corona 01

ঐত্রী দে মামলায় দোষী সাব্যস্ত আমরি! দিতে হবে ১০ লক্ষের ক্ষতিপূরণ

Share Link:

ঐত্রী দে মামলায় দোষী সাব্যস্ত আমরি! দিতে হবে ১০ লক্ষের ক্ষতিপূরণ

নিজস্ব প্রতিনিধি: সন্তান হারানোর দুঃখ কোনও মাই ভুলতে পারেন না। কিছু কিছু ক্ষেত্রে তাঁরা যে বাঘিনীর মতো শত্রুপক্ষকে সমুচিত শিক্ষা দেওয়ার মতো পদক্ষেপ নেন সেটাও জানা আছে সকলের। এবার সেটাই ঘটতে দেখা গেল ঐত্রী দে মৃত্যু মামলার ক্ষেত্রে। তিন বছর আগে কার্যত গোটা রাজ্য জুড়ে তোলপাড় শুরু হয়ে গিয়েছিল মাত্র আড়াই বছরের শিশুকন্যা ঐত্রী দে মৃত্যুর ঘটনায়। কারন তাঁর মা শম্পা দে’র অভিযোগ ছিল হাসপাতালের চিকিৎসার গাফিলতিতেই মারা গিয়েছে ঐত্রী। আর যে সে হাসপাতালের বিরুদ্ধে সেই অভিযোগ ওঠেনি। অভিযোগ উঠেছিল আমরি মুকুন্দপুর হাসপাতালের বিরুদ্ধে। সেই ঘটনায় মঙ্গলবার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকেই দোষী হিসাবে কাঠগড়ায় তুলে দিল রাজ্যের হেলথ কমিশন। শুধু তাই নয়, শম্পা দে’র হাতে ১০ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ তুলে দেওয়ারও নির্দেশ দিয়েছে কমিশন। তবে এই রায়ের বিরুদ্ধে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ উচ্চতর আদালতে আপিল করবে এমনটাই শোনা যাচ্ছে।
 
২০১৭ সালের ১৫ জানুয়ারি মুকুন্দপুরের আমরি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিল ঐত্রী দে নামের বছর আড়াইয়ের ওই শিশুকন্যা। জ্বরের সঙ্গে সঙ্গে তাঁর শ্বাসকষ্ট জনিত কিছু সমস্যাও ছিল। এর ঠিক দুই দিন বাদেই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থাতেই মারা যায় ঐত্রী। এরপরই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে চিকিৎসার গাফিলতির অভি্যোগ তোলেন ঐত্রীর মা শম্পা দে। সেই অভিযোগ তোলার পরই একের পর এক বিস্ফোরক তথ্য বেড়িয়ে আসতে থাকে এই হাসপাতাল সম্পর্কে। এমনকি ওই হাসপাতালের এক মহিলা আধিকারিকের গুন্ডার মতো আচরণও রাজ্যবাসীকে চমকে দিয়েছিল। এমনকি যে নার্সের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছিল ওই শিশুকন্যাকে ভুল ওষুধ দেওয়ার সেই শ্রুতি প্রজ্ঞা প্রিয়দর্শিনী নিজেই স্বীকার করেছিল তাঁর নার্সিংয়ের কোনও সার্টিফিকেটই নেই। পরীক্ষা দেওয়ার পরেই তিনি আমরিতে কাজে যোগ দেন। ফলে তিনি আদৌ নার্সিং পাশ করেছেন কিনা, সেটাই প্রশ্ন হয়ে দেখা দিয়েছিল।
 
ওই ঘটনার পর ঐত্রীর দেহ ময়নাতদন্তও করা হয়। আর সেখানেই বার হয়ে আসে এই একরত্তি শিশুকন্যার মৃত্যুর কারন। ঐত্রী মারা যাওয়ার পর মুকুন্দপুরের আমরি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের তরফে বার বার জানানো হচ্ছিল ঐত্রীর হার্টের অসুখ ছিল এবং তার জেরেই সে মারা গিয়েছে। কিন্তু ময়নাতদন্তের রিপোর্টে পরিস্কার জানানো হয় ঐত্রীর হার্টের কোনও অসুখ ছিলই না। অ্যালার্জি টেস্ট না করে অগমেন্টিনের ইন্ট্রাভেনাস ডোজ দেওয়ার জন্যই প্রবল শ্বাসকষ্টে মৃত্যু হয় ঐত্রীর। এমনকি ওই ওষুধ দেওয়ার জন্য তার দুই ফুসফুস এবং হার্টে বিভিন্ন আকারের একাধিক ক্ষত তৈরি হয়ে যায় যা ময়নাতদন্তের সময় ধরা পড়ে। ওই সব অ্যালার্জিতে একের পর এক অঙ্গ বিকল হতে শুরু করে ঐত্রীর। তাতেই তার মৃত্যু হয়।
 
ওই রিপোর্ট সামনে আসার পরেই মুকুন্দপুরের আমরি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে নিয়মমাফিক রাজ্যের স্বাস্থ্য কমিশনে অভিযোগ দায়ের করেন ঐত্রীর মা শম্পা দে। সেই মামলা প্রায় আড়াই বছর চলার পর এদিন রায় দিয়েছে কমিশন। সেখানেই বলা হয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের চিকিৎসার গাফিলতিতেই মৃত্যু হয়েছে ছোট্ট ঐত্রীর। তার জেরে ঐত্রীর পরিবারকে ১০ লক্ষ টাকার ক্ষতিপূরণ দিতে হবে আমরি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের তরফে। ঐত্রীর চিকিৎসায় যে গাফিলতি ছিল, এ কথা প্রমাণিত। আগামী দু’দিনের মধ্যে ই-মেল মারফত সব পক্ষকে পাঠিয়ে দেওয়া হবে রায়ের কপি। এই মামলার রায়ে মেয়ের মৃত্যুর সুবিচার পেলেন এক মা। যা কার্যত নজীরবিহীন আক লড়াইয়ের সাক্ষী থেকে গেল এই রাজ্যে। তবে হাত গুটিয়ে বসে থাকছে না আমরি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষও। তাঁরা এই রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চতর আদালতে মামলা দায়ের করবেন বলে সূত্র মারফত জানা গিয়েছে।

Comm AD 12 Myra

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Comm Ad 026 BM

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 023 MZP

নবান্নের কন্ট্রোলরুমে মুখ্যসচিবের সঙ্গে আলোচনায় মুখ্যমন্ত্রী।

নবান্নের কন্ট্রোলরুমে মুখ্যসচিবের সঙ্গে আলোচনায় মুখ্যমন্ত্রী।

বুধবার সারারাত নবান্নে থেকেই পরিস্থিতি পর্যালোচনা করবেন মুখ্যমন্ত্রী।

বুধবার সারারাত নবান্নে থেকেই পরিস্থিতি পর্যালোচনা করবেন মুখ্যমন্ত্রী।

মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন মুখ্যসচিব, ডিজি-সহ অন্য কর্তারা।

মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন মুখ্যসচিব, ডিজি-সহ অন্য কর্তারা।

মঙ্গলবারের পর বুধবার বিকেলেও শহরের বিভিন্ন জায়গায় যান মুখ্যমন্ত্রী।

মঙ্গলবারের পর বুধবার বিকেলেও শহরের বিভিন্ন জায়গায় যান মুখ্যমন্ত্রী।

তাঁর সঙ্গে ছিলেন কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা ও মেয়র ফিরহাদ হাকিম।

তাঁর সঙ্গে ছিলেন কলকাতার পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা ও মেয়র ফিরহাদ হাকিম।

এদিন খিদিরপুর, পার্ক সার্কাস, বালিগঞ্জ ফাঁড়ির মতো দক্ষিণ কলকাতার একাধিক জায়গায় যান।

এদিন খিদিরপুর, পার্ক সার্কাস, বালিগঞ্জ ফাঁড়ির মতো দক্ষিণ কলকাতার একাধিক জায়গায় যান।

এদিনও স্থানীয়দের লকডাউন মেনে চলার অনুরোধ করেন তিনি।

এদিনও স্থানীয়দের লকডাউন মেনে চলার অনুরোধ করেন তিনি।

এই নিয়ে পরপর দু'দিন শহরের বিভিন্ন জায়গায় গেলেন মুখ্যমন্ত্রী।

এই নিয়ে পরপর দু'দিন শহরের বিভিন্ন জায়গায় গেলেন মুখ্যমন্ত্রী।

তাঁর এই কাজকে তীব্র ভাষায় বিঁধেছেন বিরোধীরা।

তাঁর এই কাজকে তীব্র ভাষায় বিঁধেছেন বিরোধীরা।

পূবস্হলি দক্ষিণ বিধানসভার কালনা ১নং ব্লকের শাখাটি আদিবাসী পাড়ার বাহা পুজোর উৎসব

পূবস্হলি দক্ষিণ বিধানসভার কালনা ১নং ব্লকের শাখাটি আদিবাসী পাড়ার বাহা পুজোর উৎসব

সেখানেই যান মাননীয় মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ

সেখানেই যান মাননীয় মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ

গ্রামবাসীদের সঙ্গে কথা বলেন। জানতে চান সুবিধা-অসুবিধার কথা

গ্রামবাসীদের সঙ্গে কথা বলেন। জানতে চান সুবিধা-অসুবিধার কথা

পরে একাধিক প্রকল্পের উদ্বোধনও করেন মন্ত্রী

পরে একাধিক প্রকল্পের উদ্বোধনও করেন মন্ত্রী

জনগণের সঙ্গে বসে অনুষ্ঠানও দেখেন মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ

জনগণের সঙ্গে বসে অনুষ্ঠানও দেখেন মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ

প্রায় ঘণ্টাখানেক এই অনুষ্ঠানেই ছিলেন তিনি

প্রায় ঘণ্টাখানেক এই অনুষ্ঠানেই ছিলেন তিনি

#

#

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 023 MZP

Editors Choice

Comm Ad 006 TBS