Comm Ad 018 Kalna

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের হুমকি দিলীপের

Share Link:

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের হুমকি দিলীপের

নিজস্ব প্রতিনিধি: নিজস্ব প্রতিনিধি: যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে বিজেপি বিরোধী পড়ুয়াদের উপরে এবার সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের হুমকি দিলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। শুক্রবার দলের রাজ্য দফতরে সাংবাদিক বৈঠকে তিনি মাস্তানির সুরে বলেন, ‘পাকিস্তানে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক করে সেখানে থাকা জঙ্গি ঘাঁটি, শিবির গুঁড়িয়ে দিয়েছি। প্রয়োজন হলে, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়েও সার্জিক্যাল স্ট্রাইক করে কমিউনিস্টদের ঘাঁটি গুঁড়িয়ে দেব।’ এখানেই থামেননি তিনি। পাড়ার মাস্তানদের ঢংয়েই হুংকার ছেড়েছেন, ‘বাবুলের গায়ে যারা হাত দিয়েছে, তাদের হাত কি করে ভাঙতে হয় তা জানি। চাইলে দু’ঘণ্টার মধ্যে হাত ভেঙ্গে দিতে পারি। আমরা চুপ রয়েছি বলে যদি কেউ এটাকে আমাদের দুর্বলতা ভাবে, তাহলে সেটা তাদের ভুল। ওরা যে ভাষা বোঝে, সেই ভাষাতেই উত্তর দেওয়া হবে।’

বঙ্গ বিজেপির অন্দরের খোঁজখবর যাঁরা রাখেন, তাঁরা জানেন দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের সঙ্গে কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়র সম্পর্ক যথেষ্টই শীতল। কার্যত দু’জনের বাক্যালাপও নেই। তাই বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে টানা ছয় ঘণ্টা ধরে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে জনরোষের মুখে পড়া বাবুলকে নিয়ে কোনও প্রতিক্রিয়া দেননি দিলীপ ঘোষ। আর তা নিয়েই দলের অন্দরে প্রশ্ন উঠেছিল। শেষপর্যন্ত দলের সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহের কাছ থেকে নির্দেশ পেয়ে এদিন মুখ খোলেন বঙ্গ বিজেপি সভাপতি।

বাবুল কাণ্ড নিয়ে বিকেলে আনুষ্ঠানিকভাবে সাংবাদিক বৈঠক করেন দিলীপ ঘোষ। আর সেই বৈঠকে প্রথম থেকেই বেলাগাম মন্তব্য করতে থাকেন তিনি। বিক্ষোভরত পড়ুয়াদের নিশানা করতে গিয়ে বামপন্থী ছাত্র সংগঠন ও রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দাগেন বঙ্গ বিজেপি সভাপতি। তাঁর কথায়, ‘বাবুলের চুল ধরে যে টেনেছে, তার কুষ্ঠি-ঠিকুজি বের করেছি। ওই ছেলেটি পড়ুয়া নয়, বহিরাগত। আগে ওদের দেশবিরোধী বলতাম। এখন বলছি, ওরা সমাজবিরোধী। একজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে ৬ ঘণ্টা ধরে আটকে রাখা হল, এরপরেও কিছু মানুষ এদের সমর্থন করছেন। কোনও শুভবুদ্ধিসম্পন্ন মানুষ এই কাজ সমর্থন করতে পারেন না। যে বুদ্ধিজীবীরা এদের সমর্থন করছে, তাঁরা বুদ্ধিজীবী নয়, দুর্বুদ্ধিজীবী।’

রাজ্যপাল তথা দলের প্রাক্তন নেতা জগদীপ ধনকরের ভূমিকাকেও কুর্নিশ জানিয়েছেন দিলীপ ঘোষ। রাজ্যপালের বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে যাওয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। এদিন তৃণমূল মহাসচিবের মন্তব্যের সমালোচনা করে বঙ্গ বিজেপির সভাপতি বলেন, ‘আচার্য হিসেবে ক্যাম্পাসে যেতেই পারেন রাজ্যপাল। তার জন্য কারও অনুমতির প্রয়োজন নেই।’ বৃহস্পতিবার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে তাণ্ডবলীলা চালিয়েছিল গেরুয়া শিবিরের গুণ্ডারা। এদিন গেরুয়া সন্ত্রাসকারীদের পাশেই দাঁড়িয়েছেন দিলীপ ঘোষ। তাঁর কথায়, ‘ইউনিয়ন রুম ভেঙ্গে ঠিক করেছে। ইউনিয়ন রুম ভেঙ্গে গুঁড়িয়ে দেওয়া উচিত ছিল।’

2020 New Ad HDFC 04

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

2020 New Ad HDFC 05

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 023 MZP

নবান্নের কন্ট্রোলরুমে মুখ্যসচিবের সঙ্গে আলোচনায় মুখ্যমন্ত্রী।

নবান্নের কন্ট্রোলরুমে মুখ্যসচিবের সঙ্গে আলোচনায় মুখ্যমন্ত্রী।

বুধবার সারারাত নবান্নে থেকেই পরিস্থিতি পর্যালোচনা করবেন মুখ্যমন্ত্রী।

বুধবার সারারাত নবান্নে থেকেই পরিস্থিতি পর্যালোচনা করবেন মুখ্যমন্ত্রী।

মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন মুখ্যসচিব, ডিজি-সহ অন্য কর্তারা।

মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন মুখ্যসচিব, ডিজি-সহ অন্য কর্তারা।

মঙ্গলবারের পর বুধবার বিকেলেও শহরের বিভিন্ন জায়গায় যান মুখ্যমন্ত্রী।

মঙ্গলবারের পর বুধবার বিকেলেও শহরের বিভিন্ন জায়গায় যান মুখ্যমন্ত্রী।

তাঁর সঙ্গে ছিলেন কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা ও মেয়র ফিরহাদ হাকিম।

তাঁর সঙ্গে ছিলেন কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা ও মেয়র ফিরহাদ হাকিম।

এদিন খিদিরপুর, পার্ক সার্কাস, বালিগঞ্জ ফাঁড়ির মতো দক্ষিণ কলকাতার একাধিক জায়গায় যান।

এদিন খিদিরপুর, পার্ক সার্কাস, বালিগঞ্জ ফাঁড়ির মতো দক্ষিণ কলকাতার একাধিক জায়গায় যান।

এদিনও স্থানীয়দের লকডাউন মেনে চলার অনুরোধ করেন তিনি।

এদিনও স্থানীয়দের লকডাউন মেনে চলার অনুরোধ করেন তিনি।

এই নিয়ে পরপর দু'দিন শহরের বিভিন্ন জায়গায় গেলেন মুখ্যমন্ত্রী।

এই নিয়ে পরপর দু'দিন শহরের বিভিন্ন জায়গায় গেলেন মুখ্যমন্ত্রী।

তাঁর এই কাজকে তীব্র ভাষায় বিঁধেছেন বিরোধীরা।

তাঁর এই কাজকে তীব্র ভাষায় বিঁধেছেন বিরোধীরা।

পূবস্হলি দক্ষিণ বিধানসভার কালনা ১নং ব্লকের শাখাটি আদিবাসী পাড়ার বাহা পুজোর উৎসব

পূবস্হলি দক্ষিণ বিধানসভার কালনা ১নং ব্লকের শাখাটি আদিবাসী পাড়ার বাহা পুজোর উৎসব

সেখানেই যান মাননীয় মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ

সেখানেই যান মাননীয় মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ

গ্রামবাসীদের সঙ্গে কথা বলেন। জানতে চান সুবিধা-অসুবিধার কথা

গ্রামবাসীদের সঙ্গে কথা বলেন। জানতে চান সুবিধা-অসুবিধার কথা

পরে একাধিক প্রকল্পের উদ্বোধনও করেন মন্ত্রী

পরে একাধিক প্রকল্পের উদ্বোধনও করেন মন্ত্রী

জনগণের সঙ্গে বসে অনুষ্ঠানও দেখেন মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ

জনগণের সঙ্গে বসে অনুষ্ঠানও দেখেন মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ

প্রায় ঘণ্টাখানেক এই অনুষ্ঠানেই ছিলেন তিনি

প্রায় ঘণ্টাখানেক এই অনুষ্ঠানেই ছিলেন তিনি

#

#

Voting Poll (Ratio)

2020 New Ad HDFC 05

Editors Choice

Comm Ad 023 MZP