Comm Ad 005 TBS

গুরুংয়ের বিরুদ্ধে কোনও মামলাই লঘু হচ্ছে না! আদালতেই আস্থা রাজ্যের

Share Link:

গুরুংয়ের বিরুদ্ধে কোনও মামলাই লঘু হচ্ছে না! আদালতেই আস্থা রাজ্যের

নিজস্ব প্রতিনিধি: বিরোধীরা সমালোচনা করছে, দলের সমর্থকদের মধ্যেও প্রশ্ন উঠছে। কিন্তু কেউই একদমই হেলায় উড়িয়ে দিতে পারছেন না। কেউ স্বীকার করুক বা না করুক, গুরুংয়ের পাল্টিবাজিতে এখন সব থেকে বেশি অস্বস্তিতে পড়েছে বিজেপি। একে তো ঘটনাটা এমন সময় ঘটেছে যখন দেশে এনডিএ ছাড়ছে একের পর এক শরিক দল, তারওপর গুরুংয়ের হাতছাড়া হওয়ার অর্থ আগামী বিধানসভা নির্বাচনে ৩টি জেলার ১৮টি আসন হাতছাড়া হওয়া। তারওপর গুরুং যেভাবে মোদি আর অমিতকে কাঠগড়ায় তুলে মমতার প্রশংসা করেছেন তাতেও অস্বস্তিতে পড়েছে বিজেপি। তবে কেন গুরুংয়ের সঙ্গে হাত মেলালো তৃণমূল তা নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় কিছুটা হলেও অস্বস্তিতে রয়েছে রাজ্যের শাসক শিবিরও। তবে তাঁদের অভিমত, গুরুংয়ের বিরুদ্ধে কোনও মামলাই লঘু করা হচ্ছে না, প্রত্যাহার করা হচ্ছেও না। আদালত এই বিষয়ে যা সিদ্ধান্ত নেবে সেটাই চূড়ান্ত হবে।

কলকাতায় সাংবাদিক বৈঠক করার ছবি ইতিমধ্যেই দেখে নিয়েছেন তামাম পাহাড়বাসী। তাঁরা এটাও বুঝতে পারছেন খুব শীঘ্রই পাহাড়ে ফিরতে চলেছেন এই মোর্চা নেতা। তার জেরে পাহাড়ের বাসিন্দা থেকে আমজনতা সকলেরই একটাই প্রশ্ন, সেই যদি রাজ্য সরকার বা তৃণমূলের সঙ্গে সমঝোতা করলেন বিমল তাহলে ২০১৭ সালে ওইরকম অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি তিনি তৈরি করলেন কেন? কী পেলেন তিনি ওইরকম একটা পরিস্থিতি তৈরি করে। টানা সাড়ে তিন মাসের বনধ, ১৭জন মানুষের জীবনহানি, পুলিশ খুন, সরকারি সম্পত্তির ভাঙচুর, একাধিক সরকারি ও বেসরকারি সম্পত্তিতে অগ্নিসংযোগ! আর এর সবকিছুর নিট রেজাল্ট কী, না জিরো। স্বাভাবিক ভাবেই অনেকেই এখন মনে করছেন বিমল গুরুং বা রোশন গিরিরা যেদিনই পাহাড়ে ফিরুন না কেন তাঁদের প্রশ্নের মুখে পড়তেই হবে। সাংবাদিক সম্মেলনে তাঁরা মুখে যতই বলুন না কেন, ‘আমরা রাষ্ট্রদ্রোহী নই, প্রয়োজন হলে জেলে যাব’, সাধারন ভুক্তভোগী মানুষজন কিন্তু এত সহজে ছেড়ে কথা বলবেন না।

তবে এটাও মোটামুটি পরিস্কার যে জিটিএ-তে বিনয় তামাং ও অনিল থাপা এখন ক্ষমতার ভরকেন্দ্রে রয়ে গেলেও পাহাড়ে তাঁদের আর কোনও কর্তৃত্ব থাকবে না যদি না তাঁরা আবার পাল্টা বিজেপির সঙ্গে হাত না মেলান। গুরুং পাহাড়ে ফিরলে মোর্চা নেতারাও আবার সব এক ছাতার তলাতেও চলে আসবেন। এমনকি যারা বিজেপিমুখী হয়েছিলেন তাঁরাও ফিরে আসতে পারেন। সেক্ষেত্রে রাজ্যের তরফে হয়তো একটা সমঝোতা সূত্র বার হয়ে আসতে পারে গুরুংপন্থী মোর্চা নেতাদের সঙ্গে তামাংপন্থী মোর্চা নেতাদের। তবে রাজ্য সরকারের পাশাপাশি তৃণমূলের তরফে এটা পরিস্কার করে দেওয়া হয়েছে যে, গুরুং রাজনৈতিক ভাবে তৃণমূলকে সমর্থনা জানালেও তাঁর বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া ১৩৮টি মামলার একটিও প্রত্যাহার করা হচ্ছে না। কোনও মামলা লঘুও হচ্ছে না। এমনকি পুলিশকর্মী অমিতাভ মালিকের খুনের মামলাও যেমন চলছিল তেমনই চলবে। গুরুংয়ের সঙ্গে রাজ্যের শাসকদলের যোগাযোগ হওয়ায় বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠেছিল এই রাজনৈতিক যোগাযোগের দরুন গুরুং কী সব অপরাধ থেকে ছাড় পেয়ে যাবেন! সুবিচার পাওয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অমিতাভ মালিকের বাবা-মাও। তার জেরে এবার রাজ্য সরকার ও তৃণমূল পরিস্কার করে দিয়েছে কোনও মামলাই প্রত্যাহার হচ্ছে না গুরুংয়ের বিরুদ্ধে। একই সঙ্গে সরাসরি জোটও হয়তো হবে না তৃণমূল ও মোর্চার সঙ্গে। তৃণমূল প্রার্থীদের সমর্থন দেওয়ার পথে হাঁটবেন গুরুং-গিরিরা।

Comm Ad 2020-LDC epic

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

2020 New Ad HDFC 05

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 2020-himalaya RC

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 008 Myra

Editors Choice

Comm Ad 2020-himalaya RC