Comm Ad 2020-Valentine body

চিকিৎসক ফোরামের বাধায় নো এন্ট্রি বহাল রাখলো হাইকোর্ট

Share Link:

চিকিৎসক ফোরামের বাধায় নো এন্ট্রি বহাল রাখলো হাইকোর্ট

নিজস্ব প্রতিনিধি: শেষ চেষ্টা করতেই রায় পুনর্বিবেচনার আর্জি জানানো হয়েছিল হাইকোর্টে। কিন্তু সেই রায় আর পরিবর্তীত হল না। কলকাতা হাইকোর্ট এদিন জানিয়ে দিল দর্শকদের মণ্ডপে ঢোকার ক্ষেত্রে কোনও ছাড় দেওয়া হবে না। মণ্ডপে ঢাকিরা প্রবেশ করতে পারলেও তাঁদের পড়তে হবে মাস্ক। চলবে না সিঁদুর খেলা, অঞ্জলি। তবে পুজো কমিটির সদস্যদের প্রবেশের ক্ষেত্রে ছাড় দিয়েছে হাইকোর্ট। বিচারপতিরা জানিয়েছেন বড় পুজোর ক্ষেত্রে ৬০জন আর ছোট পুজোর ক্ষেত্রে ১৫জন মণ্ডপে ঢুকতে পারবেন। ৩০০ বর্গ মিটারের কম জায়গা নিয়ে মণ্ডপ হলে তা ছোট পুজো হিসাবে চিহ্নিত হবে। কিন্তু বড় পুজোর ক্ষেত্রে একসঙ্গে ৪৫জন ও ছোট পুজোর ক্ষেত্রে একসঙ্গে ১০ জনের বেশি মণ্ডপে থাকা যাবে না। হাইকোর্টের এই রায়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছে মামলার সঙ্গে জড়িত হওয়া চিকিৎসকদের সংগঠন। তাঁরা রায় পরিবর্তনের বিরোধী ছিলেন। এমনকি তাঁরা একথাও জানিয়ে দিয়েছিলেন যে রায় পরিবর্তিত হলে তাঁরা রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে যাবেন। মহাপঞ্চমীর সকালে কার্যত পুজো মণ্ডপে দর্শকদের নো এন্ট্রি থাকবে কি থাকবে না, হাইকোর্টের রায় বদলাবে কী বদলাবে না এই সব কিছু নিয়েই বাংলা আপাতত কলকাতা হাইকোর্ট অভিমুখী ছিল। তবে এদিনের রায়ে সন্তোষ্টি না হওয়ায় ফোরাম ফর দুর্গোৎসব সুপ্রিম কোর্টে আপিল করতে পারে বলেও জানা গিয়েছে।

তৃতীয়াতেই কলকাতা হাইকোর্ট জানিয়ে দিয়েছে এবারে দর্শকশূণ্য অবস্থাতেই কাটবে রাজ্যের সব পুজোমণ্ডপ। সেই রায় কার্যত মানতে পারছেন না রাজ্যের একটা বড় সংখ্যার মানুষ। রায় নিয়ে অসন্তুষ্ঠ পুজো কমিটিগুলিও। সেই কারনেই রায় পুনর্বিবেচনার জন্য ফোরাম ফর দুর্গোৎসব আদালতমুখী হয়েছিল। উৎসব শুরুর মুখে এই নিষেধাজ্ঞা কার্যত রাজ্য সরকারের নির্দেশ ও কার্যকারিতার ওপর আঘাত বলেও অনেকে মনে করছেন। এই রায়ে কার্যত রাজ্যের অধিকার ক্ষুণ্ণ হয়েছে। কারণ পুজোর একমাস আগে রাজ্য সরকার পুজো সম্পর্কে সব রকমের বিধিনিষেধ জারি করেছিল। সে সব মেনেই পুজোর আয়োজন করা হচ্ছে। তা সত্ত্বেও আদালত কার্যত রাজ্যের সব নির্দেশকে খারিজ করে দিয়ে পুজো মণ্ডপে দর্শক তথা পাড়ার লোকদেরও নো এন্ট্রি ঝুলিয়ে দিয়েছে। আর এই কারনেই এই রায়কে চট করে কেউ মেনে নিতে পারছে না। ফোরামের আর্জি গতকালই হাইকোর্ট গ্রহণ করেছিল। কিন্তু রায় কার্যত এদিন অপরিবর্তিতই রেখে দিল আদালত। দর্শকশূণ্য হয়েই কাটবে এবার পুজো।  
 
রায় না বদলানোর অন্যতম কারন রাজ্যের চিকিৎসকদের সংগঠনের আপত্তি। তাঁদের অভিমত ভিড় হলেই কোভিড ছড়াবে। তাই ভিড় ঠেকাতে তাঁরা মণ্ডপে নো এন্ট্রি রাখার পক্ষেই সাওয়াল করেছেন। যদিও এই প্রশ্নও উঠছে যে শুধু মণ্ডপে নো এন্ট্রি বোর্ড ঝুলিয়ে দিলেও তা রাস্তায় ভিড় ঠেকাতে পারবে কিনা। একই সঙ্গে দেশের সমস্ত দেবালয় যখন খোলা রয়েছে, সেখানে মানুষের প্রবেশাধিকার বজায় থাকছে তখন পুজোর মণ্ডপে মানুষ প্রবেশ করলে কেন কোভিডে আক্রান্ত হবেন, সেই প্রশ্নও কিন্তু উঠছে! বস্তুত অনেকেই মনে করছেন হাইকোর্টের রায় ধর্মীয় স্বাধীনতার মৌলিক অধিকারকে ক্ষুণ্ণ করেছে। দেশজোড়া আনলক পর্ব চলবে, ভোট হবে, রাজনৈতিক মিটিং-মিছিল হবে, ট্রেন চলবে, বাস চলবে, শপিং মল খোলা থাকবে, বাজারহাট খোলা থাকবে আর শুধু মণ্ডপে মানুষের প্রবেশাধিকার বন্ধ থাকনে এটা আর যাই হোক সাম্যের অধিকার প্রতিষ্ঠা হয়নি। কার্যত এই সব বক্তব্য তুলে ধরেই ফোরাম ফর দুর্গোৎসব এদিনই সুপ্রিম কোর্টে আপিল করতে পারে বলে জানা গিয়েছে।  

corona 01

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Comm Ad 2020-WB Tourism RC

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 2020-himalaya RC

পূর্বস্থলী ১ নং ব্লকের দক্ষিণ শ্রীরামপুর বাজার স্যানিটাইজেশনে নামলেন বিধায়ক স্বপন দেবনাথ

পূর্বস্থলী ১ নং ব্লকের দক্ষিণ শ্রীরামপুর বাজার স্যানিটাইজেশনে নামলেন বিধায়ক স্বপন দেবনাথ

নির্বাচনের সময় থেকেই করোনা সচেতনতা প্রচারে জোর দিয়েছেন বিদায়ী মন্ত্রী

নির্বাচনের সময় থেকেই করোনা সচেতনতা প্রচারে জোর দিয়েছেন বিদায়ী মন্ত্রী

করোনা নিয়ে নিজের বিধানসভার একাধিক এলাকায় সচেতনতা প্রচার চালিয়েছেন স্বপন দেবনাথ

করোনা নিয়ে নিজের বিধানসভার একাধিক এলাকায় সচেতনতা প্রচার চালিয়েছেন স্বপন দেবনাথ

কোভিড বিধি মেনেই কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৬০ তম জন্মবার্ষিকী পালন করলেন স্বপন দেবনাথ

কোভিড বিধি মেনেই কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৬০ তম জন্মবার্ষিকী পালন করলেন স্বপন দেবনাথ

নিজের এলাকাতেই ২৫ শে বৈশাখ উদযাপন করেন রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী

নিজের এলাকাতেই ২৫ শে বৈশাখ উদযাপন করেন রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী

স্বামী করণ সিং গ্রুভারের সঙ্গে ছুটি কাটানোর ছবি পোস্ট করেছেন বিপাশা

স্বামী করণ সিং গ্রুভারের সঙ্গে ছুটি কাটানোর ছবি পোস্ট করেছেন বিপাশা

বিকিনিতে নিজের অনুরাগীদের মনে উষ্ণতা ছড়াচ্ছেন বিপাশা বসু

বিকিনিতে নিজের অনুরাগীদের মনে উষ্ণতা ছড়াচ্ছেন বিপাশা বসু

মলদ্বীপে খোশমেজাজে রয়েছেন বিপাশা

মলদ্বীপে খোশমেজাজে রয়েছেন বিপাশা

বিপাশার বিকিনি পরা ছবি দেখে বলাই যায় বয়স সংখ্যামাত্র

বিপাশার বিকিনি পরা ছবি দেখে বলাই যায় বয়স সংখ্যামাত্র

হাতে কাজ না থাকায় দাম্পত্য জীবন উপভোগ করছেন বঙ্গতনয়া

হাতে কাজ না থাকায় দাম্পত্য জীবন উপভোগ করছেন বঙ্গতনয়া

সরকারের হাত ধরে সল্টলেকের বুকে চালু হয়েছে প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্র। যেখানে মিলবে পোষ্যদের চিকিৎসা পরিষেবা।

সরকারের হাত ধরে সল্টলেকের বুকে চালু হয়েছে প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্র। যেখানে মিলবে পোষ্যদের চিকিৎসা পরিষেবা।

সল্টলেকের প্রাণী সম্পদ বিকাশ ভবন প্রাঙ্গণেই এই নতুন প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্রের এদিন উদ্বোধন করেছেন রাজ্যের প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ।

সল্টলেকের প্রাণী সম্পদ বিকাশ ভবন প্রাঙ্গণেই এই নতুন প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্রের এদিন উদ্বোধন করেছেন রাজ্যের প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ।

এদিনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ ও স্থানীয় বিধায়ক তথা রাজ্যের দমকলমন্ত্রী সুজিত বসু।

এদিনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ ও স্থানীয় বিধায়ক তথা রাজ্যের দমকলমন্ত্রী সুজিত বসু।

এই পশু স্বাস্থ্যকেন্দ্রে মিলবে ইসিজি, আল্ট্রাসোনোগ্রাফি, রক্ত সিরামের বিভিন্ন পরীক্ষা, পরজীবী সংক্রমণ সংক্রান্ত খুঁটিনাটি বিশ্লেষণ, আধুনিক শল্য চিকিৎসার যাবতীয় সুযোগসুবিধা।

এই পশু স্বাস্থ্যকেন্দ্রে মিলবে ইসিজি, আল্ট্রাসোনোগ্রাফি, রক্ত সিরামের বিভিন্ন পরীক্ষা, পরজীবী সংক্রমণ সংক্রান্ত খুঁটিনাটি বিশ্লেষণ, আধুনিক শল্য চিকিৎসার যাবতীয় সুযোগসুবিধা।

 আগামী দিনে এই স্বাস্থ্য কেন্দ্রে মিলবে পোষ্যদের চোখ, কান ও দাঁতের পরীক্ষা পরিষেবাও।

আগামী দিনে এই স্বাস্থ্য কেন্দ্রে মিলবে পোষ্যদের চোখ, কান ও দাঁতের পরীক্ষা পরিষেবাও।

প্রায় ১ কোটি টাকা ব্যায়ে এই নবনির্মিত পশু চিকিৎসালয় তৈরি করা হয়েছে।

প্রায় ১ কোটি টাকা ব্যায়ে এই নবনির্মিত পশু চিকিৎসালয় তৈরি করা হয়েছে।

সারা রাজ্যে প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের অধীনে ১০৪টি রাজ্য প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্র, ৮টি পলিক্লিনিক, ৩৪২টি ব্লক প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও ২৭২টি অতিরিক্ত ব্লক প্রাণী স্বাস্থ্য কেন্দ্র চালু থাকলো বাংলার বুকে।

সারা রাজ্যে প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের অধীনে ১০৪টি রাজ্য প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্র, ৮টি পলিক্লিনিক, ৩৪২টি ব্লক প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও ২৭২টি অতিরিক্ত ব্লক প্রাণী স্বাস্থ্য কেন্দ্র চালু থাকলো বাংলার বুকে।

সল্টলেক ও আশেপাশের এলাকার বাসিন্দাদের কাছে বিশেষ করে যাদের বাড়িতে ছোট পোষ্য থাকে তাঁদের ক্ষেত্রে অনেকটাই সমস্যার সমাধান হয়ে যেতে চলেছে এই নবনির্মীত প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি।

সল্টলেক ও আশেপাশের এলাকার বাসিন্দাদের কাছে বিশেষ করে যাদের বাড়িতে ছোট পোষ্য থাকে তাঁদের ক্ষেত্রে অনেকটাই সমস্যার সমাধান হয়ে যেতে চলেছে এই নবনির্মীত প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি।

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 026 BM
Comm Ad 2020-himalaya RC