এই মুহূর্তে

WEB Ad Valentine 3

WEB Ad_Valentine




প্রয়াত বিশ্বের সবচেয়ে প্রবীণ বিমান সেবিকা




নিজস্ব প্রতিনিধি: মারা গেলেন বিশ্বের সবচেয়ে বেশি বয়সী ‘ফ্লাইট অ্যাটেনডেন্ট’ তথা বিমান সেবিকা ব্যাট নাশ। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৮ বছর। তাঁর মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করেছে এভিয়েশন ইন্ডাস্ট্রি। প্রায় সাত দশক তিনি আকাশপথে যাত্রীদের সেবা করেছেন। নিজের জীবনের বেশিরভাগ সময়েই তিনি নিজের পেশাকে দিয়ে দিয়েছেন। এমনকী সবচেয়ে বেশি সময় ধরে ফ্লাইট অ্যাটেনডেন্ট হিসেবে থাকার জন্যে তিনি গিনেস অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডেও নাম লিখিয়েছেন। আর বেট নাশ দীর্ঘদিনের আমেরিকান এয়ারলাইন্সের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। তাঁদের সঙ্গেই গোটা কাজ করছেন তিনি। গত শনিবার ফেসবুকে এই খবরটি ঘোষণা করেছেন আমেরিকান এয়ারলাইন্সের কর্মকর্তারা। তাঁরা বেট ন্যাশের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন কর, তাঁকে “কিংবদন্তী” বলে অভিহিত করেছেন। এবং আকাশপথে যাত্রীদের জন্য তার ৭০ বছরের নিবেদিত পরিষেবার জন্যে তাঁকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। তাঁরা বলেছে, “উচ্চে উড়ে যাও, বেট। আমরা আপনাকে মিস করব।” বেট নাশ ওয়াশিংটনের ডিসিতে বসবাস করতেন।

গত ১৭ মে মারা গিয়েছেন তিনি। তাঁর মৃত্যুর কারণ হিসেবে জানা গিয়েছে, তিনি দীর্ঘদিন ধরেই স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত ছিলেন। শেষ কয়েকটি দিন তিনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন বলে জানিয়েছেন মার্কিন সংবাদমাধ্যম। মৃত্যুর আগেও আমেরিকান এয়ারলাইন্সের একজন কর্মচারী ছিলেন বেট নাশ। প্রফেশনাল ফ্লাইট অ্যাটেনডেন্ট অ্যাসোসিয়েশন অনুসারে, ১৯৫৭ সালে নাশের যাত্রা শুরু হয়েছিল। তিনি মাত্র ২১ বছর বয়সে অধুনা-লুপ্ত ইস্টার্ন এয়ারলাইন্সে যোগ দেন। সেই সময়ে, বিমান ভ্রমণ ছিল একটি সম্পূর্ণ ভিন্ন অভিজ্ঞতা। তখন ফ্লাইটের মূল্য ছিল মাত্র ১২ (ভারতীয় মূল্যে ৯৯৯ টাকা) মার্কিন ডলার ছিল। উড়োজাহাজে থাকা সুযোগ-সুবিধাগুলির মধ্যে গলদা চিংড়ি এবং “স্টুয়ার্ডেস” দ্বারা পরিবেশিত প্রশংসাসূচক খাবারও থাকতো। নাশ সেই সময় থেকে বিমানে ফ্লাইট অ্যাটেনডেন্ট হিসেবে কাজ করতেন। এবং ধীরে ধীরে প্রযুক্তির আবির্ভাবের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বিমান শিল্পের বিবর্তনও প্রত্যক্ষ করেছেন। অটোমেশন এবং ডিজিটাল সিস্টেম অপারেশনাল প্রক্রিয়ায় বৈপ্লবিক পরিবর্তনের কারণে হাতে লেখা টিকিটের দিন চলে গেছে।

ন্যাশ, যিনি ১৯৩৫ সালের ডিসেম্বরে জন্মগ্রহণ করেছিলেন, ২০১৬ সালে একটি সাক্ষাৎকারে তাঁর দীর্ঘ কর্মজীবনের অভিজ্ঞতা প্রসঙ্গে বলেছিলেন, “আমি প্রথম বিমানে উঠার সময় থেকে” ফ্লাইট অ্যাটেনডেন্ট হতে চেয়েছিলেন৷ পাইলট এবং ফ্লাইট অ্যাটেনডেন্ট হল জুড়ে হেঁটে গেল এবং আমি ভাবলাম, ‘ওহ মাই গড,’ আমি বলেছিলাম যে এটি আমার জন্য ছিল। তাই কলেজের পরে চাকরির জন্য এখানে আবেদন করি, এবং কাজে ঢুকে যাই। বাকিটা ইতিহাস।”




Published by:

Ei Muhurte

Share Link:

More Releted News:

কুয়েতের বহুতলে অগ্নিকাণ্ডে ৪৫ ভারতীয় শ্রমিকের মৃত্যু

যোগী রাজ্যে দুর্নীতির বিরুদ্ধে চার মাস ধরে অনশন চালানো সমাজকর্মীর মৃত্যু

ব্রিটেনে ভেঙে ফেলা হচ্ছে জগন্নাথ দেবের মন্দির, কারণ কী?

যুদ্ধবিরতি নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রকে ইজরায়েলের ওপর চাপ দিতে আহ্বান জানিয়েছে হামাস

কুয়েতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় শোকপ্রকাশ স্ট্যালিনের, জরুরি বৈঠকে বিজয়ন

গাজায় চিকিৎসা ও অপুষ্টিতে মৃত্যুর মুখে প্রায় ৮০০০ শিশু! জানালো ‘হু’

Advertisement




এক ঝলকে
Advertisement




জেলা ভিত্তিক সংবাদ

দার্জিলিং

কালিম্পং

জলপাইগুড়ি

আলিপুরদুয়ার

কোচবিহার

উত্তর দিনাজপুর

দক্ষিণ দিনাজপুর

মালদা

মুর্শিদাবাদ

নদিয়া

পূর্ব বর্ধমান

বীরভূম

পশ্চিম বর্ধমান

বাঁকুড়া

পুরুলিয়া

ঝাড়গ্রাম

পশ্চিম মেদিনীপুর

হুগলি

উত্তর চব্বিশ পরগনা

দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা

হাওড়া

পূর্ব মেদিনীপুর