corona 01

'অভিভাবক' হিসেবে যৌন সহিংসতা কিভাবে প্রতিরোধ করতে পারেন?

Share Link:

'অভিভাবক' হিসেবে যৌন সহিংসতা কিভাবে প্রতিরোধ করতে পারেন?

নিজস্ব প্রতিনিধি : যৌন সহিংসতা একটি গুরুতর সমস্যা আজকের প্রেক্ষাপটে। এটি কি এবং কেন সেই আলোচনা এখন বহু চর্চিত। ২০২০ সালে দাঁড়িয়ে আন্তর্জাতিক মানসিক স্বাস্থ্য সপ্তাহ পালন করছি আমরা। কিন্তু প্রশ্ন হলো একদম গোড়া থেকে কি কিছু করা যেতে পারে যাতে এটি প্রতিরোধ সম্ভবপর হয়? আমাদের অভিভাবকদের, সন্তানদের বড় করার পেছনে কি কোন দায়িত্ব থেকে যায়, এই ধরনের সহিংসমূলক আচরণ গড়ে ওঠার মূলে?

একটি শিশুর নৈতিক দায়িত্ব বোধ গড়ে ওঠার প্রথম পদক্ষেপ তার বাড়িতে শুরু হয়। শিশুটি যখন প্রথমে বুঝতে শেখে যে, ছেলে এবং মেয়ে দুজনের শারীরিক গঠন আলাদা, তখন থেকে তাদের মধ্যে কিছু দৃষ্টিভঙ্গি গড়ে তোলানো দরকার।

১) পুরুষ, নারী বা ছেলে এবং মেয়ের শারীরিক পার্থক্য বোঝানোর আগে প্রত্যেক অভিভাবকের দায়িত্ব প্রত্যেককে, মানুষ হিসেবে দেখতে শেখানো। শিশুকে বোঝাতে হবে শারীরিকভাবে কিছু বৈশিষ্ট আলাদা হওয়ার জন্য সে 'মেয়ে' বা সে 'ছেলে' কিন্তু প্রথমে সে মানুষ।

২) স্ত্রী পুরুষ নির্বিশেষে প্রত্যেক মানুষের স্বাভাবিক স্বাচ্ছন্দ্যের সীমারেখাকে সম্মান জানাতে শিক্ষা দেওয়া উচিত।

৩) 'যৌন' এবং 'যৌনতা' শব্দটি যে শুধুমাত্র লিঙ্গ ভিত্তিক নয়, তার যে একটা সামাজিক প্রেক্ষাপট রয়েছে এবং 'যৌনতা' বলতে একজন মানুষের নিজেকে 'পুরুষ' এবং 'নারী' হিসেবে প্রত্যক্ষীকরণ বোঝায়, যৌনতা বলতে যে শুধু যৌন অঙ্গ বোঝা যায় না, এই ধারণা প্রথম থেকেই হওয়া দরকার।

৪) শিশুরা একটু বড় হলে, 'যৌনতা' নিয়ে তাদের মধ্যে নানা রকমের প্রশ্ন দেখা দেয়। যেহেতু আমাদের প্রচলিত শিক্ষা ব্যবস্থার পদ্ধতির মধ্যে এটিকে এখনো খোলা খুলি কোন বিষয়ে রূপে গ্রহণ করা হয়নি, সেহেতু ওরা যৌনতা নিয়ে সঠিক পদ্ধতিতে দৃষ্টিভঙ্গি গড়ে তোলার সুযোগ, সহজ এবং স্বাভাবিক ভাবে পায়না। আর যা কিছুই আমাদের কাছে 'গোপন' সে বিষয়ে আমাদের কৌতূহল বেশি ধাবিত হয়। স্বাভাবিকভাবেই ছেলে মেয়েদের যৌনতা বিষয়ে আগ্রহ এবং কৌতূহল বেড়ে যায় এবং বিভিন্ন বাঁকা পথে ওরা এই সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করতে থাকে। তাই অভিভাবক হিসেবে আমাদের দায়িত্ব হলো প্রথম থেকেই এই বিষয় নিয়ে ওদের সাথে খোলাখুলি আলোচনা করা। এবং ওদের কৌতুহল পরিষ্কার এবং সঠিক তথ্য দিয়ে মেটানো। প্রয়োজনে বই এর সাহায্য ও নেয়া যেতে পারে। ছোটবেলা থেকে অন্যান্য বিষয়ের মত 'সেক্স এডুকেশন' চালু করা খুবই প্রয়োজন।

৫) পরিবারে শিশুটি যদি ছোটবেলা থেকে কারুর অধিকার লংঘন, অযাচিত ভাবে আদর করা, বা কাউকে অত্যাচারিত হতে দেখে এবং কাউকে ক্রমাগত সহ্য করে নিতে দেখে, তাহলে সে এটি স্বাভাবিক জীবনযাত্রার অংশ হিসেবে ধরে নেবে। এবং এটি একটি রাগ প্রকাশের ও শক্তি প্রয়োগের মাধ্যম হিসেবে ধরে নেবে। তাই শিশুটির সামনে, ব্যক্তিগত আক্রোশ, জোর জবরদস্তি কোন কাজ করানো ইত্যাদি বন্ধ করতে হবে।

৬) মনস্তত্ত্ববিদের মতে, একটি শিশুর সাথে যদি তার বিপরীত লিঙ্গ অভিভাবকের সম্পর্কের ক্ষেত্রে নিরাপত্তা বোধের অভাব দেখা দেয়, তবে সেটি পরবর্তীকালে সাধারণীকরণ হয়ে, সমস্ত বিপরীত লিঙ্গের মানুষদের মধ্যে সঞ্চারিত হতে পারে। এই নিরাপত্তা বোধের অভাব থেকে নিজের শক্তি প্রয়োগের একটা তাগিদ অনুভূত হতে পারে।যথাসম্ভব সন্তানের সঙ্গে খোলামেলা থাকুন ও বন্ধুর মতো মিশে তার চাহিদা বোঝার চেষ্টা করুন। জীবনের ব্যর্থতা ও অসাফল্য যাতে সে আপনাদের সাথে ভাগ করে নিতে পারে সেই পথটা খোলা রাখুন।

লেখক : পুষ্পিতা মুখার্জি (মনোবিদ ও শিক্ষিকা)

Pujo2020-T03

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Comm Ad 008 Myra

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 026 BM

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

এক আধটা নয়, পুরো ১১০টি পুজোর উদ্বোধন একঘন্টার মধ্যেই সেরে ফেলে রেকর্ড গড়ে দিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এক আধটা নয়, পুরো ১১০টি পুজোর উদ্বোধন একঘন্টার মধ্যেই সেরে ফেলে রেকর্ড গড়ে দিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

নবান্ন থেকে ভার্চুয়ালি ভাবে রাজ্যের ১২টি জেলার এই ১১০টি পুজোর উদ্বোধন এদিন করে দিলেন তিনি।

নবান্ন থেকে ভার্চুয়ালি ভাবে রাজ্যের ১২টি জেলার এই ১১০টি পুজোর উদ্বোধন এদিন করে দিলেন তিনি।

কখনও দূর্গাস্তোত্র পড়ে, কখনও শাঁখ বাজিয়ে, কখনও বা কাঁসর বাজিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে এদিন দেখা গেল একের পর এক জেলায় পুজোর উদ্বোধন করতে।

কখনও দূর্গাস্তোত্র পড়ে, কখনও শাঁখ বাজিয়ে, কখনও বা কাঁসর বাজিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে এদিন দেখা গেল একের পর এক জেলায় পুজোর উদ্বোধন করতে।

একই সঙ্গে নাম না করেই মাঝে মধ্যে গেরুয়া শিবিরকে খোঁচা দিয়ে তাঁকে মা দুর্গার কাছে প্রার্থনা করতে দেখা গেল যে মা যেন বাংলাকে দাঙ্গা থেকে বাঁচান

একই সঙ্গে নাম না করেই মাঝে মধ্যে গেরুয়া শিবিরকে খোঁচা দিয়ে তাঁকে মা দুর্গার কাছে প্রার্থনা করতে দেখা গেল যে মা যেন বাংলাকে দাঙ্গা থেকে বাঁচান

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 2020-himalaya RC

Editors Choice

Comm Ad 2020-WBSEDCL RC