corona 01

ভিড়ে ঠাসা মিছিল বিনয়পন্থীদের! পাহাড়ে প্রশ্নের মুখে গুরুংয়ের প্রত্যাবর্তন

Share Link:

ভিড়ে ঠাসা মিছিল বিনয়পন্থীদের! পাহাড়ে প্রশ্নের মুখে গুরুংয়ের প্রত্যাবর্তন

নিজস্ব প্রতিনিধি: সুবাস ঘিসিংকে পাহাড় ছাড়া করেই উত্থান ঘটেছিল গুরুং-গিরি জুটির। সেদিন সুবাস কিন্তু বলে গিয়েছিলেন, তাঁকে যারা পাহাড় ছাড়া করছে তাঁদেরও একদিন এই পাহাড় ছেড়ে চলে যেতে হবে চিরতরে। সেদিন সুবাসের সেই কথা আজ চূড়ান্ত সত্য হয়ে দাঁড়িয়ে যেতে চলেছে বিমল গুরুং আর রোশন গিরির সামনে। কেননা তাঁর পাহাড়ে ফেরার পথে এখন চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়ে গেলেন বিনয় তামাং। এদিন হিমালয়ের রানীর বুকে হাজার দেড়েক মানুষের জমাট ভিড়ের মিছিল কার্যত বুঝিয়ে দিল পাহাড়ে ফেরার রাস্তা খুব একট সহজ হচ্ছে না গুরুং-গিরি জুটির পক্ষে। একই সঙ্গে এদিন এই ভিড়ের ছবি দেখে রাজ্য সরকার তথা রাজ্যের শাসক দলকেও হয়তো নতুন করে ভাবতে হবে গুরুং-গিরিকে নিয়ে।
 
ইতিহাস বার বার দেখিয়েছে, আমজনতাকে হাতের মুঠোয় নিয়ে যারাই স্বৈরাচার ও নৈরাজ্য কায়েমের পথে হেঁটেছে তাঁরাই জনতার হাতে চরম শিক্ষা পেয়েছেন যখন অত্যাচারিত, নিপীড়িত জনতা ঘুরে দাঁড়িয়ে পাল্টা আক্রমণের পথে হেঁটেছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পাহাড়ের বিচ্ছিন্নতাবাদী মতকে উন্নয়ন দিয়ে ঢেকে দিতে চেয়েছিলেন। কিন্তু বিজেপির প্ররোচনায় আর চরম ক্ষমতার লোভে গুরুং-গিরি জুটি উন্নয়নকে ঘরবন্দি করে পাহাড়ে হিংসার আগুন লাগিয়েছিলেন। মুখ্যমন্ত্রীর উন্নয়নে ভরসা না রেখে সিকিম, নেপাল ও দেশের অনান্য প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা গোর্খাদের কাচ থেকে সমর্থন আদায় করেছিলেন পৃথক গোর্খাল্যান্ড রাজ্য আদায়ের জন্য। সেই রাজ্য আদায়ের দাবিকে সামনে রেখে যা খুশি তাঁরা করে গিয়েছেন। সবকিছুর পিছনে ছিল বিজেপির সমর্থন। তারই জেরে পাহাড়ের বাসিন্দাকে দিনের পর দিন, সপ্তাহের পর সপ্তাহ, মাসের পর মাস বনধের মধ্যে দিয়ে কাটাতে হয়েছে। শেষে গুরুং-গিরি গা ঢাকা দিয়েছিলেন কিন্তু পাহাড়ের আর্থসামাজিক পরিকাঠামোতে যে ধাক্কা লেগেছিল তা আজও ঠিক হয়নি। স্বাভাবিক ভাবেই গুরুং-গিরি পাহাড়ে এখন রাজ্য সরকারের সমর্থনে ফিরতে চাইলেও যে চট করে ফিরতে পারবেন, এমনটা অনেকেই মনে করছিলেন না। এদিন সেই আশঙ্কাই কার্যত সত্যি বানিয়ে দিল বিনয়পন্থীদের মিছিল।
 
বিমল গুরুং কলকাতার বুকে বসে জানিয়েছিলেন, তিনি দ্রুত পাহাড়ে ফিরবেন। রাজ্য সরকারও তাতে কোনও আপত্তি জানায়নি। একই সঙ্গে গুরুং বলেছিলেন মোর্চা আর এনডিএতে নেই। তাঁদের সমর্থন এখন তৃণমূলের দিকে। রাজ্যের শাসক দলের সঙ্গেই জোট গড়ে তাঁরা আগামী বিধানসভা নির্বাচনে লড়াই করবেন। মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে তাঁরা রাজ্যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেই দেখতে চান। কিন্তু বিনয় তামাং চান না পাহাড়ে গুরুং-গিরি আবার পাহাড়ে ফিরুন। কার্যত গুরুং-গিরির পাহাড়ে ফেরা ঠেকাতেই এদিন গোর্খা জনমুখি মোর্চার বিনয়পন্থীরা দার্জিলিংয়ে একটি গুরুং বিরোধী মিছিলের ডাক দিয়েছিলেন। সেই ডাকেই এদিন দার্জিলিংয়ের সোনাদাতে হাজার দেড়েক মানুষের এক মিছিল বার হয়। মুখে ‘জয় গোর্খা’ স্লোগান, হাতে মোর্চার পতাকা নিয়ে সেই মিছিল ভিড় টানার বহরে বুঝিয়ে দেয় পাহাড় গুরুং-গিরি ফিরলে তাঁদের কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হবে। কারন পাহাড়ে আর তাঁদের একচ্ছত্র আধিপত্যবাদ আর নেই। স্বাভাবিক ভাবেই এদিনের মিছিলের পরে পাহাড়ে বা মোর্চায় গুরুং-গিরি জুটির নিয়ন্ত্রণ তথা প্রভাব নিয়ে প্রশ্ন উঠে গিয়েছে। শোনা যাচ্ছে বিনয়কে সমর্থন দিচ্ছে পাহাড়ে থাকা সবকটি রাজনৈতিক দলগুলি। তৃণমূল বাদ দিয়ে সমর্থন দিচ্ছে বাম-ডান পক্ষও। তাই গুরুং-গিরি ফিরলেও কতদিন তাঁরা পাহাড়ে থাকতে পারবেন তা নিয়ে যেমন প্রশ্ন উঠে গিয়েছে তেমনি প্রভাবহীন, ক্ষমতাহীন, গুরুং-গিরির সঙ্গে জোট করে আখেরে তৃণমূল নিজে কতটা রাজনৈতিক সুবিধা পাবে তা নিয়েও কিন্তু প্রশ্ন উঠে গিয়েছে।

2020 New Ad HDFC 04

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Comm Ad 2020-himalaya RC

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

corona 02

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

খিদিরপুর থেকে শুরু করে বেহালা, হরিদেবপুর,

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

মুদিয়ালী ছুঁয়ে সোধপুর পার্ক

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

বাবুবাগান হয়ে উদ্বোধনের যাত্রা শেষ হল একডালিয়া,

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

হিন্দুস্থান পার্ক, ত্রিধারার চত্বরে এসে।

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

#

Voting Poll (Ratio)

2020 New Ad HDFC 05

Editors Choice

Comm Ad 008 Myra