Comm Ad 2020-WB Tourism body

হাইকোর্টের রায়ে ঘরে বাইরে প্রবল চাপে বিজেপি! অস্বস্তিতে বামেরাও

Share Link:

হাইকোর্টের রায়ে ঘরে বাইরে প্রবল চাপে বিজেপি! অস্বস্তিতে বামেরাও

নিজস্ব প্রতিনিধি: মাত্র ২৪ ঘন্টার ফারাক। তাতেই ঘুরে গিয়েছে পুরো খেলা। সোমবার রাত অবধি যারা উচ্ছ্বাস করেছে মঙ্গলবার দিনভর তাঁদের মুখে কুলুপ। কারন খেলা ঘুরে গিয়েছে। বাংলা জুড়ে তীব্র রোষানল পাক খাছে আমজনতার অন্দরে। এবছরের মতো পুজো কার্যত শেষ হয়ে গিয়েছে। তারওপর হাইকোর্টের রায়কে ঐতিহাসিক অ্যাখা দিয়ে একশ্রেনীর বিজেপি নেতাদের কাছা খুলে উচ্ছ্বাস বাঙালি ভালো চোখে নেয়নি। যে দুর্গাপুজো বাঙালির নিজস্ব পরিচয়, তার কৃষ্টি, তার সংস্কৃতি, তার সভ্যতা তাকে বধ করার খেলায় নামা বিজেপিকে আর ছেড়ে কথা বলতে রাজি নন বাংলার কেউ। শুধু এই বাংলাই নয়, বাংলার বাইরেও যারা প্রাবসে রয়েছেন তাঁরাও গর্জে উঠেছেন বিজেপির এই উচ্ছ্বাস ঘিরে। বাঙালি বিদ্বেষী বিজেপি এবার ২১শের নির্বাচনেই হাড়ে হাড়ে টের পাবে জনমত কাকে বলে।
 
সোমবার রাতের পর সময় যত গড়িয়েছে সোশ্যাল মিডিয়া ততই উপচে পড়েছে বিজেপি বিরোধী পোস্টে। আরও লক্ষ্যণীয় যে বিজেপির সোশ্যাল মিডিয়া টিম সর্বক্ষন তৃণমূল ও মমতা বিরোধী পোস্টে অভ্যস্থ তাঁরা আজ দিনভর নীরব। কার্যত শ্মশানের নিরাবতা বিরাজ করছে সেখানে। কোনও বিজেপি নেতা বা বিজেপির কোনও সমর্থক গ্রুপ থেকে এদিন পুজো নিয়ে কোনও পোস্টই হয়নি। রাজ্য বিজেপি সূত্রে জানা গিয়েছে, পুজো বন্ধ হয়ে যাওয়ায় দলের অর্ধেকের বেশি নেতা প্রচন্ড রকম ক্ষুব্ধ। তাঁরাও আরও ক্ষুব্ধ মুকুল, সায়ন্তন ও জয়প্রকাশের কথাবার্তায়। হাইকোর্টের রায় যে এই রাজ্যে বিজেপির প্রভাব প্রচন্ডভাবেই ধাক্কা দিয়েছে তা বুঝতে পেরে এবার ড্যামেজ কন্ট্রোলে নামতে চান দিলীপ ঘোষেরা। এখন তাই শুরু হয়েছে আইনি আলোচনা যদি সুপ্রিম কোর্টে গিয়ে হাইকোর্টের রায়ের ওপর কোনও স্থগিতাদেশ পাওয়া যায়। সূত্র মারফত জানা গিয়েছে, এই নিয়ে বিজেপির রাজ্য নেতৃত্বের সঙ্গে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের বেশ কয়েকদফায় আলোচনা হয়েছে। সুপ্রিম কোর্টে এই নিয়ে কোনও আবেদন জমা দেওয়া যায় কিনা তা নিয়েও চিন্তাভাবনা চলছে। আসলে বিজেপির কিছু নেতা বুঝেছেন এই পরিস্থিত কাটিয়ে উঠতে না পারলে বাঙালি ছেড়ে কথা বলবে না। ভোটে ভরাডুবি হতে বাধ্য।
 
এদিকে একই ভাবে চরম চাপে পড়ে গিয়েছে বামেরা। দলের অন্দরেই এখন দাবি উঠেছে বিকাশরঞ্জনকে শোকজ ও বহিষ্কার করার। কেন বিকাশবাবু আদালতকে ভুল পথে চালিত করলেন তা নিয়ে রীতিমত ক্ষুব্ধ রাজ্য বাম নেতৃত্বের একট বড় অংশ। দলের স্ট্যান্ডিং বিধায়কেরা অনেকেই ক্ষুব্ধ এই কারনে যে বিকাশবাবুর এই ভুমিকার জন্য মানুষ বামেদের ছেড়ে কথা বলবে না। কংগ্রেসের সঙ্গে জোটে গেলেও মানুষের সমর্থন পাওয়া যাবে না। বাংলার মানুষ যে রাজনৈতিক দলেরই সমর্থক হোক না কেন, প্রত্যেকের জীবনে পুজোর কোনও না কোনও গুরুত্ব আছে। সেই বাঙালির জীবন থেকে এই করোনাকালে পুজো কেড়ে নেওয়া চূড়ান্ত অপরাধ ছাড়া আর কিছুই নয়। কেরলে ওনাম হলে বাংলায় দুর্গাপুজো হবে না কেন! আলিমুদ্দিন সূত্রে এটাও জানা গিয়েছে জোটপন্থী বেশ কিছু কংগ্রেস নেতা এটাও বাম শিবিরকে জানিয়ে দিয়েছেন একান্তই পুজো নিয়ে হাইকোর্ট নতুন করে ইতিবাচক কোনও রায় না দিলে বা পুজোর পরেও আমজনতার মধ্যে বিকাশরঞ্জন তথা বামেদের বিরুদ্ধে রোষানোল না কমলে কংগ্রেস বাধ্য হবে একা নির্বাচন লড়তে। কেননা রোষানল অব্যাহত থাকলে তার জের কংগ্রেসকেও পেতে হতে পারে যদি বামেদের সঙ্গে তাঁদের জোট হয়। কার্যত মমতা আর তৃণমূলকে জব্ধ করতে গিয়ে এখন কিবা বাম কিবা রাম দুই পক্ষই নাজেহাল দশায় পড়েছে। তাঁরা ভেবে পাচ্ছে না শ্যাম রাখবে না কূল রাখবে।

Comm Ad 2020-WB Tourism body

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

2020 New Ad HDFC 05

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 2020-LDC Momo

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 006 TBS

Editors Choice

Comm Ad 026 BM