Comm Ad 2020-Valentine body

শুভেন্দুর ইস্তফার পরেই খেজুরিতে হামলা বিজেপির! পথ অবরোধ তৃণমূলের

Share Link:

শুভেন্দুর ইস্তফার পরেই খেজুরিতে হামলা বিজেপির! পথ অবরোধ তৃণমূলের

নিজস্ব প্রতিনিধি: ঘটনার ঘনঘটায় পূর্ব মেদিনীপুর। উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে খেজুরি। নেপথ্যে অবশ্যই বিজেপির হানাদারি। কিন্তু সেটা এমন একটা সময়ে হয়েছে যখন জেলার ভূমিপুত্র ইস্তফা দিয়ে দিয়েছেন রাজ্যের মন্ত্রীসভা থেকে এবং রাজ্য রাজনীতিতে তুমুল জল্পনা চলছে তাঁর গেরুয়া শিবিরের যোগদান নিয়ে। স্বাভাবিক ভাবেই ঘটনার জেরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে পূর্ব মেদিনীপুরে। কিন্তু তার থেকেই বেশি ছড়িয়েছে খেজুরীবাসীর আতঙ্ক। কারন শুক্রবার রাত থেকে খেজুরিতে ৭-৮টি জায়গায় তৃণমূলের কার্যালয়ে, তৃণমূল সমর্থক ও কর্মীদের বাড়িতে যেভাবে হামলা চালানো হয়েছে বা তৃণমূলের কার্যালয় দখল করা হয়েছে তাতে এলাকার মানুষ সেই বামজমানার হার্মাদ আক্রমণের মিলটাই খুঁজে পেয়েছেন। তাঁরা আর কোনওমতেই হার্মাদ শাসন চান না।

জানা গিয়েছে, শুক্রবার রাত থেকেই খেজুরির দুটি ব্লকের ৭-৮টি জায়গায় হামলা চালায় দুষ্কৃতীরা। স্থানীয় বাসিন্দা ও তৃণমূলকর্মীদের অভিযোগ বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরাই এই হামলা চালিয়েছে। কার্যত শুক্রবার রাতভর দফায় দফায় সেই হামলা চালানো হয়। সাধারন মানুষের অভিযোগ, বাম জমানায় হার্মাদরা যেভাবে হামলা চালাও ঠিক সেভাবেই এই হামলা চালানো হয়েছে তৃণমূলের কার্যালয়ে, তৃণমূল সমর্থক ও কর্মীদের বাড়িতে। এদিন সকালে তৃণমূলের তরফে জানানো হয়েছে খেজুরির দুটি ব্লকে থাকা তাঁদের মোট ৬টি কার্যালয়ের দখল নিয়েছে গেরুয়া শিবিরের লোকজন। এদিন সকালে সেই সব কার্যালয় উদ্ধার করতে গিয়েও অসফল হতে হয়েছে রাজ্যের শাসক শিবিরের নেতাদের। পরিবর্তে তৃণমূলকর্মীরা হেঁড়িয়া-বোগা সড়কে মিঁয়া মোড়ে অবরোধ শুরু করেন। জোড়া ফুল শিবিরের দাবি, শুক্রবার রাত থেকে খেজুরির বীরবন্দর, পাটনা, কণ্ঠীবাড়ি এলাকার তাঁদের মোট ৬টি দলীয় কার্যালয়ে এই হামলার ঘটনা ঘটেছে। ভাঙচুর চালিয়ে সেখানে বিজেপির পতাকা টাঙিয়ে দেওয়া হয়েছে।

এদিন সকাল থেকে অবশ্য এলাকায় পুলিশি তৎপরতা শুরু হয়েছে। খেজুরি থানার বিশাল পুলিশ বাহিনী এদিন ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে। তবে বিজেপির হাতে চলে যাওয়া কার্যালয়ের দখল এখনও ফেরত পায়নি তৃণমূল। উল্টে শুভেন্দু ঘনিষ্ঠ শিবিরের দাবি, খেজুরির ঘটনা সিনেমার আগে ট্রেলার মাত্র। জননেতার দলবদলের ঘটনা ঘটে গেলে পূর্ব মেদিনীপুরের রঙও বদলে যাবে। তখন কোথাও আর ঘাসফুলের কার্যালয় চোখে পড়বে না। সব জায়গাতেই পত পত করে উড়বে গেরুয়া ধ্বজ্জা। তবে খেজুরির ঘটনায় নিজেদের নির্দোষ বলে দাবি চালিয়েছে বিজেপি। এদিন বিজেপির কাঁথি সাংগঠনিক জেলার সাধারণ সম্পাদক তাপসকুমার দোলুই বলেন, ‘পার্টি অফিস দখলের ঘটনার তীব্র নিন্দা করছি। ভারতীয় জনতা পার্টি দখলদারির রাজনীতি করে না। এই ঘটনার সঙ্গে আমাদের কোনও যোগসাজসই নেই। তৃণমূলের গোষ্ঠী বিবাদের জেরেই এমন ঘটনা। ক্ষমতায় থেকেও কেন রাস্তায় নেমে তৃণমূল কর্মীদের দলীয় দফতর রক্ষার আন্দোলন করতে হচ্ছে তৃণমূলের নেতানেত্রীরা এবার একটু ভাবুক।’ এই একই বিষয়ে সরব হয়েছেন খেজুরির বীরবন্দর অঞ্চল তৃণমূল সভাপতি শেখ নুরসেদ আলি। এদিন তিনি অভিযোগ তুলে বলেন, ‘বিজেপি-র বাইক বাহিনী রাতের অন্ধকারে এসে আমাদের পার্টি অফিস ভাঙচুর করেছে। আগুন ধরিয়েছে। পার্টি অফিসগুলিতে বিজেপির দলীয় পতাকা লাগিয়েছে। অথচ প্রশাসন শুধু বলছে, বিষয়টি দেখছি। আমরা শাসকদলে থেকেও পুলিশ-প্রশাসনের সহযোগিতার অভাব অনুভব করছি। আমাদের দাবি, অবিলম্বে বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীদের গ্রেফতার করতে হবে। পুলিশ উপযুক্ত ব্যবস্থা না নিলে বৃহত্তর আন্দোলনে নামবো আমরা’।
 
তৃণমূল কর্মী ও সমর্থকদের অভিযোগ, সিপিএমের এলাকা দখলের ধাঁচেই বাইকবাহিনীকে সামনে রেখে খেলা শুরু করেছে বিজেপি। শুক্রবার রাতে এলাকায় হামলা চালানোর পাশাপাশি স্থানীয় কয়েকজন তৃণমূল কর্মীকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে বিজেপিতে যোগদানের জন্য চাপ দেওয়া হয়। যদিও তাতে কাজ না হওয়ায় এদিন সকালে তাঁদের ছেড়েও দেয়। এদিন জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব গোটা ঘটনা জানার পরে পুলিশের ভূমিকার তীব্র নিন্দা করেছে। পুলিশ সময়মতো পদক্ষেপ নিলে তাঁদের এতগুলো কার্যালয়ে বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা হামলা চালাতে পারত না, দখল করেও রাখতে পারতো না।

Comm Ad 2020-WB Tourism body

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

2020 New Ad HDFC 05

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 2020-LDC Egg

কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের  সমাপ্তি অনুষ্ঠান

কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের সমাপ্তি অনুষ্ঠান

#

#

#

#

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 006 TBS
Comm Ad 2020-WB Tourism RC