Comm Ad 2020-LDC epic

বালিয়া হত্যাকাণ্ডে কার পক্ষে বিজেপি? প্রশ্ন প্রিয়াঙ্কা

Share Link:

বালিয়া হত্যাকাণ্ডে কার পক্ষে বিজেপি? প্রশ্ন প্রিয়াঙ্কা

নিজস্ব প্রতিনিধি: বালিয়া কাণ্ডের পর আবার বিরোধীদের প্রশ্নের মুখে যোগী সরকার। বিজেপি কর্মী খুনের ঘটনায় শাসক দলের অবস্থান নিয়ে মন্তব্য করলেন কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়াঙ্কা গান্ধি বঢ়রা। সেই সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এবং বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডাকে উদ্দেশ্য করে বিতর্কিত বিজেপি বিধায়ক সুরেন্দ্র সিংয়ের বহিস্কারের দাবিও জানালেন রাজীব কন্যা।

এদিন তিনি টুইটারে প্রশ্ন করেন, নিজের দলের কর্মীর মৃত্যুতে মৌন কেন উত্তরপ্রদেশ সরকার। বালিয়ার ঘটনায় তাঁরা কার পক্ষে রয়েছেন? অভিযুক্ত ধীরেন্দ্র সিংকে নিয়ে কেন রাজ্য সরকার নীরব? এমনকি বিধায়ক সুরেন্দ্র সিং কেন তাঁকে সমর্থন করে আসছেন এই নিয়ে প্রশ্ন তোলেন প্রিয়াঙ্কা। যদিও প্রিয়াঙ্কার টুইটকে সেভাবে গুরুত্ব দিতে চায় না গেরুয়া শিবির। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী আনন্দ স্বরূপ শুক্লা কংগ্রেস নেত্রীকে দ্বৈত চরিত্র বলে কটাক্ষ করেছেন।

প্রসঙ্গত, দিনকয়েক আগে রেশন বন্টন নিয়ে বালিয়াতে দলীয় বৈঠককে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয় পরিস্থিতি। সরকারি আধিকারিক এবং পুলিশের সামনেই  জয়প্রকাশ নামক এক নেতাকে গুলি করে হত্যা করেন ধীরেন্দ্র সিং নামক আরেক নেতা। ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু ঘটে। নিজেকে বাঁচাতে তড়িঘড়ি ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যান ওই বিজেপি নেতা। যদিও তাঁর ভাই দেবেন্দ্র সিংকে সেই সময়ই গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। রবিবার অবশ্য পলাতক বিজেপি নেতা তথা প্রাক্তন সেনা কর্মীকেকে লখনউ-ফৈজাবাদ হাইওয়ে থেকে গ্রেফতার করা হয়।

জানা গিয়েছে ধীরেন্দ্র সিং স্থানীয় বিজেপি বিধায়ক সুরেন্দ্র সিংয়ের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ। ফলে স্বাভাবিকভাবেই তিনি ঘটনায় ধীরেন্দ্রর কোনও দোষই দেখতে পাননি। ঘটনাটির পর বিধায়ক মহাশয় দাবি করেছিলেন, নিজের আত্মরক্ষার্থে গুলি চালিয়েছিলেন ধীরেন্দ্র। ওই সময় যে অবস্থা হয়েছিল সেখানে গুলি চালানো ছাড়া নাকি কোনও উপায়ই ছিল না। আমি এই মর্মান্তিক ঘটনার নিন্দা করি তবে প্রশাসনের একতরফাভাবে যে তদন্ত করছে তারও সমর্থন করি না। ধীরেন্দ্র সিং যদি আত্মরক্ষায় গুলি না চালাতেন, তবে তিনি কিংবা তাঁর পরিবারের লোকজনরা মারা যেত। ওই পরিস্থিতিতে মারো নয় মরো বাদে তাঁর আর কোন বিকল্প উপায় ছিল না।

Pujo2020-T03

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

corona 02

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Pujo2020-T01

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

এক আধটা নয়, পুরো ১১০টি পুজোর উদ্বোধন একঘন্টার মধ্যেই সেরে ফেলে রেকর্ড গড়ে দিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এক আধটা নয়, পুরো ১১০টি পুজোর উদ্বোধন একঘন্টার মধ্যেই সেরে ফেলে রেকর্ড গড়ে দিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

নবান্ন থেকে ভার্চুয়ালি ভাবে রাজ্যের ১২টি জেলার এই ১১০টি পুজোর উদ্বোধন এদিন করে দিলেন তিনি।

নবান্ন থেকে ভার্চুয়ালি ভাবে রাজ্যের ১২টি জেলার এই ১১০টি পুজোর উদ্বোধন এদিন করে দিলেন তিনি।

কখনও দূর্গাস্তোত্র পড়ে, কখনও শাঁখ বাজিয়ে, কখনও বা কাঁসর বাজিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে এদিন দেখা গেল একের পর এক জেলায় পুজোর উদ্বোধন করতে।

কখনও দূর্গাস্তোত্র পড়ে, কখনও শাঁখ বাজিয়ে, কখনও বা কাঁসর বাজিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে এদিন দেখা গেল একের পর এক জেলায় পুজোর উদ্বোধন করতে।

একই সঙ্গে নাম না করেই মাঝে মধ্যে গেরুয়া শিবিরকে খোঁচা দিয়ে তাঁকে মা দুর্গার কাছে প্রার্থনা করতে দেখা গেল যে মা যেন বাংলাকে দাঙ্গা থেকে বাঁচান

একই সঙ্গে নাম না করেই মাঝে মধ্যে গেরুয়া শিবিরকে খোঁচা দিয়ে তাঁকে মা দুর্গার কাছে প্রার্থনা করতে দেখা গেল যে মা যেন বাংলাকে দাঙ্গা থেকে বাঁচান

Voting Poll (Ratio)

Pujo2020-T01

Editors Choice

2020 New Ad HDFC 05