Comm Ad 2020-LDC Haringhata Meet

ছেলে হোম ডেলিভারির ব্যবসা করছে! অহংবোধে ধাক্কায় আত্মঘাতী বাবা-মা

Share Link:

ছেলে হোম ডেলিভারির ব্যবসা করছে! অহংবোধে ধাক্কায় আত্মঘাতী বাবা-মা

নিজস্ব প্রতিনিধি: ছেলে যদি খারাপ হতো তাহলে নয় মানা যেত, ছেলে যদি দুশ্চরিত্রের হতো তাহলেও নয় মানা যেত। ছেলে যদি অত্যাচার অপমান করতো তাহলেও নয় মানা যেত। কিন্তু ছেলের একমাত্র অপরাধ সে নিজের পায়ে দাঁড়াতে ব্যবসা শুরু করেছে। এই ঘটনায় যদি বাবা-মার অহংবোধে ধাক্কা লাগে তাহলে তাঁদেরই তো মানসিক স্থিতাবস্থা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে বাধ্য। তাই প্রশ্ন উঠছেও, কিন্তু যাদের নিয়ে প্রশ্ন উঠছে তাঁরা তখন সব ধরা ছোঁয়ার বাইরে। কারন তাঁরা বেছে নিয়েছেন স্বেচ্ছামৃত্যু। কার্যত আত্মঘাতী হয়েছেন তাঁরা। এর এর একমাত্র কারন এম এ পাশ করা ছেলে চাকরি না পেয়ে নিজের পায়ে দাঁড়াতে হোম ডেলেভারির ব্যবসা শুরু করেছে। চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে হুগলি জেলার কোন্ননগর পুরসভা এলাকায়।
 
জানা গিয়েছে, রবি সকালে কোন্নগরের এস সি চ্যাটার্জি স্ট্রিটে একটি বাড়ি থেকে উদ্ধার হয় এক বৃদ্ধ দম্পতির ঝুলন্ত দেহ। দীপক সরকার ও ভবানী সরকার নামে ওই দম্পতি অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মচারী। তাঁদের একমাত্র ছেলে দিব্যেন্দু সরকার এম এ পাশ করেও কোনও চাকরি পায়নি। তাউ নিজের পায়ে দাঁড়াতে হোম ডেলিভারির ব্যবসা শুরু করেছেন সম্প্রতি। এদিন সকালে দিব্যেন্দুই সবার আগে তাঁদের দোতলা বাড়ির বারান্দায় মেয়ের দেহ ও ঘরে বাবার দেহ ঝুলতে দেখে পুলিশকে খবর দেন। পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে দেহ দু’টি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়। প্রাথমিক ভাবে পুলিশের অনুমান মানসিক অবসাদের জন্যই এই ঘটনা ঘটেছে। তবে এর পিছনে অন্য কোনও কারন আছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।
 
পাড়াপ্রতিবেশী সূত্রে জানা গিয়েছে, সরকারি চাকরি করার সূত্রে দীপক আর ভবানী কার্যত ধরাকে সরা জ্ঞান করেই চলে এসেছেন বরাবর। সেভাবে পাড়ার কারোর সঙ্গে মিশতো না। পাড়ার যারা বেকার বা সেভাবে রোজগেরে নয় তাঁদের সঙ্গে কার্যত কোনও কথাবার্তাই বলতো না, নিজেদের ছেলেকে মিশতেও দিত না। দিব্যেন্দু কিন্তু লেখাপড়ায় ভাল ছিলেন। তবে মাস্টার্স করেও চাকরি পাননি। পরবর্তী কালে পর্যটন ব্যবসার সঙ্গে যুক্ত হলেও লকডাউনের জেরে সেই ব্যবসাও ধাক্কা খায়। এর পর বাড়ি বাড়ি খাবার দেওয়ার ব্যবসা শুরু করেন দিব্যেন্দু। কিন্তু তাতেও তেমন পসার জমেনি। আবার এই হোম ডেলিভারির ব্যবসা নিয়ে আপত্তি ছিল দীপক ও ভবানীর। আর সেই জায়গা থেকেঅই ছেলের ভবিষ্যতের কথা ভেবে দীপক ও ভবানী মানসিক অবসাদগ্রস্ত হয়ে পড়েছিলেন বলেই মনে অনুমানঅপুলিশ তথা প্রতিবেশীদের। তাঁদের প্রতিবেশী ঋষিকেশ চট্টোপাধ্যায় এদিন এই ঘটনার জেরে জানান, ‘দিব্যেন্দু উচ্চশিক্ষিত। হোম ডেলিভারির ব্যবসা শুরু করেছিল। তাতে হয়তো ওর বাবা, মায়ের অহংবোধে আঘাত লেগেছিল। আর তাতেই এই ঘটনা। এতে ওর অন্তত কোনও অপরাধ আমি তো দেখতে পাচ্ছি না।’

Comm Ad 018 Kalna

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Comm Ad 2020-LDC Egg

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 008 Myra

কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের  সমাপ্তি অনুষ্ঠান

কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের সমাপ্তি অনুষ্ঠান

#

#

#

#

Voting Poll (Ratio)

corona 02

Editors Choice

Comm Ad 008 Myra