Comm Ad 2020-LDC epic

প্রেম গড়িয়ে বিছানায়, মোবাইল না পেতেই দায়ের ধর্ষণের অভিযোগ

Share Link:

প্রেম গড়িয়ে বিছানায়, মোবাইল না পেতেই দায়ের ধর্ষণের অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিনিধি: দেশে ধর্ষণের ঘটনা বেড়েই চলেছে। কিন্তু শাস্তি হচ্ছে কয়জনের। কার্যত শতকরা ৮০ ভাগ ঘটনার ক্ষেত্রেই অভিযুক্তরা ছাড়া পেয়ে যাচ্ছে বা জামিন পেয়ে যাচ্ছে যথাযুক্ত প্রমাণের অভাবে বা ঘটনাটি কিংবা অভিযোগটি মিথ্যা বলে প্রমাণিত হওয়ায়। বাংলাও তার ব্যতিক্রমী নয়। এখানেও ফি মাস রুটিন করেই দায়ের হ্যে ভুরি ভুরি ধর্ষণের অভিযোগ। তার মধ্যে অনেক অভিযোগই দায়ের করা হয় অভিযুক্তকে বিপাকে ফেলতে। বছরের পর বছর ধরে চলে সেই সব মামলা। শেষে খুব কম ক্ষেত্রেই অভিযুক্ত নিজেকে দোষী প্রমাণ করতে সক্ষম হয় বা অভিযোগটি মিথ্যা বলে প্রমাণিত হওয়ায় আদালত মামলাটি খালাস করে দেয়। এ রাজ্যেও সেই ধরনের মামলার সংখ্যা এখন ক্রমশ বেড়ে চলেছে। সম্প্রতি এই ধরনেরই এক ঘটনা সামনে এসেছে। যেখানে এক যুবকের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠায় তাকে ও তার আরেক বন্ধুকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
 
জানা গিয়েছে, সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে অভিযুক্ত যুবকের সঙ্গে আলাপ হয়েছিল নির্যাতিতা কিশোরীর। সেই থেকেই বন্ধুত্ব ও প্রেম। কালিপুজোর দিন সেই কিশোরী অভিযুক্তের সঙ্গে বেড়িয়েছিল ঠাকুর দেখবে বলে। এরপর ওই যুবক কিশোরীকে নিয়ে একটি নির্জন এলাকায় গিয়েছিল। সেখানে এক বন্ধুর বাড়িতে নাকি ওই যুবক কিশোরীকে ধর্ষণ করে। দক্ষিন কলকাতার হরিদেবপুর থানায় সেই মর্মেই অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। সেই অভিযোগের ভিত্তিতেই পুলিশ অভিযুক্ত যুবক ও তার এক বন্ধুকে ইতিমধ্যেই গ্রেফতার করেছে। এই বন্ধুর বাড়িতেই বাকি কালিপুজোর দিন ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছিল। কিন্তু এখন অভিযোগ উঠেছে, মোবাইল না পাওয়ার জন্যই নাকি ওই কিশোরী যুবকের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ করেছে। যুবকটি ওই কিশোরীকে স্মার্ট ফোন কিনে দেওয়ার কথা দিয়ে তার সন্মতিতেই শারীরিক সম্পর্কে জড়িয়েছিল। তাই মেয়েটি এই ঘটনা নিয়ে কাউকে কিছু বলেওনি। ছটপুজোর পরেও মোবাইল না মেলায় সে পুলিশের কাছে গিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করেছে।
 
পুলিশ থেকে জানানো হয়েছে, ঘটনার তদন্ত চলছে। অভিযুক্তদের গ্রেফতারও করা হয়েছে। মেয়েটির মেডিকেল টেস্টে ধর্ষণের প্রমাণ না পাওয়া গেলেও যুবকদের ছাড় পাওয়া কঠিন। কারণ মেয়েটি নাবালিকা। তাই পকসো ধারায় মামলা দায়ের হয়েছে। শারীরিক সম্পর্ক যে হয়েছিল সে নিয়ে সন্দেহ নেই। কিন্তু মেয়েটি নাবালিকা থাকায় তাঁর সম্মতির দামও এক্ষেত্রে নেই। দুই যুবকের বিরুদ্ধেই পকসো ধারায় ধর্ষণের মামলা চলবে। একই সঙ্গে পুলিশ জানিয়েছে এই ধরনের ঘটনা এখন খুবই বেড়ে গিয়েছে। অল্প বয়সেই ছেলেমেয়েরা শারীরিক সম্পর্কে জড়িয়ে যাচ্ছে। তা নিয়ে ছেলেমেয়েদের বাবা-মায়েরাও খুব একটা চিন্তিত নয়। কার্যত গোটা সমাজব্যবস্থাতেই এই ক্ষয় ধরেছে। নৈতিকতা নিয়েও উঠছে প্রশ্ন। যে কিশোরী অভিযোগ দায়ের করেছিল সে কীভাবে মোবাইল চেয়েছিল আর তা না পেতেই কেন বা সে ধর্ষণের অভিযোগ তুলেছে। মোবাইল পেলে কী আর সেই এই অভিযোগ করতো! এটা তো নৈতিকতার অধঃপতনের নমুনা বলেই মনে করছে বিশেষজ্ঞরা।

Comm Ad 2020-WB Tourism body

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Comm Ad 2020-WBSEDCL RC

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

2020 New Ad HDFC 05

কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের  সমাপ্তি অনুষ্ঠান

কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের সমাপ্তি অনুষ্ঠান

#

#

#

#

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 2020-WB Tourism RC
Comm Ad 2020-Valentine RC