corona 01

মন্ত্রীত্ব থেকে ইস্তফা শুভেন্দু অধিকারীর, ছাড়লেন সরকারি নিরাপত্তাও

Share Link:

মন্ত্রীত্ব থেকে ইস্তফা শুভেন্দু অধিকারীর, ছাড়লেন সরকারি নিরাপত্তাও

নিজস্ব প্রতিনিধি: গতকালই নিজে থেকে জননেতা সরে গিয়েছিলেন হুগলি রিভার ব্রিজ কমিশনের চেয়ারম্যানের পদ থেকে। আর এদিন সকালেই তিনি ছেড়ে দিলেন রাজ্যের মন্ত্রীত্ব আর সরকারি নিরাপত্তা। গতকাল এইচআরবিসি থেকে সরে আসার পরে পরেই রাজ্য জুড়ে জল্পনা ছড়িয়েছিল জননেতার শাসল শিবির ছাড়ার প্রক্রিয়া শুরু হল। এদিন মন্ত্রীর পদ থেকে তিনি ইস্তফা দেওয়ার পাশা পাশি রাজ্য সরকারের নিরাপত্তা ছেড়ে দেওয়ায় সেই জল্পনা আরও গতি পেয়ে গেল। মনে করা হচ্ছে এভাবেই এক একে করে তৃণমূলের সঙ্গে সব সম্পর্ক ছিন্ন করে ভিন্ন কোনও পথে পা বাড়াবেন শুভেন্দু অধিকারী। তবে নন্দীগ্রামের গণআন্দোলনের গণনেতা ঠিক কোন দলে যোগদান করতে চলেছেন বা নতুন কোনও দল তৈরি করবেন কিনা তা নিয়ে এখনও ধোঁয়াশা রয়ে গিয়েছে। ফলে কিছুটা হলেও দোলাচলে র‍য়েছেন তাঁর অনুগামীরাও।   

গত বুধবার বাঁকুড়ার শুনুকপাহাড়ির দলীয় সভামঞ্চ থেকেই তৃণমূলসুপ্রিমো তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নাম না করেই বেশ ইঙ্গিতবাহী বার্তা দল, দলের নেতাকর্মী এবং দলের বিক্ষুব্ধ নেতাদের দিয়েছিলেন। সেইদিনই তিনি জানিয়ে দেন, গোটা রাজ্যে সব বিধানসভা কেন্দ্রে, সব লোকসভাকেন্দ্রে, সব জেলায়, সব ব্লকে, সব গ্রামে এমনকি সব শহরেও তিনিই দলের একমাত্র পর্যবেক্ষক। সেই মন্তব্য থেকেই এটা পরিষ্কার হয়ে গিয়েছিল তৃণমূলে এখনই আর পর্যবেক্ষক পদ ফিরে আসছে না। তাই শুভেন্দু অধিকারীও আর পর্যবেক্ষকের পদ ফিরে পাবেন না। কার্যত রাজ্যের অভিজ্ঞ রাজনৈতিক বিশারদদের দাবি ছিল বিসর্জনের বাজনা সেদিনই বেজে গিয়েছিল। দলনেত্রীর ঘোষণা যে শুভেন্দু অধিকারী আর মুখ বুজে মেনে নেবেন না সেটা সেদিনই বোঝা গিয়েছিল। দুই তরফের বিচ্ছেদ কার্যত সময়ের অপেক্ষা হয়ে দাঁড়ায় সেই মুহুর্ত থেকেই।  



গতকালই শুভেন্দু নিজে থেকেই সরে দাঁড়িয়েছেন এইচআরবিসি’র চেয়ারম্যানের পদ থেকে। রাতারাতি সেই পদ চলে সাংসদ তথা আইনজীবি কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাতে। তখন থেকেই জল্পনা ছড়িয়েছিল যে কোনও মুহুর্তে তিনি রাজ্যের মন্ত্রীসভা থেকেও ইস্তফা দিতে পারেন। এদিন সেটাই হল বেলার দিকে। ফ্যাক্স করে মুখ্যমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠিয়ে দিলেন নিজের ইস্তফাপত্র। একই সঙ্গে এদিনই তিনি ছেড়ে দিচ্ছেন হলদিয়া ডেভেলপমেন্ট বোর্ডের চেয়ারম্যানের পদও। তৃণমূল শিবিরে শোনা যাচ্ছে শুভেন্দুর হাতে থাকা দফতর যেতে পারে সৌমেন মহাপাত্রের কাছে। একই সঙ্গে শোনা যাচ্ছে সাংসদ পদ থেকে ইস্তফা দিতে পারেন দিব্যেন্দু অধিকারীও। তবে এখনও পর্যন্ত এই নিয়ে সরকারি স্তরে কিছু ঘোষণা করা হয়নি। তবে শুভেন্দুর অনুগামীদের মধ্যে এখন বেশ স্পষ্ট বিভাজন দেখা দিয়েছে। একটি পক্ষ তাঁর সমর্থনেই থাকছে এবং তিনি যদি বিজেপিতেও যোগদান করেন সেই ক্ষেত্রেও তাঁর পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছে। কিন্তু অপর পক্ষ তাতে নারাজ। তাঁরা চান রাজ্য বিধানসভা নির্বাচনের আগে বিজেপির হাত শক্ত না করতে। এরা তৃণমূলেই থেকে যেতে চান। তাই এটা পরিষ্কার শুভেন্দু তৃণমূল ছাড়লেও তাঁর সব অনুগামী তাঁর সঙ্গে বিজেপির পথে পা বাড়াবেন না। এদিকে শুভেন্দুর ঘনিষ্ট মহল সূত্রে জানা গিয়েছে এদিন কলকাতায় এসে একটি সাংবাদিক বৈঠক করতে পারেন এই জননেতা। সেখানেই তাঁর অবস্থান সম্পর্কে সব কিছু স্পষ্ট করে দিতে পারেন।

Comm Ad 018 Kalna

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Comm Ad 2020-WBSEDCL RC

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 2020-WBSEDCL RC

কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের  সমাপ্তি অনুষ্ঠান

কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের সমাপ্তি অনুষ্ঠান

#

#

#

#

Voting Poll (Ratio)

2020 New Ad HDFC 05
2020 New Ad HDFC 05