Comm Ad 2020-LDC Haringhata Meet

আবারও একদিনে রেকর্ড সংক্রমণ রাজ্যে! সক্রিয় কেসের শীর্ষে কলকাতা

Share Link:

আবারও একদিনে রেকর্ড সংক্রমণ রাজ্যে! সক্রিয় কেসের শীর্ষে কলকাতা

নিজস্ব প্রতিনিধি: রেকর্ড গড়তে আর ভাঙতেই যেন বেশি পছন্দ করছে কোভিড। তাই তার কোনও রেকর্ডই দীর্ঘস্থায়ী হচ্ছে না। বরঞ্চ নিজের নিজের রেকর্ড ভেঙে দিয়ে নয়া রেকর্ড গড়ে ফেলছে কোভিড-১৯। আর ঠিক এক সপ্তাহ বাদেই পুজো। অথচ বৃহস্পতিবার রাজ্য সরকার যে কোভিড তথ্য তুলে ধরেছে তা রীতিমত উদ্বেগের। তবে পরিস্থিতি যাই হোক না কেন উৎসব পালনের ক্ষেত্রে কোনও নিষেধাজ্ঞা জারি হবে না। বৃহস্পতিবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সাফ জানিয়ে দিয়েছেন যে যাই আবদার আবেদন করুক না কেন পুজো হবে। আর মানুষের বাড়ি থেকে বার হওয়া নিয়ে কোনও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হবে না। তবে পুজোকমিটিগুলিকে ও আমজনতাকে সতর্ক হতে হবে।
 
বৃহস্পতিবার রাজ্য সরকারের দেওয়া তথ্য বলছে গত ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে রেকর্ড সংখ্যক মানুষ কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন, ৩ হাজার ৭২০জন। এর আগে একদিনে এত বেশি সংখ্যক মানুষ কোভিডে আক্রান্ত হননি। এই বিশাল সংখ্যক মানুষদের মধ্যে কলকাতায় সব থেকে বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন, ৭৮৪জন। তারপরেই রয়েছে উত্তর ২৪ পরগনা, ৭৬৩জন। অর্থাৎ যত জন মানুষ বিগত ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত হয়েছেন তার মধ্যে শতকরা ৪০ শতাংশ মানুষ এই দুই জেলার। অনান্য জেলাগুলির মধ্যে থেকে হাওড়ায় আক্রান্ত হয়েছেন ২৭১জন, দক্ষিন ২৪ পরগনায় ২১৬জন, নদিয়ায় ১৭৭জন, পশ্চিম মেদিনীপুরে ১৬৯জন, হুগলিতে ১৪৪জন, পূর্ব মেদিনীপুরে ১১৭জন, দার্জিলিংয়ে ১১৬জন ও মালদায় ১১১জন। বাদবাকি জেলাগুলিতে আক্রান্তের সংখ্যা ১০০’র নীচে।
 
যে সমস্ত জেলায় হাজারের ওপর সক্রিয় কোভিড কেস রয়েছে তার মধ্যে সব থেকে আগেই আসবে কলকাতার নাম। এখানে সক্রিয় কোভিড কেসের সংখ্যা ৭ হাজার ১০৬টি। এই প্রথম রাজ্যের কোনও জেলায় সক্রিয় কোভিড কেসের সংখ্যা ৭ হাজার অতিক্রম করলো। বাদবাকি জেলাগুলির মধ্যে উত্তর ২৪ পরগনায় সক্রিয় কোভিড কেসের সংখ্যা ৬ হাজার ৮০৯, দক্ষিন ২৪ পরগনায় ১ হাজার ৯৭৭, হাওড়ায় ১ হাজার ৫৮৯টি, হুগলিতে ১ হাজার ৪৪৯টি, নদিয়াতে ১ হাজার ৩২৪টি, পূর্ব মেদিনীপুরে ১ হাজার ২৩২টি এবং পশ্চিম মেদিনীপুরে ১ হাজার ১৭১টি। রাজ্যে মোট সক্রিয় কোভিড কেসের সংখ্যা ৩১ হাজার ৯৮৪টি।
 
গত ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে মারা গিয়েছেন ৬২জন। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩ হাজার ১৭৯জন। শেষ ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে কোভিড টেস্ট করিয়েছেন ৪২ হাজার ৬৫৩জন। রাজ্যে মোট সংক্রমিতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ লক্ষ ৯ হাজার ৪১৭। মোট সুস্থতার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ লক্ষ ৭১ হাজার ৫৬৩। সুস্থতার হার দাঁড়িয়েছে ৮৭.৭৭শতাংশ। মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫ হাজার ৮৭০। মোট কোভিড টেস্ট দাঁড়িয়েছে ৩৮ লক্ষ ৬১ হাজার ৯৫। পজিটিভ কেসের হার দাঁড়িয়েছে ৮.০১ শতাংশ। গত ২৪ ঘন্টায় সব থেকে বেশি মানুষ মারা গিয়েছেন কলকাতায়, ১৭জন। উত্তর ২৪ পরগনায় মারা গিয়েছেন ১৪জন। হাওড়ায় মারা গিয়েছেন ৬জন। হুগলি ও দক্ষিন ২৪ পরগনায় মারা গিয়েছেন ৪জন করে। ৩জন করে মারা গিয়েছেন দুই মেদিনীপুর ও পশ্চিম বর্ধমানে। ২জন করে মারা গিয়েছেন মালদা ও মুর্শিদাবাদে। ১জন করে মারা গিয়েছেন দার্জিলিং, জলপাইগুড়ি, নদিয়া ও বীরভূম জেলায়।

Comm Ad 2020-LDC Haringhata Meet

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Comm Ad 026 BM

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Pujo2020-T01

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

এক আধটা নয়, পুরো ১১০টি পুজোর উদ্বোধন একঘন্টার মধ্যেই সেরে ফেলে রেকর্ড গড়ে দিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এক আধটা নয়, পুরো ১১০টি পুজোর উদ্বোধন একঘন্টার মধ্যেই সেরে ফেলে রেকর্ড গড়ে দিলেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

নবান্ন থেকে ভার্চুয়ালি ভাবে রাজ্যের ১২টি জেলার এই ১১০টি পুজোর উদ্বোধন এদিন করে দিলেন তিনি।

নবান্ন থেকে ভার্চুয়ালি ভাবে রাজ্যের ১২টি জেলার এই ১১০টি পুজোর উদ্বোধন এদিন করে দিলেন তিনি।

কখনও দূর্গাস্তোত্র পড়ে, কখনও শাঁখ বাজিয়ে, কখনও বা কাঁসর বাজিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে এদিন দেখা গেল একের পর এক জেলায় পুজোর উদ্বোধন করতে।

কখনও দূর্গাস্তোত্র পড়ে, কখনও শাঁখ বাজিয়ে, কখনও বা কাঁসর বাজিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে এদিন দেখা গেল একের পর এক জেলায় পুজোর উদ্বোধন করতে।

একই সঙ্গে নাম না করেই মাঝে মধ্যে গেরুয়া শিবিরকে খোঁচা দিয়ে তাঁকে মা দুর্গার কাছে প্রার্থনা করতে দেখা গেল যে মা যেন বাংলাকে দাঙ্গা থেকে বাঁচান

একই সঙ্গে নাম না করেই মাঝে মধ্যে গেরুয়া শিবিরকে খোঁচা দিয়ে তাঁকে মা দুর্গার কাছে প্রার্থনা করতে দেখা গেল যে মা যেন বাংলাকে দাঙ্গা থেকে বাঁচান

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 2020-himalaya RC

Editors Choice

Comm Ad 008 Myra