Comm Ad 2020-WB Tourism body

রোগ সংক্রমণে ‘জম্বি’ হয়ে যেত মানুষ, ১০০ বছরেও কিনারা হয়নি রহস্যের

Share Link:

রোগ সংক্রমণে ‘জম্বি’ হয়ে যেত মানুষ, ১০০ বছরেও কিনারা হয়নি রহস্যের

নিজস্ব প্রতিনিধি:  বিখ্যাত হলিউড সিনেমা ‘জম্বিল্যান্ড’-র কথা মনে আছে? বা ‘রেসিডেন্ট ইভিল’? যেখানে কোনও এক অজ্ঞাত ভাইরাস থাবা বসিয়েছিল মানব শরীরে। যার ফলে একের পর এক মানুষ তাঁর শিকার হয়ে জীবন্মৃত অবস্থায় ‘বেঁচে’ ছিলেন। যাদের ‘জম্বি’ নাম দেওয়া হয়েছিল। কল্পবিজ্ঞানের কাহিনী হলেও এই রোগের অস্তিত্ব ছিল পৃথিবীতে। মাত্র ১০০ বছর আগে ইউরোপের হানা দিয়েছিল এমন এক মহামারি যা মানুষকে জ্যান্ত লাশ বানিয়ে দিয়েছিল। ইতিহাসের অনালোচিত পর্যায় অস্ট্রিয়ার ‘জম্বি’ মহামারি।
 
এক বছরের বেশি সময় ধরে পৃথিবী জুড়ে সংক্রমণ ছড়াচ্ছে করোনা ভাইরাস। সেই সময়ই মানুষের স্মৃতিতে বারবার ফিরে এসেছে ভয়ঙ্কর কিছু মহামারীর কথা যা ইতিহাসের পাতায় জায়গা করে নিয়েছিল। তেমনই এক মহামারি ১০০ বছর আগে ঘটে যাওয়া স্প্যানিস ফ্লু মহামারীর কথা এতদিনে কিংবদন্তি হয়ে গিয়েছে। তবে তার সমসাময়িক আরও এক ভয়ঙ্কর মহামারির কথা প্রায় উহ্যই থেকে গিয়েছে। যার রহস্য এখনও উদঘাটন হয়নি।
 
১৯১৫ সাল নাগাদ অস্ট্রিয়ায় এনসেফেলাইটিস ল্যাথার্জিকা নামের এই রোগ আক্রমণ করে। পরবর্তী প্রায় ১২ বছর সংক্রমণ চলে এই রোগের। এত বছর সংক্রমণ হলেও প্রতিষেধক তো দূরের কথা, রোগের কোনও কারণ খুঁজে পাননি চিকিৎসকরা। শোনা যায় অন্তত ৫ লক্ষ মানুষের মৃত্যু হয়েছিল এই মহামারিতে।
 
যাঁরা মারা গিয়েছিলেন তারা যেন মরে বেঁচে গিয়েছিলেন। কিন্তু যাঁরা বেঁচে ছিলেন তাঁদের অবস্থা ছিল শোচনীয়। জীবনের কোনও অনুভূতিই আর কোনোদিনের জন্য বুঝতে পারেননি তারা। মস্তিষ্কের ৯০ শতাংশ পর্যন্ত অকেজো হয়ে গিয়েছিল কারোর কারোর, কিন্তু শরীর ছিল জীবিত। সেই ‘অসাড়’ শরীর নিয়েই টিকে ছিলেন কোনওমতে।
 
অস্ট্রিয়ার এক স্নায়ুরোগ বিশেষজ্ঞ ভন ইকনমো প্রথম এই রোগের দিকে আলোকপাত করেন। তাঁর লেখা এক প্রবন্ধ থেকে জানা যায়, এই রোগে শুরুতে একটু বেশি আলস্য আর ঘুমের আধিক্য ছাড়া অন্য কোনও লক্ষণই ছিল না। তবে সময় যত এগোতে থাকে, ততই মাথাচাড়া দেয় এই রোগ, সেই সঙ্গে তীব্র মাথাব্যথা। কোনও কোনও ক্ষেত্রে রোগী পক্ষাঘাতেও আক্রান্ত হয়ে পড়তেন। তবে এই রোগের সংক্রমণ কিভাবে ঘটে সে বিষয়ে তথ্য দিতে পারেননি ইকনমো। এনসেফেলাইটিস ল্যাথার্জিকা নামটিও জানা না থাকায় এই রোগের নাম হয় ইকনমো’স ডিজিজ।
 
প্রথম বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন ইকনমো’স ডিজিজের প্রাদুর্ভাব ছড়িয়ে পড়ে সমগ্র ইউরোপে। সেই সময় ইউরোপের হাজার হাজার তরুণ যুদ্ধে প্রাণ হারাচ্ছেন সঙ্গে সামিল অস্ট্রিয়ার যুবকরাও। যুদ্ধের সেই ভয়াবহতার মাঝে হারিয়ে গেল এই রোগ। যুদ্ধের ভয়াবহতা কাটতেই সংক্রমণ শুরু স্প্যানিশ ফ্লু-র যাতে কমপক্ষে ৫ মিলিয়ন মানুষ প্রাণ হারিয়েছিলেন। যুদ্ধ ও স্প্যানিশ ফ্লু-তে যত মানুষ প্রাণ হারালেন, তার কাছে ইকনমো’স ডিজিজে মৃত মানুষের সংখ্যা নেহাতই কম। সেই কারণেই হয়তো আর এর ভয়াবহতা নিয়ে আলোচনা হয় না। কিন্তু আশ্চর্যের বিষয় মহামারি থেমে গেলেও তার কোনো কারণ খুঁজে পাওয়া যায়নি।
 
তবে ১৯২৭ সালের পর আর নতুন করে সংক্রমণ দেখা যায়নি। আক্রান্তদের মধ্যে ৪০ শতাংশই প্রাণ হারিয়েছিলেন। জীবিতদের শরীরে কোনও অনুভূতি না থাকায় রোগের কারণও খুঁজে পাওয়া অসম্ভব হয়ে যায়। তবু দীর্ঘদিন গবেষণা চলেছে। একসময় বিজ্ঞানীরা অধৈর্য্য হয়ে পড়লে তারপরই মেলে নতুন সূত্র।
 
২০০৪ সালে ভাইরোলজিস্ট জন অক্সফোর্ড দেখলেন, মহামারির পর জীবিত প্রত্যেকের গলায় ইনফেকশনের কথা শোনা গিয়েছিল। এরপর মহামারিতে মৃতদেরও গলা শুকিয়ে যাওয়ার কথা জানতে পারেন মেডিক্যাল রিপোর্টে। সেই সমস্ত রিপোর্ট পরীক্ষা করে জানতে পারেন, প্রত্যেকের গলাতেই এক বিশেষ ধরণের স্ট্রেপটোকক্কাস ব্যাকটেরিয়া বাসা বেঁধেছিল। অবশ্য এই রোগের সঙ্গে স্ট্রেপটোকক্কাসের সম্পর্ক সরাসরি প্রমাণ করা যায়নি। তবে যে অণুজীবই দায়ী হোক না কেন, তার কোনওরকম নিরাময়ের পথ আবিষ্কার হয়নি। সেই সঙ্গে এই মহামারি যে পুনরায় ফিরে আসবে না সেকথাও জোর দিয়ে বলতে পারেননি বিজ্ঞানীরা।

Comm Ad 005 TBS

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Comm Ad 2020-himalaya RC

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 2020-WB Tourism RC

স্বামী করণ সিং গ্রুভারের সঙ্গে ছুটি কাটানোর ছবি পোস্ট করেছেন বিপাশা

স্বামী করণ সিং গ্রুভারের সঙ্গে ছুটি কাটানোর ছবি পোস্ট করেছেন বিপাশা

বিকিনিতে নিজের অনুরাগীদের মনে উষ্ণতা ছড়াচ্ছেন বিপাশা বসু

বিকিনিতে নিজের অনুরাগীদের মনে উষ্ণতা ছড়াচ্ছেন বিপাশা বসু

মলদ্বীপে খোশমেজাজে রয়েছেন বিপাশা

মলদ্বীপে খোশমেজাজে রয়েছেন বিপাশা

বিপাশার বিকিনি পরা ছবি দেখে বলাই যায় বয়স সংখ্যামাত্র

বিপাশার বিকিনি পরা ছবি দেখে বলাই যায় বয়স সংখ্যামাত্র

হাতে কাজ না থাকায় দাম্পত্য জীবন উপভোগ করছেন বঙ্গতনয়া

হাতে কাজ না থাকায় দাম্পত্য জীবন উপভোগ করছেন বঙ্গতনয়া

সরকারের হাত ধরে সল্টলেকের বুকে চালু হয়েছে প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্র। যেখানে মিলবে পোষ্যদের চিকিৎসা পরিষেবা।

সরকারের হাত ধরে সল্টলেকের বুকে চালু হয়েছে প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্র। যেখানে মিলবে পোষ্যদের চিকিৎসা পরিষেবা।

সল্টলেকের প্রাণী সম্পদ বিকাশ ভবন প্রাঙ্গণেই এই নতুন প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্রের এদিন উদ্বোধন করেছেন রাজ্যের প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ।

সল্টলেকের প্রাণী সম্পদ বিকাশ ভবন প্রাঙ্গণেই এই নতুন প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্রের এদিন উদ্বোধন করেছেন রাজ্যের প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ।

এদিনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ ও স্থানীয় বিধায়ক তথা রাজ্যের দমকলমন্ত্রী সুজিত বসু।

এদিনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ ও স্থানীয় বিধায়ক তথা রাজ্যের দমকলমন্ত্রী সুজিত বসু।

এই পশু স্বাস্থ্যকেন্দ্রে মিলবে ইসিজি, আল্ট্রাসোনোগ্রাফি, রক্ত সিরামের বিভিন্ন পরীক্ষা, পরজীবী সংক্রমণ সংক্রান্ত খুঁটিনাটি বিশ্লেষণ, আধুনিক শল্য চিকিৎসার যাবতীয় সুযোগসুবিধা।

এই পশু স্বাস্থ্যকেন্দ্রে মিলবে ইসিজি, আল্ট্রাসোনোগ্রাফি, রক্ত সিরামের বিভিন্ন পরীক্ষা, পরজীবী সংক্রমণ সংক্রান্ত খুঁটিনাটি বিশ্লেষণ, আধুনিক শল্য চিকিৎসার যাবতীয় সুযোগসুবিধা।

 আগামী দিনে এই স্বাস্থ্য কেন্দ্রে মিলবে পোষ্যদের চোখ, কান ও দাঁতের পরীক্ষা পরিষেবাও।

আগামী দিনে এই স্বাস্থ্য কেন্দ্রে মিলবে পোষ্যদের চোখ, কান ও দাঁতের পরীক্ষা পরিষেবাও।

প্রায় ১ কোটি টাকা ব্যায়ে এই নবনির্মিত পশু চিকিৎসালয় তৈরি করা হয়েছে।

প্রায় ১ কোটি টাকা ব্যায়ে এই নবনির্মিত পশু চিকিৎসালয় তৈরি করা হয়েছে।

সারা রাজ্যে প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের অধীনে ১০৪টি রাজ্য প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্র, ৮টি পলিক্লিনিক, ৩৪২টি ব্লক প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও ২৭২টি অতিরিক্ত ব্লক প্রাণী স্বাস্থ্য কেন্দ্র চালু থাকলো বাংলার বুকে।

সারা রাজ্যে প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের অধীনে ১০৪টি রাজ্য প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্র, ৮টি পলিক্লিনিক, ৩৪২টি ব্লক প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও ২৭২টি অতিরিক্ত ব্লক প্রাণী স্বাস্থ্য কেন্দ্র চালু থাকলো বাংলার বুকে।

সল্টলেক ও আশেপাশের এলাকার বাসিন্দাদের কাছে বিশেষ করে যাদের বাড়িতে ছোট পোষ্য থাকে তাঁদের ক্ষেত্রে অনেকটাই সমস্যার সমাধান হয়ে যেতে চলেছে এই নবনির্মীত প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি।

সল্টলেক ও আশেপাশের এলাকার বাসিন্দাদের কাছে বিশেষ করে যাদের বাড়িতে ছোট পোষ্য থাকে তাঁদের ক্ষেত্রে অনেকটাই সমস্যার সমাধান হয়ে যেতে চলেছে এই নবনির্মীত প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি।

পূর্বস্থলি দক্ষিণ বিধানসভার কালনা ১ নং ব্লকের, বেগপুর অঞ্চলের পাথর ডাঙ্গায় সংখ্যালঘু দপ্তরের বরাদ্দ ১৫,১৯,০০০ টাকায় নির্মিত জল প্রকল্প উদ্বোধনে মন্ত্রী

পূর্বস্থলি দক্ষিণ বিধানসভার কালনা ১ নং ব্লকের, বেগপুর অঞ্চলের পাথর ডাঙ্গায় সংখ্যালঘু দপ্তরের বরাদ্দ ১৫,১৯,০০০ টাকায় নির্মিত জল প্রকল্প উদ্বোধনে মন্ত্রী

এই বিশেষ প্রকল্পের উদ্বোধনে হাজির ছিলেন রাজ্যের প্রাণীসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ

এই বিশেষ প্রকল্পের উদ্বোধনে হাজির ছিলেন রাজ্যের প্রাণীসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ

এই বিশেষ জল প্রকল্পের ফলে উপকৃত হবেন এলাকাবাসী

এই বিশেষ জল প্রকল্পের ফলে উপকৃত হবেন এলাকাবাসী

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 006 TBS
Comm Ad 2020-LDC Egg