2020 New Ad HDFC 04

প্রয়াত অসমের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তরুণ গগৈ

Share Link:

প্রয়াত অসমের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তরুণ গগৈ

 
নিজস্ব প্রতিনিধি, গুয়াহাটি: জীবন-যুদ্ধে শেষ পর্যন্ত হার-ই মানতে হল অসমের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তরুণ গগৈকে। সোমবার বিকালে চিকি‍ৎসকদের যাবতীয় চেষ্টাকে ব্যর্থ করে পাড়ি জমিয়েছেন মহাপ্রস্থানের পথে। মৃত্যুকালে বয়স হয়েছিল ৮৪ বছর। অসমের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশিদিন মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করার রেকর্ডের অধিকারী ছিলেন কংগ্রেসের প্রবীণ নেতা। তাঁর ছেলে গৌরব গগৈ কংগ্রেসের সাংসদ। এক সময়ে পশ্চিমবঙ্গ প্রদেশ কংগ্রেসের ভারপ্রাপ্ত পর্যবেক্ষকের দায়িত্ব পালনও করেছিলেন।

গত অগস্ট মাসে করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন অসমের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী। শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু অবস্থার ক্রমশ অবনতি ঘটায় এক পর্যায়ে প্লাজমা থেরাপিও প্রয়োগ করা হয়। চিকি‍ৎসকদের আপ্রাণ লড়াইয়ের ফলে করোনাকে হার মানান কংগ্রেসের প্রবীণ নেতা। কিন্তু করোনা নেগেটিভ হলেও বয়সজনিত কারণে বিভিন্ন রকমের সমস্যা দেখা দেয়। গত ২ নভেম্বর থেকে গুয়াহাটি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের শয্যায় জীবন-মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই চালাতে থাকেন। শনিবার দুপুরের পর থেকেই তাঁর শারীরীক পরিস্থিতির দ্রুত অবনতি ঘটতে থাকে। এক পর্যায়ে কোমাচ্ছন্নও হয়ে পড়েন। প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রীর জীবন বাঁচাতে ছয় ঘন্টার বেশি সময় ধরে ডায়ালাসিস করেন চিকি‍ৎসকরা। কিন্তু তাতে মৃত্যুদূতের নির্মম থাবা থেকে বাঁচানো যায়নি তাঁকে।

আদ্যোপান্ত কংগ্রেসি তরুণ গগৈ ১৯৭১ সালে অসমের জোরহাট লোকসভা আসন থেকে প্রথমবার বিজয়ী হন। তার পরে ১৯৭৭, ১৯৮০ ও ১৯৮৪ সালের নির্বাচনে একই আসন থেকে টানা জয়ী হন। ১৯৯১ ও ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে কালিয়াবৈর লোকসভা আসন থেকে কংগ্রেস প্রার্থী হিসেবে জয়ী হন। প্রধানমন্ত্রী পি ভি নরসিমা রাওয়ের জমানায় কেন্দ্রীয় খাদ্য ও খাদ্য প্রক্রিয়াকরণের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব সামলেছিলেন পোড়খাওয়া রাজনীতিবিদ। ২০০১ সালে অসমে বিধানসভা ভোটে কংগ্রেস জয়ী হওয়ার পরে মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। একটানা ২০১৬ সাল পর্যন্ত মুখ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব সামলেছিলেন। উত্তর পূর্ব ভারতের রাজ্যটিতে তিনিই সব চেয়ে বেশি সময় ধরে মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন। ২০১৬ সালের বিধানসভা ভোটে অবশ্য গেরুয়া ঝড়ের কাছে হারতে হয়েছিল তাঁকে। বয়সের কারণে সক্রিয় রাজনীতি থেকে ধীরে-ধীরে সরে যাচ্ছিলেন তিনি। আর কয়েক মাস বাদেই অসমে বিদানসভা ভোট। আর তার আগেই তাঁর মতো একজন পোড় খাওয়া নেতার চলে যাওয়া কংগ্রেসের পক্ষে বড় ধাক্কা বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা।

তরুণ গগৈয়ের প্রয়াণের খবর পেয়েই শোকপ্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধি, কংগ্রেস সাংসদ রাহুল গান্ধি, প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং, অসমের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোয়াল সহ বিভিন্ন রাজনেতিক দলের নেতা-নেত্রীরা।

 

Comm Ad 2020-tantuja-body

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

2020 New Ad HDFC 05

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 2020-LDC Momo

কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের  সমাপ্তি অনুষ্ঠান

কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের সমাপ্তি অনুষ্ঠান

#

#

#

#

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 008 Myra

Editors Choice

2020 New Ad HDFC 05