এই মুহূর্তে

WEB Ad Valentine 3

WEB Ad_Valentine




মাংস বিলি করে বিতর্কের মুখে বিজেপি প্রার্থী তথা বিধায়ক




নিজস্ব প্রতিনিধি: দেশের প্রতিটি রাজ্যে সব নির্বাচনেই প্রায় প্রতিটি দলের প্রার্থীদের বিরুদ্ধে ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগ ওঠে। সেই সব অভিযোগের মধ্যে থাকে ভোটারদের হুমকি, ধমকি, প্রতিশ্রুতি বিলির পাশাপাশি নগদ টাকা বা দামী জিনিস এমনকি মদ বা মাংস খাওয়ার জন্য টাকা দেওয়ার মতো ঘটনাও। এইসব ঘটনা নিয়ে শোরগোল হয় ঠিকই, কিন্তু পর্যাপ্ত প্রমাণের অভাবে সিংহভাগ ক্ষেত্রেই তা ধামাচাপা পড়ে যায়। বাংলার বুকেও এই ধরনের ঘটনা স্থানীয় নির্বাচন থেকে শুরু করে লোকসভা বা বিধানসভা নির্বাচনেও সামনে আসে। এখন যখন রাজ্যের ১০৮টি পুরসভার নির্বাচনী দামামা বেজে গিয়েছে, প্রচার তুঙ্গে উঠেছে ঠিক তখনই পুরুলিয়ার বুকে বিজেপি প্রার্থী তথা স্থানীয় বিজেপি বিধায়কের বিরুদ্ধে ভোটারদের মধ্যে মাংস বিলি করার অভিযোগ উঠল। যদিও সেই ওই বিধায়ক গোটা বিষয়টিকে রাজ্যের শাসক দলের চক্রান্ত বলে দাবি করেছেন। কিন্তু ঘটনার ছবি সংবাদমাধ্যমের হাতে চলে আসায় অস্বস্তিতে পড়ে গিয়েছে গেরুয়া শিবির। 

জানা গিয়েছে, পুরুলিয়া শহরের ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের খাজুড়িয়ায় রবিবার সকালে ভোটারদের মধ্যে কেজি-কেজি মাংস বিলি করে গেরুয়া শিবির। তৃণমূল সহ বাম ও কংগ্রেসের অভিযোগ, ওই ওয়ার্ডের বিজেপি প্রার্থী এলাকারই বিজেপি বিধায়ক সুদীপ মুখোপাধ্যায় ওই মাংস বিলি করেছেন ভোটারদের কাছ থেকে ভোট আদায় করার জন্য। এদিন সকাল ১০টা নাগাদ খাজুড়িয়া এলাকায় প্রচারে গিয়েছিলেন সুদীপবনাবু। অভিযোগ, সেখানে ভোটারদের মন পেতে মাংস বিলি করেন তিনি। এক-একজন ভোটারকে ব্যাগ ভরতি মাংস নিয়ে যেতে দেখা যায়। ভোটারদের দাবি ওই মাংস সুদীপবাবুই দিয়েছেন। মাংস বিলির সেই ঘটনা দ্রুত সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে। ঘটনা হচ্ছে যে বিজেপি, দেশজুড়ে বার বার নিরামিষ খাওয়ার ধুয়ো তোলে সেই দলেরই প্রার্থীর বিরুদ্ধে এখন মাংস বিলির অভিযোগ ওঠায় কার্যত মুখ পড়ছে নরেন্দ্র মোদির দলের।

ঘটনার জেরে পুরুলিয়া পুরসভার প্রশাসক নবেন্দু মাহালি জানিয়েছেন, ‘বিধানসভা নির্বাচনের সময় ভোট কিনতে মদ-মাংস বিলি করেছেন বিজেপি প্রার্থী। ভোটারদের পিকনিক করতে টাকাও দিয়েছেন। এদিন মাংস বিলি করছেন বলেও খবর পেয়েছি। এটাই ওঁর সংস্কৃতি। কিন্তু এভাবে ভোট পাওয়া যাবে না। আগামিকালই নির্বাচন কমিশনে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হবে।’ যদিও সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করে সুদীপ মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন, ‘মাংস বিলির অভিযোগ একেবারে ভিত্তিহীন। আমি এভাবে ভোটারদের প্রভাবিত করি না। আমরা কাজ দিয়ে ভোটারদের প্রভাবিত করি।’ ঘটনার জেরে জেলার নির্বাচনী আধিকারিক তথা জেলাশাসক রাহুল মজুমদার জানিয়েছেন অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।   




Published by:

Ei Muhurte

Share Link:

More Releted News:

মহাকাশ বিজ্ঞান নিয়ে গবেষণায় নজর কাড়লেন বাঁকুড়ার অয়ন

রাজ্যের দুই প্রান্তে বৃষ্টির মধ্যে বাজ পড়ে মৃত্যু দুজনের

বিধাননগরের পুলিশ কমিশনার গৌরব শর্মা অপসারিত

সিলিকোসিস আক্রান্তদের চিকিৎসায় রাজ্য জুড়ে শিবির করবে স্বাস্থ্য দফতর

বিজেপির পার্টি অফিসে চলল চেয়ার ছোঁড়াছুড়ি, ধস্তাধস্তি, মারামারি

বদল হল এক্সপ্রেস ট্রেনের সময়সূচি, ভোগান্তিতে যাত্রীরা

Advertisement




এক ঝলকে
Advertisement




জেলা ভিত্তিক সংবাদ

দার্জিলিং

কালিম্পং

জলপাইগুড়ি

আলিপুরদুয়ার

কোচবিহার

উত্তর দিনাজপুর

দক্ষিণ দিনাজপুর

মালদা

মুর্শিদাবাদ

নদিয়া

পূর্ব বর্ধমান

বীরভূম

পশ্চিম বর্ধমান

বাঁকুড়া

পুরুলিয়া

ঝাড়গ্রাম

পশ্চিম মেদিনীপুর

হুগলি

উত্তর চব্বিশ পরগনা

দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা

হাওড়া

পূর্ব মেদিনীপুর