এই মুহূর্তে

WEB Ad Valentine 3

WEB Ad_Valentine

কাটোয়া-কালনা মহকুমাজুড়ে ৮টি Mega Handloom Cluster গড়ছে রাজ্য

Courtesy - Facebook and Google

নিজস্ব প্রতিনিধি: তাঁতশিল্পে আধুনিকতার প্রসার ঘটাতে পূর্ব বর্ধমান(Purba Burdwan) জেলার কাটোয়া ও কালনা মহকুমাজুড়ে(Katwa and Kalna Sub Division) Mega Handloom Cluster গড়তে চলেছে রাজ্যের ক্ষমতাসীন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের(Mamata Banerjee) সরকার। আধুনিক ডাইং, প্রিন্টিং, ডিজাইনিং সহ তাঁত শিল্পের সব ধরনের সুবিধা থাকবে ক্লাস্টারগুলিতে। এই Cluster গড়ে উঠলে এই দুই মহকুমার প্রায় ৩০ হাজার তাঁতশিল্পী উপকৃত হবেন। একই সঙ্গে এই জেলারই কেরুগ্রামের নিরোলে Handloom Craft Village গড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্যের বস্ত্র দফতর। প্রাথমিক ভাবে জানা গিয়েছে, কাটোয়া ও কালনা মহকুমায় মোট ৮টি Mega Handloom Cluster গড়া হবে। এরজন্য ৩৪ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে।  

রাজ্যের বস্ত্র দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, পূর্ব বর্ধমান জেলায় ৯০ হাজার ৯৮৯ জন তাঁত শিল্পী রয়েছেন। আরও প্রায় ৩৯ হাজার মানুষ এই শিল্পের সঙ্গে বিভিন্ন ভাবে জড়িয়ে রয়েছেন। যার মধ্যে কালনা মহকুমাতেই শিল্পীর সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। শাড়ি, ধুতি, মোটা কাউন্টের লুঙ্গি, সুতো, সিল্ক স্কার্ফ, তাঁত কাপড়ের পাশাপাশি জামদানি ও টাঙ্গাইল শাড়িও উৎপাদন হয় কালনায়। Mega Handloom Cluster গড়ে উঠলে জেলার তাঁতশিল্পীরা ক্লাস্টারগুলির প্রিটিং ইউনিট, ডাইং ইউনিট, ডিজাইন ইউনিট, প্রি ও পোস্টলুম ইউনিটগুলিতে গিয়ে সরাসরি কাজ করতে পারবেন। একই সঙ্গে কাটোয়া-১ ব্লকের পানুহাটে ও পূর্বস্থলী-১ ব্লকে একটি করে Common Facility Center গড়া হবে। শ্রীরামপুরের সেন্টারটির যে কাজ বাকি রয়েছে তা শেষ করা হবে। ধাত্রীগ্রামের তাঁতহাটে প্রিন্টিং, ডাইং ইউনিট খোলা হবে। কাটোয়ার পানুহাটে, কালনার ধাত্রীগ্রামে, জিউধারায়, Manufacturing Unit ও Handloom Cluster গড়া হবে। সেখানে ৫০টি করে Stitching Machine থাকবে।

একইসঙ্গে জানা গিয়েছে, ধাত্রীগ্রামে তাঁতের হাটে Design and Sample Development Centre খোলা হবে। সেখানে Production Development, Integrated Design Studyও থাকবে। এছাড়াও নিরোলে Handloom Craft Village গড়ার প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। সেখানে ক্যাফেটারিয়া সহ ডরমেটরি নির্মাণ করা হবে, যাতে সতীপীঠ অট্টহাস যাওয়ার রাস্তায় পর্যটকরা তাঁতের সামগ্রী কেনাকাটা করতে পারেন। নিরোলে বহু তাঁতশিল্পী রয়েছেন। গ্রামের তাঁতের ঐতিহ্যকে তুলে ধরার জন্য গ্রামজুড়ে কাজ করবে রাজ্য সরকার। ধাত্রীগ্রামে তাঁতের শাড়িতে রং করার ইউনিট খুললে শিল্পীদের খুব সুবিধা হবে। কারণ এখন রং করার জন্য হুগলির শ্রীরামপুরে ছুটতে হয় তাঁতশিল্পীদের। জেলায় তাঁতশিল্পের প্রসার ঘটলে তাঁতিরা অর্থনৈতিক ভাবে চাঙ্গা হবেন।

Published by:

Ei Muhurte

Share Link:

More Releted News:

চাষের জমিতে বিদ্যুতের ছেঁড়া তার জড়িয়ে মৃত্যু দুই কৃষকের

১জুন শেষ দফার ভোটের দিন কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গে ঝড়-বৃষ্টির পূর্বাভাস জারি

ভক্তিনগর থানার পুলিশ গৃহস্থ বাড়ির ভেতর থেকে খোঁজ পেল জুয়ার বোর্ডের, গ্রেফতার ১১

রিমল ঘূর্ণিঝড়ের দাপটে নদিয়াতে ব্যাপক ক্ষতি আখ ও কলা গাছের

কৃষ্ণগঞ্জে তিন দিন ধরে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন সীমান্তবর্তী বানপুর প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্র

রথযাত্রার আগেই মুখ্যমন্ত্রীর হাতেই উদ্বোধনের সম্ভাবনা দিঘার জগন্নাথ মন্দিরের

Advertisement
এক ঝলকে
Advertisement

জেলা ভিত্তিক সংবাদ

দার্জিলিং

কালিম্পং

জলপাইগুড়ি

আলিপুরদুয়ার

কোচবিহার

উত্তর দিনাজপুর

দক্ষিণ দিনাজপুর

মালদা

মুর্শিদাবাদ

নদিয়া

পূর্ব বর্ধমান

বীরভূম

পশ্চিম বর্ধমান

বাঁকুড়া

পুরুলিয়া

ঝাড়গ্রাম

পশ্চিম মেদিনীপুর

হুগলি

উত্তর চব্বিশ পরগনা

দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা

হাওড়া

পূর্ব মেদিনীপুর