2020 New Ad HDFC 04

যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতির পদ ছাড়ার সিদ্ধান্ত সৌমিত্র খানের

Share Link:

যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতির পদ ছাড়ার সিদ্ধান্ত সৌমিত্র খানের

নিজস্ব প্রতিনিধি: বঙ্গ বিজেপিতে শুরু মুষল পর্ব। রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ যেভাবে তাঁর নিয়োগ করা জেলা সভাপতি ও জেলা কমিটিকে এক কলমের খোঁচায় বাতিল করে দিয়েছেন, তাতে বেজায় চটেছেন যুব মোর্চার সভাপতি তথা বিষ্ণুপুরের সাংসদ সৌমিত্র খান। এতটাই চটেছেন যে সংগঠনের রাজ্য সভাপতির দায়িত্ব থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। শনিবার সকালে নিজের সিদ্ধান্তের কথা সংগঠনের হোয়াটস অ্যাপ গ্রুপে জানিয়ে দিয়ে ওই গ্রুপ থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়েছেন তিনি।

বঙ্গ বিজেপিতে রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের বিরোধী কৈলাস বিজয়বর্গীয়-মুকুল রায়দের ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত বিষ্ণুপুরের সাংসদ সৌমিত্র খান। যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতি হিসেবে তাঁর নিয়োগ প্রথম থেকেই মেনে নিতে পারেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি। তাই রাজ্য কমিটি গঠন নিয়েই দিলীপ ঘোষের সঙ্গে সৌমিত্রের লড়াই শুরু হয়। যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতির নিয়োগ করা সহ-সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের তালিকা বাতিল করে দিয়েছিলেন দিলীপ ঘোষ। পরে অবশ্য বিজেপি রাজ্য সভাপতির বেশ কয়েকজন অনুগামীকে ঠাঁই দিয়ে কমিটি পুনর্গঠন করেন সৌমিত্র।

কিন্তু যুব মোর্চার জেলা সভাপতি হিসেবে মুকুল রায়-বাবুল সুপ্রিয়দের অনুগামীদের নিয়োগকে কেন্দ্র করে ফের দুজনের মধ্যে সঙ্ঘাত বাঁধে। শুক্রবার আচমকাই এক নির্দেশে যুব মোর্চার সব জেলা সভাপতি ও জেলা কমিটিকে বাতিল করে দেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। এক নির্দেশিকায় জানিয়ে দেন, আপাতত প্রতি জেলায় যুব মোর্চার দায়িত্ব সামলাবেন দলের জেলা সভাপতিরা।

আর বিজেপি রাজ্য সভাপতির ওই অপমান হজম করতে পারেননি যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতি সৌমিত্র খান। শনিবার সকালে সংগঠনের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপে আচমকাই এক মেসেজে পদত্যাগের কথা জানান তিনি। ওই হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজে যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতি লিখেছেন, ‘শুভ মহা অষ্টমী। সকলে ভাল থাকবেন। আপনাদের খুবই সহযোগিতা পেয়েছি। আমি চাই বিজেপিকে সরকারে আনতেই হবে। তাই হয়ত আমার অনেক ভুল ছিল, যা দলের প্রতি ক্ষতি হচ্ছিল। তাই আমি রিজাইন দেব। আর সকলে ভাল থাকবেন। যুব মোর্চা জিন্দাবাদ, বিজেপি জিন্দাবাদ, মোদিজি জিন্দাবাদ।’ মেসেজ পোস্ট করেই অবশ্য যুব মোর্চার অফিসিয়াল হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ লেফট করেছেন বিষ্ণুপুরের সাংসদ।

উল্লেখ্য, রাজ্য রাজনীতিতে এক নজির গড়েছিলেন সৌমিত্র। যিনিই একমাত্র ব্যক্তি যিনি রাজ্যের অন্যতম প্রধান তিন রাজনৈতিক দলের যুব সংগঠনের শীর্ষ পদে আসীন হয়েছিলেন। প্রথমে যুব কংগ্রেসের সভাপতি ছিলেন। পরে রাজনৈতিক ডিগবাজি খেয়ে তৃণমূলে যাওয়ার পরে ওই দলের যুব শাখার সভাপতি হন। ফের রাজনৈতিক ডিগবাজি খেয়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েই দলের যুব মোর্চার সভাপতির পদ বাগিয়ে নিয়েছিলেন।

 

Comm Ad 018 Kalna

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Comm Ad 008 Myra

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

2020 New Ad HDFC 05

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 2020-WB Tourism RC

Editors Choice

corona 02