেয়ে ফিরে না আসেন বা কোনও হাসপাতাল তাঁদের ফিরিয়ে না দেয়। এই জন্য শনিবারের বৈঠকে বেসরকারি হাসপাতাল্গুলির প্রতিনিধিদের মধ্যে থেকে কয়েকজনকে নিয়ে একটি কমিটি গড়ে দেওয়া হয় যারা কোন রোগের কোন ধরনের চিকিৎসার জন্য নূন্যতম কত খরচ পড়বে তা ঠিক করে আগামী ২-৩ মাসের মধ্যে রাজ্য সরকারকে জানাবে। এরপর সেই কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী রাজ্য সরকার তা বাস্তবায়িত করবে। এর পাশাপাশি মুখ্যসচিব বৈঠকে অংশগ্রহণকারী বেসরকারী হাসপাতালগুলির কাছেও আবেদন রাখেন যতদিন না নতুন সরকার এসে এই বিষয়ে স্পষ্ট কোনও সিদ্ধান্ত না নিচ্ছে ততদিন এই মাস ৩-৪ যেন স্বাস্থ্যসাথী কার্ড থাকা কোনও রোগী বা তাঁর পরিজনদের ফিরিয়ে না দেওয়া হয়।
 
শনিবারের বৈঠকে আরও একটি বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যে, এবার থেকে বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পে‌র জন্য তৈরি হবে পৃথক ডেস্ক। কোনও রোগী কার্ড নিয়ে বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে এলে প্রথমে যোগাযোগ করবেন সেই ডেস্কেই। এর পাশাপাশি রাজ্য সরকারের তরফে আলাপনবাবু জানিয়ে দেন, এবার থেকে আরও দ্রুত বেসরকারি হাসপাতালগুলোকে বিমার টাকাও মিটিয়ে দেবে রাজ্য সরকার। তবে যতক্ষণ না তা মেটানো হচ্ছে, ততক্ষণ যেন কার্ড থাকা রোগীদের না ফেরানো হয়। একই সঙ্গে আরও বেশি সংখ্যক বেসরকারিউ হাসপাতাল যেন ওই বিমার আওতায় আসে। দ্রুত তাঁদের এনরোলমেন্ট করানোরও পরামর্শ দেওয়া হয়।

Comm Ad 2020-Valentine body

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Comm Ad 006 TBS

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 2020-LDC Egg

কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের  সমাপ্তি অনুষ্ঠান

কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের সমাপ্তি অনুষ্ঠান

#

#

#

#

Voting Poll (Ratio)

2020 New Ad HDFC 05

Editors Choice

Comm Ad 2020-LDC Momo