Comm AD 12 Myra

ফুটবলের কিংবদন্তী মারাদোনা আর নেই

Share Link:

ফুটবলের কিংবদন্তী মারাদোনা আর নেই

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: আচমকাই ছন্দপতন। বিশ্বের কোটি কোটি ভক্তকে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন ফুটবলের মহানায়ক দিয়েগো আর্মান্দো মারাদোনা। বুধবার আকস্মিকভাবেই হৃদরোগে আক্রান্ত হন। সেই ধাক্কা সামলাতে পারেননি ঈশ্বরের বরপুত্র। মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬০ বছর। ১৯৮৬ সালে মেক্সিকোতে বসেছিল বিশ্বকাপ ফুটবলের আসর। তাঁর পায়ের জাদুতেই বিশ্বকাপ জিতেছিল আর্জেন্টিনা। কিংবদন্তী ফুটবলারের মৃত্যুর খবরে শোকস্তব্ধ ক্রীড়ামহল। অনেকেই বিশ্বাস করতে পারছেন না এমন দুঃসংবাদ।

গত কয়েক মাস ধরেই অসুস্থ ছিলেন ১৯৮৬ সালের বিশ্বকাপজয়ী ফুটবলার। চলতি মাসের গোড়ার দিকে সর্বকালের অন্যতম সেরা ফুটবলার মারাদোনার মস্তিষ্কে অস্ত্রোপচার হয়। গত ১১ নভেম্বর বুয়েনোস আইরেসের হাসপাতাল থেকে তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয়। মাদকাসক্ত কিংবদন্তী ফুটবলারকে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল ওলিভোস ক্লিনিক নামে এক নেশামুক্তি কেন্দ্রে। তাঁর মাদক আসক্তি দূর করার চেষ্টা চালাচ্ছিলেন চিকি‍ৎসকরা। কিছুটা সুস্থও হয়ে উঠেছিলেন কিংবদন্তী ফুটবলার। কিন্তু ভাগ্যদেবতা হয়তো অলক্ষে হেসেছিলেন। আচমকাই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে না ফেরার দেশে পাড়ি জমান কোটি-কোটি ফুটবল ভক্তের কাছে ভগবানের আসন পাওয়া মারাদোনা।

হতদরিদ্র পরিবারে জন্ম নেওয়া কিংবদন্তী ফুটবলারের জীবন বর্ণময়। পেশাদার জীবনে খেলেছেন বোকা জুনিয়র্স, নাপোলি ও বার্সেলোনায়। তিনিই একমাত্র ফুটবলার যিনি দুইবার স্থানান্তর (ট্রান্সফার) ফি এর ক্ষেত্র বিশ্বরেকর্ড গড়েছেন। প্রথমবার বার্সেলোনায় যাওয়ার সময়ে ৫ মিলিয়ন ইউরো এবং দ্বিতীয়বার নাপোলিতে স্থানান্তরের সময় ৬.৯ মিলিয়ন ইউরো নিয়েছিলেন।  আর এক কিংবদন্তী ফুটবলার পেলের সঙ্গে যৌথভাবে ফিফার শতাব্দীর সেরা খেলোয়াড় হিসেবে সম্মানিত হন। ১৯৮৬ সালে মেক্সিকো বিশ্বকাপে তিনি মন্ত্রমুগ্ধ করে দিয়েছিলেন ফুটবলবিশ্বকে। আর্জেন্টিনা চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল তাঁর নেতৃত্বে। কোয়ার্টার ফাইনালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে যে দুটি গোল করেছিলেন, সে দুটি গোলই ইতিহাসের পাতায় ঠাঁই করে নিয়েছে। প্রথমটি করেছিলেন হাত দিয়ে। যে কারণে এটাকে বলা হয় ‘দ্য হ্যান্ড অফ গড’। আর অন্যটি করেছিলেন মাঝমাঠ থেকে এককভাবে টেনে নিয়ে গিয়ে। সেই গোলটারই নাম হয়ে যায় ‘গোল অফ দ্য সেঞ্চুরি’। ১৯৯০ সালে ইতালি বিশ্বকাপেও তিনি আর্জেন্টিনাকে ফাইনালে তুলেছিলেন। কিন্তু দলকে চ্যাম্পিয়ান  করতে পারেননি। আর্জেন্টিনার হয়ে তিনি ৯১ খেলায় ৩৪ গোল করেন। চারটি ফিফা বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করেন।

১৯৯৭ সালে ফুটবলকে বিদায় জানান মারাদোনা। শুরু করেন কোচিং। তেমন অভিজ্ঞতা না থাকলেও ২০০৮ সালে আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের কোচের দায়িত্ব তাঁর কাঁধেই সঁপেন দেশের ফুটবল কর্তারা। ২০১০ বিশ্বকাপের পর চুক্তি শেষ হওয়ার আগে পর্যন্ত তিনি ১৮ মাস এই দায়িত্বে ছিলেন। বেশ কয়েকটি ছোট ক্লাবেও কোচিংয়ের দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

কিংবদন্তী ফুটবলারের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়তেই শোকের ছায়া নেমে এসেছে ক্রীড়ামহলে। বিসিসিআইয়ের প্রেসিডেন্ট তথা ভারতের কিংবদন্তী ক্রিকেটার সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় টুইটে লিখেছেন, ‘আমার হিরো আর নেই।  আমার বিশ্বাস ফুটবল কিংবদন্তি পরপারে শান্তিতে থাকবেন।  আপনার জন্যই আমি ফুটবল দেখেছি।’ 

 

Comm Ad 2020-WB Tourism body

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Comm Ad 026 BM

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 2020-LDC Momo

কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের  সমাপ্তি অনুষ্ঠান

কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের সমাপ্তি অনুষ্ঠান

#

#

#

#

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 2020-Valentine RC

Editors Choice

Comm Ad 2020-Valentine RC