Comm Ad 2020-LDC epic

ছটে সসম্মানে উত্তীর্ণ কলকাতা! অন্য উৎসবের সাক্ষী থাকলো তিলোত্তমা

Share Link:

ছটে সসম্মানে উত্তীর্ণ কলকাতা! অন্য উৎসবের সাক্ষী থাকলো তিলোত্তমা

নিজস্ব প্রতিনিধি: লেটার মার্কস নিয়েই পাশ করে গেল কলকাতা। কোভিড আবহে ছট পুজোতে সম্পূর্ণ ভিন্ন ছবি ধরা পড়লো কলকাতার বুকে। আর এই স্মৃতি দীর্ঘদিন থেকে যাবে মানুষের স্মৃতির কোঠায়। বাজি ছাড়া, বাজনা ছাড়া, ভিড় ছাড়া এ যেন এক নতুন ছট। হাইকোর্টের রায়, পুলিশের কড়াকড়ি, রাজ্য সরকারের লাগাতার সচেতনমূলক প্রচার এই তিনের যুগলবন্দীতেই এহেন সাফল্য উঠে এসেছে বলে মনে করছেন সকলেই। সেই সঙ্গে মানুষ যে সচেতন হয়েছেন সেই ছবিও ধরা পড়ছে। আর সব থেকে খুশি অবশ্যই পরিবেশবিদরা। কারন এই দিনটাত জন্যই তাঁরা লড়াই চালিয়ে আসছিলেন দিনের পর দিন ধরে। ছোটাছুটি করেছেন জাতীয় পরিবেশ আদালত থেকে হাইকোর্ট মায় সুপ্রিম কোর্টেও। তাই আজ তাঁদের জয়ের দিন।

হাইকোর্টের রায়ের পরেও পরিবেশবিদ থেকে আমজনতার একতা বড় অংশই সন্দিহান ছিল যে ছটপুজো আদালতের রায় ও কোভিড বিধি মেনে পালিত হবে কিনা তা নিয়ে। রায় না মানা বা কোভিড বিধি না মানার প্রবণতা যে একদম ছিল না তা নয়। তবে প্রশাসন ও পুলিশের কড়াকড়ি সেই সঙ্গে সচেতনার জন্য রাজ্য প্রশাসনের তরফে লাগাতার প্রচার এবারের ছট পুজোকে ব্যাতিক্রমী ভাবেই উৎরে দিয়েছে। শুক্রবার বিকালে তো বটেই, শনিবার ভোরেও সেভাবে বিধি ভঙ্গনের ছবি কোথাও সেভাবে ধরা পড়েনি। রবীন্দ্র সরোবর ও সুভাষ সরোবরে যেমন কোনও ছট পুজো হয়নি তেমনি বাজেনি তীব্রস্বরে ডিজে, ব্যান্ডপার্টি, তাসাপার্টি। সেভাবে শোনা যায়নি বাজির শব্দও। রাস্তায় চোখে পড়েনি হাজার হাজার মানুষের স্রোত। গঙ্গার ঘাটগুলিতেও সেভাবে ভিড় চোখে পড়েনি। কার্যত আদালতের রায় ও কোভিডের আবহে মানুষও যে সচেতন হয়েছেন সেই ছবিও কিন্তু এইসব দৃশ্যের মাধ্যমে বেশ বোঝা যাচ্ছে।

কোভিড আবহে আদালতের রায় বজায় রেখে মানুষ যাতে ছট পুজো করতে পারে তার জন্য প্রথম থেকেই তৎপর হয়েছিল রাজ্য সরকার ও কলকাতা পুরনিগম। নতুন করে জলাশয় তৈরি করাই হোক কি অস্থায়ো ঘাট নির্মাণ সব দিকেই নজর ছিল রাজ্য সরকার ও কলকাতা পুরনিগমের। সেই সঙ্গে জোর দেওয়া হয়েছিল বাড়িতে বসেই ছট পুজো পালন করার জন্য। তার জেরে দেখা গিয়েছে কলকাতা পুরনিগম, কেএমডিএ ও রাজ্য সরকারের তৈরি করে দেওয়া অস্থায়ী ঘাটগুলিতে, অস্থায়ী জলাশয়ে ভিড় জমিয়েছেন ছট পুজোর ভক্তেরা। শুক্রবার বিকাল বা শনিবার ভোরে যাতে কেউ কোনও ভাবেই রবীন্দ্র সরোবর বা সুভাষ সরোবরে ঢুকতে না পারে তার জন্য এই দুই জায়গাতেই কড়া পুলিশি নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছিল যা এদিন বিকাল পর্যন্ত থাকবে। রবীন্দ্র সরোবরের গেটে তাই ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে তালা। বাঁশ দিয়ে ব্যারিকেড তৈরি করে ঘিরে রাখা হয়েছে প্রত্যেকটি গেট। সেখানে বিকাল পর্যন্ত মোতায়েন থাকছে পুলিশ। সুভাষ সরোবরের পাশের রাস্তাতেও ঢুকতে দেওয়া হয়নি কাউকে। বাঁশের ব্যারিকেড তৈরি করে গাড়ি অথবা লোকজনের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। সেখানেও মোতায়েন রয়েছে পুলিশ। গতকাল রবীন্দ্রসরোবরের ৩ নম্বর গেটের কাছে বিক্ষোভ হলেও গোটা পরিস্থিতি শান্তিপূর্ণ ভাবে মোকাবিলা করেছে পুলিশ। শুক্রবার বিকালের পাশাপাশি শনিবার সকালেও তাই শহরের এই দুই বড় জলাধারে পুণ্যার্থীর জমায়েত  চোখে পড়েনি।

Comm Ad 005 TBS

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Comm Ad 2020-LDC Egg

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 2020-himalaya RC

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 2020-LDC Egg

Editors Choice

Comm Ad 008 Myra