Comm Ad 020 Tantuja

আইনুল এলেন তৃণমূলে! নজরে কী বর্ধমান সদর, জল্পনা জেলায়

Share Link:

আইনুল এলেন তৃণমূলে! নজরে কী বর্ধমান সদর, জল্পনা জেলায়

নিজস্ব প্রতিনিধি: একসময়ের দাপুটে বাম নেতা ছিলেন তিনি। কার্যত একা হাতেই কন্ট্রোল করতেন বর্ধমান পুরসভা। ছিলেন রাজ্যের প্রাক্তন শিল্পমন্ত্রী নিরুপম সেনের ঘনিষ্ঠও। সেই সুবাদেই বর্ধমান পুরসভার চেয়ারম্যান ও গোটা পুরপ্রশাসনকে নিজের হাতের মুঠোয় নিয়ে এসেছিলেন তিনি। কিন্তু মহাকরণের অলিন্দ থেকে বাম বিদায় ঘটে যাওয়ার পরে পরেও বর্ধমান শহরের বুকেও ক্রমশ রাশ আলগা হতে থাকে তাঁর। ২০১৬ সালের দলের টিকিটে বর্ধমান দক্ষিন বিধানসভা কেন্দ্র থেকে প্রার্থী হয়েছিলেন তিনি। কিন্তু জয়ের মুখ দেখতে পারেননি। তারপর থেকেই দলের অন্দরেই কোনঠাসা হতে শুরু করেন। ২০১৮সালে দলই তাঁকে বহিষ্কার করে। ২০১৯ সালে যোগ দেন তিনি বিজেপিতে। কিন্তু কিছুতেই গুছিয়ে বসতে পারছিলেন না। শেষে বুধবার হাতে তুলে নিলেন ঘাসফুলের পতাকা। হয়ে গেলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সৈনিক। তিনি আইনুল হক।
 
২০১১ সালের নির্বাচনে প্রচারের জন্য দলীয় প্রার্থী ডঃ রবিরঞ্জন চট্টোপাধ্যায়ের সমর্থনে বর্ধমান শহরে প্রচারে গিয়েছিলেন বাংলার অগ্নিকন্যা। সেদিন তাঁকে দেখতে, ছুঁতে, একটু স্পর্শ করতে গোটা শহর নেমে এসেছিল রাজপথে। খোদ বর্ধমানের বুকেও যে পরিবর্তন আসন্ন সেটা সেদিনই বোঝা গিয়েছিল। সেই নির্বাচনে বাম শিল্পমন্ত্রী নিরুপম সেনকে হারিয়ে জিতে যান তৃণমূল প্রার্থী। মমতার সভায় জনতার ঢল আর ভোটে নিরুপম সেনের হার, এই দুই ঘটনাই ভালো চোখে নেয়নি আলিমুদ্দিন। সেই দুই ঘটনার জন্যই কাঠগড়ায় তোলা হয়েছিল তৎকালীন বর্ধমান পুরসভার বাম পুরপ্রধান আইনুক হককে। কারণ তাঁর হুকুম ছাড়া বর্ধমান শহরে একটা পাতাও নড়তো না। সেখানে ওই দুই ঘটনা আইনুলের বিপক্ষেই গিয়েছিল। কিন্তু নিরুপম সেনের জন্য সরাসরি কেউ কিছু করে উঠতে পারেনি। তবে নিরুপম সেনের অসুস্থতার জেরে একা হয়ে গিয়েছিলেন আইনুল। তার জেরেই তাঁকে বহিষ্কার করতে সময় নেয়নি আলিমুদ্দিন। গত বছরই আইনুল যোগ দিয়েছিলেন বিজেপিতে। কিন্তু এবার চলে এলেন তৃণমূলে।
 
কিন্তু হঠাৎ আইনুলে শীলমোহর কেন! বর্ধমান শহরে কান পাতলেই বেশ কিছু কথা শোনা যাবে। তার অন্যতম হল বর্তমান বিধায়কের দুর্বলতা। তিনি স্বচ্ছ কিন্তু দাপুটে নন। দলে বা শহরের জনমানসে তাঁর কোনও নিয়ন্ত্রণই নেই। আর তার জেরে গেরুয়া প্রভাব যেমন ক্রমশ বাড়ছে তেমনি পুরপ্রশাসনের ক্ষেত্রেও নানান সমস্যা দেখা দিচ্ছে। তৃণমূল সূত্রে জানা গিয়েছে, আইনুলের এখন যেমন একটা রাজনৈতিক প্ল্যাটফর্মের ভীষণ দরকার ছিল তাঁর নিজের রাজনৈতিক ভবিষ্যত টিকিয়ে রাখতে তেমনি তৃণমূলের প্রয়োজন ছিল দাপুটে কোন নেতার যে গেরুয়া প্রভাব ঠেকিয়ে বর্ধমান সদরে জোড়াফুলের দাপট ধরে রাখতে পারবে। তাই দুয়ে দুয়ে চার। আগামী বিধানসভা নির্বাচনে আইনুলকে তাই এই কেন্দ্রে প্রার্থী হিসাবে দেখা গেলে যেমন চমকে যাওয়ার কিছু নেই তেমনি আগামী দিনে তাঁর হাতে বর্ধমান পুরপ্রশাসন উঠে গেলেও তাতে চমকে যাওয়ার মতো কিছু থাকবে না।
 
এদিন আইনুলের সঙ্গেই রাজ্যের আরও ৩ বিশিষ্ট জন তৃণমূলে যোগদান করেছেন। এরা হলেন ডাক্তার কৌশিক চাকি, সুন্দর পাসোয়ান ও ডাক্তার রেজাউল করিম। প্রথমজন ওয়েস্ট বেঙ্গল ডক্টরস ফোরামের প্রতিষ্ঠা তথা নারায়না গ্রুপ হসপিটালের চিকিৎসক ও আধিকারিক। একই সঙ্গে তিনি বর্তমানে রাজ্য সরকারের কোভিড প্রোটোকল মনিটরিং কমিটির সদস্য। সুন্দর পাসোয়ান পূর্ব বর্ধমান জেলার গলসির বুদবুদ এলাকার হিন্দি হাই স্কুলের শিক্ষক ও বিজেপির ভারতীয় জনতা মজদুর ট্রেড ইউনিয়ানের জাতীয় সাধারন সম্পাদক। আবার ডাক্তার রেজাউল করিম ওয়েস্ট বেঙ্গল ডক্টরস ফোরামের বর্তমান প্রেসিডেন্ট। এই চারজনেরই এদিন একসঙ্গেই যোগদান হয়েছে রাজ্যের শাসক দলে।

2020 New Ad HDFC 04

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

corona 02

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 008 Myra

ইস্টবেঙ্গল ক্লাবে পতাকা উত্তলন দিয়ে শুরু হল শতবর্ষ পালনের উৎসব

ইস্টবেঙ্গল ক্লাবে পতাকা উত্তলন দিয়ে শুরু হল শতবর্ষ পালনের উৎসব

তারপর প্রদীপ জ্বালালেন কর্মকর্তা ও প্রাক্তনেরা

তারপর প্রদীপ জ্বালালেন কর্মকর্তা ও প্রাক্তনেরা

ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা রাজা সুরেশ চন্দ্র চৌধুরী

ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা রাজা সুরেশ চন্দ্র চৌধুরী

উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস ও অন্যান্যরা

উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস ও অন্যান্যরা

তবে আইএসএল খেলা নিয়ে কোনও উচ্চবাচ্যই করলেন না কর্তারা

তবে আইএসএল খেলা নিয়ে কোনও উচ্চবাচ্যই করলেন না কর্তারা

মন্ত্রী শ্রী অরূপ বিশ্বাস মহাশয়কে পুষ্পস্তবক দিয়ে অভিবাদন জানান সভাপতি

মন্ত্রী শ্রী অরূপ বিশ্বাস মহাশয়কে পুষ্পস্তবক দিয়ে অভিবাদন জানান সভাপতি

শতবর্ষযাপনের কেক কাটেন অরূপ বিশ্বাস ও ক্লাবকর্তা এবং সভ্যবৃন্দ

শতবর্ষযাপনের কেক কাটেন অরূপ বিশ্বাস ও ক্লাবকর্তা এবং সভ্যবৃন্দ

উপস্থিত ছিলেন অতীতের অনেক দিকপাল খেলোয়াড়েরা

উপস্থিত ছিলেন অতীতের অনেক দিকপাল খেলোয়াড়েরা

উপস্থিত ছিলেন বহু সভ্য ও সমর্থক

উপস্থিত ছিলেন বহু সভ্য ও সমর্থক

প্রকাশ করা হয় বিশেষ স্মারক গ্রন্থও

প্রকাশ করা হয় বিশেষ স্মারক গ্রন্থও

কিন্তু আইএসএল নিয়ে কোনও কথা না বলায় প্রকাশ্যেই হতাশ সমর্থকেরা

কিন্তু আইএসএল নিয়ে কোনও কথা না বলায় প্রকাশ্যেই হতাশ সমর্থকেরা

পূবস্হলি দক্ষিণ বিধানসভার কালনা ১নং ব্লকের শাখাটি আদিবাসী পাড়ার বাহা পুজোর উৎসব

পূবস্হলি দক্ষিণ বিধানসভার কালনা ১নং ব্লকের শাখাটি আদিবাসী পাড়ার বাহা পুজোর উৎসব

সেখানেই যান মাননীয় মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ

সেখানেই যান মাননীয় মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ

গ্রামবাসীদের সঙ্গে কথা বলেন। জানতে চান সুবিধা-অসুবিধার কথা

গ্রামবাসীদের সঙ্গে কথা বলেন। জানতে চান সুবিধা-অসুবিধার কথা

পরে একাধিক প্রকল্পের উদ্বোধনও করেন মন্ত্রী

পরে একাধিক প্রকল্পের উদ্বোধনও করেন মন্ত্রী

জনগণের সঙ্গে বসে অনুষ্ঠানও দেখেন মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ

জনগণের সঙ্গে বসে অনুষ্ঠানও দেখেন মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ

প্রায় ঘণ্টাখানেক এই অনুষ্ঠানেই ছিলেন তিনি

প্রায় ঘণ্টাখানেক এই অনুষ্ঠানেই ছিলেন তিনি

#

#

Voting Poll (Ratio)

corona 02

Editors Choice

Comm Ad 023 MZP