Puja21-Ad02

দিঘার দরজা খুলে গেল পর্যটকদের জন্য! হচ্ছে না ধর্মঘট

Share Link:

দিঘার দরজা খুলে গেল পর্যটকদের জন্য! হচ্ছে না ধর্মঘট

নিজস্ব প্রতিনিধি: সঙ্কটের হল অবসান। কোভিডের তৃতীয় ঢেউ যখন আসবো আসবো করছে ঠিক তখনই আবারও দিঘার দরজা খুলে গেল পর্যটকদের জন্য। রাজ্যের এই সৈকত নগরীতে আসার জন্য আর বাধ্যতামূলক থাকলো না কোভিডের জোড়া ভ্যাক্সিন বা আরটিপিসিআর টেস্টের নেগেটিভ রিপোর্ট। এই দুটি ছাড়াও এবার দিঘায় আসতে পারবেন পর্যটকেরা। তবে হোটেলে ঢোকার আগে করতেই হবে কোভিড টেস্ট। আর তা করার ব্যবস্থা রাখছে হোটেল কর্তৃপক্ষ। শুক্রবার রাতে পূর্ব মেদিনীপুরের জেলা শাসকের সঙ্গে এক বৈঠকে বসেন দিঘা-শঙ্করপুর হোটেলিয়ার্স অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধিরা। সেখানেই এই সমাধান সূত্র উঠে আসায় এদিন থেকেই দিঘার সব হোটেল পুনরায় খুলে গিয়েছে। হচ্ছে না কোনও হোটেল ধর্মঘটও। তবে এই ঘটনায় উদ্বিগ্ন রাজ্যের চিকিৎসক, বিশেষজ্ঞ ও সচেতন নাগরিকেরা। কেননা এই পদ্ধতিতে আবারও দিঘায় পর্যটকদের ভিড় উপচে পড়তে চলেছে।
 
কোভিড কালে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার কাঁথির মহকুমা শাসক দিঘায় পর্যটকদের ভিড় ঠেকাতে কার্যত তুঘলকি সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। হুট করেই ঘোষণা করে দিয়েছিলেন, কোভিডের দুটি ভ্যাক্সিন নেওয়া না থাকলে বা আরটিপিসিআর টেস্টের নেগেটিভ রিপোর্ট না থাকলে কোনও পর্যটকই দিঘার কোনও হোটেল বুক করতে পারবেন না। সেই নির্দেশের জেরেই দিঘায় পর্যটক আসা বন্ধ হয়ে যায়। এমনকি পুলিশ প্রশাসন থেকে অনেক পর্যটককে দিঘাতে ঢোকার মুখে বা মাঝ পথ থেকেও ফিরিয়ে দেওয়া হয়। একই ব্যবস্থা লাগু করা হয় মন্দারমণি, তাজপুর, শান্তিনিকেতন, তারাপীঠ মায় ডুয়ার্সের সব পর্যটনকেন্দ্রে। এরফলে কার্যত রাজ্য জুড়ে পর্যটন শিল্পের ওপর নিদারুণ আঘাত নেমে আসে। কয়েক লক্ষ মানুষের রুটি রুজিতে আঘাত পড়ে। এর জেরেই শুরু হয় প্রতিবাদ। সেই প্রতিবাদে সবার আগে সামিল হন দিঘা-শঙ্করপুর হোটেলিয়ার্স অ্যাসোসিয়েশনের আওতায় থাকা হোটেল ব্যবসায়ীরা। কেননা তাঁদের ওপর অর্থনৈতিক চাপ পড়ছিল সব থেকে বেশি। হোটেল খোলা থাকায় বিদ্যুতের খরচ তো ছিলই, কর্মচারীদের খরচও ছিল।
 
এই অবস্থায় দিঘা, মন্দারমণি ও তাজপুরের হোটেল ব্যবসায়ীরা একযোগে অনির্দিষ্টকালের জন্য সব হোটেল ও রিসর্ট বন্ধ রাখার কথা ঘোষণা করেন। পূর্ব মেদিনীপুর হোটেলিয়ার্স অ্যাসোসিয়েশনও সেই ধর্মঘটকে সমর্থন করে। ফলে বৃহষ্পতিবার থেকেই পূর্ব মেদিনীপুর জেলার সব হোটেলে ঝাঁপ বন্ধ হয়ে যায়। এর জেরে চাপে পড়ে জেলা তথা রাজ্য প্রশাসনও। শুক্রবার সকাল থেকেই তাই শুরু হয় দফায় দফায় দুই পক্ষের আলোচনা। প্রথমে ঠিক হয়েছিল কোভিড ভ্যাক্সিনের একটি ডোজ নেওয়া থাকলেও দিঘায় আসার ক্ষেত্রে ছাড়পত্র মিলবে। কিন্তু তাতেও যে সঙ্কট কাটবে না সেটা বুঝতে পেরে হোটেল ব্যবসায়ীরা ধর্মঘটের সিদ্ধান্তেই অনড় থাকেন। শেষে ঠিক হয় কোভিড টেস্ট করানো না থাকলেও পর্যটকেরা দিঘায় আসতে পারবেন আগের মতোই। তবে হোটেলে ঢোকার সময়ে তাঁদের সবাইকে কোভিড টেস্ট করাতে হবে। সেই টেস্টের জন্য হোটেল থেকেই ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে। হোটেল মালিকেরা নিজেরাই কোভিড টেস্টের কিট কিনে রাখবেন। তা দিয়েই এই টেস্ট করা হবে। তবে এই টেস্টে কারা নমুণা সংগ্রহ করবেন তা যেমন এখনও পরিষ্কার নয়, তেমনি এই টেস্টের জন্য পর্যটকদের বাড়তি কত টাকা গুণতে হবে সেটাও পরিষ্কার নয়। তবে ওই টেস্টে কেউ পজিটিভ হলে তাঁকে সঙ্গে সঙ্গে স্বাস্থ্যকেন্দ্রে পাঠিয়ে দেওয়া হবে।
 
সেই শর্ত মেনেই এদিন সকাল থেকেই দিঘা, মন্দারমণি, শঙ্করপুর, তাজপুরে ফের খুলে গিয়েছে সব হোটেল। তবে এদিনও সৈকত ছিল পর্যটক শূন্য। তবে হোটেল ব্যবসায়ীদের আশা আগামী ২-৩ দিনের মধ্যেই দিঘায় ফের ভিড় জমাতে শুরু করে দেবেন পর্যটকেরা। তবে জেলা প্রশাসনের তরফে সব হোটেল মালিকদের জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, ৫০ শতাংশ ঘরই ব্যবহার করা যাবে পর্যটকদের জন্য। বাকি ঘর খালি রাখতে হবে। এদিন এই বিষয়ে দিঘা-শঙ্করপুর উন্নয়ন পর্ষদের ভাইস চেয়ারম্যান তরুণ জানা জানিয়েছেন, ‘জেলাশাসকের সঙ্গে আলোচনার পরেই হোটেল বন্ধের সিদ্ধান্ত থেকে হোটেল মালিকরা সরে এসেছেন। হোটেল মালিকদের দাবি মতো সব হোটেল কর্মীকেই বিনামূল্যে সরকারের তরফে ভ্যাক্সিন দেওয়া হবে। প্রায় সাড়ে তিন হাজার হোটেলকর্মী রয়েছেন যাঁদের এখন ভ্যাকসিনেশন করা সম্ভব হয়নি। জেলা প্রশাসনের তরফে দায়িত্ব নিয়ে স্বাস্থ্য দফতরের পক্ষ থেকে দ্রুত এই সমস্ত হোটেল কর্মীদের খুব তাড়াতাড়ি ভ্যাক্সিন দেওয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। পর্যটকদের মধ্যেও সচেতনতা বাড়াতে লাগাতার প্রচার চালানো হবে।’

WBLDC Adv 004

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

WBLDC Adv 006

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

WBLDC Adv 006

নিউ ইয়র্কে শুরু হল মেট গালা ২০২১। নিউইয়র্কে এই অনুষ্ঠানে ছিল তারকাদের ভিড়। ফ্যাশন, স্টাইল ও দুর্দান্ত ডিজাউনে সব তারকারা হাজির হয়েছিলেন বিচিত্র সব পোশাক পরে। মেট গালার রেড কার্পেটে হাঁটার জন্য কী পরবেন সেলেবরা, তার প্রস্তুতি চলতে থাকে বছরের পর বছর ধরে। করোনার কারণে গত বছর আসরটি বসেনি। তাই এবার যেন তারার মেলা বসে গিয়েছিল।

নিউ ইয়র্কে শুরু হল মেট গালা ২০২১। নিউইয়র্কে এই অনুষ্ঠানে ছিল তারকাদের ভিড়। ফ্যাশন, স্টাইল ও দুর্দান্ত ডিজাউনে সব তারকারা হাজির হয়েছিলেন বিচিত্র সব পোশাক পরে। মেট গালার রেড কার্পেটে হাঁটার জন্য কী পরবেন সেলেবরা, তার প্রস্তুতি চলতে থাকে বছরের পর বছর ধরে। করোনার কারণে গত বছর আসরটি বসেনি। তাই এবার যেন তারার মেলা বসে গিয়েছিল।

দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন লিল নাসকের রাজকীয় পোশাক। সোনালি সুপারহিরোর পোশাকে হাজির ছিলেন তিনি।

দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন লিল নাসকের রাজকীয় পোশাক। সোনালি সুপারহিরোর পোশাকে হাজির ছিলেন তিনি।

সম্পূর্ণ কালো পোশাক নজর কাড়লেন কিম কারদাশিয়ান।

সম্পূর্ণ কালো পোশাক নজর কাড়লেন কিম কারদাশিয়ান।

রালফ লরেনের তৈরি পশমের পোশাকে ধরা দিয়েছেন জেনিফার লোপেজ। সঙ্গে ছিলেন বেন অ্যাফ্লেক। এ বার সামাজিক অনুষ্ঠানেও দেখা দিলেন যুগলে। মেট গালা ২০২১-এর হোয়াইট কার্পেটে অবশ্য আলাদাই হাঁটলেন জেনিফার ও বেন। ভিতরে গিয়ে মাস্ক পরেই চুম্বনে মগ্ন হলেন দুই তারকা।

রালফ লরেনের তৈরি পশমের পোশাকে ধরা দিয়েছেন জেনিফার লোপেজ। সঙ্গে ছিলেন বেন অ্যাফ্লেক। এ বার সামাজিক অনুষ্ঠানেও দেখা দিলেন যুগলে। মেট গালা ২০২১-এর হোয়াইট কার্পেটে অবশ্য আলাদাই হাঁটলেন জেনিফার ও বেন। ভিতরে গিয়ে মাস্ক পরেই চুম্বনে মগ্ন হলেন দুই তারকা।

সুপার মডেল ইমন চমত্কার পালকযুক্ত স্বর্ণ এবং বেইজ হেডড্রেস এবং স্কার্ট বেছে নিয়েছিল। মাথার পিছনে বসানো সাদা আর সোনালি হেড পিস দেখাল চক্রের মতো।

সুপার মডেল ইমন চমত্কার পালকযুক্ত স্বর্ণ এবং বেইজ হেডড্রেস এবং স্কার্ট বেছে নিয়েছিল। মাথার পিছনে বসানো সাদা আর সোনালি হেড পিস দেখাল চক্রের মতো।

Voting Poll (Ratio)

2020 New Ad HDFC 05
WBLDC Adv 015