2020 New Ad HDFC 04

শুভেন্দুর মন্তব্যে ক্ষুব্ধ বাংলার সঙ্গীতজগত! অস্বস্তি গেরুয়া শিবিরেও

Share Link:

শুভেন্দুর মন্তব্যে ক্ষুব্ধ বাংলার সঙ্গীতজগত! অস্বস্তি গেরুয়া শিবিরেও

নিজস্ব প্রতিনিধি: যুক্তিতর্কের বিরোধীতা চিরকালই সবার কাছেই গ্রহণযোগ্য। কার্যত সেটাই হওয়া উচিত। কিন্তু অন্ধ বিরোধিতা করে বিদ্বেষ ছড়ানো ছাড়া আর কিছুই করা যায় না। সেই সত্যই কার্যত প্রতিষ্ঠা করে দিলেন শুভেন্দু অধিকারী। জোড়াফুল শিবির ছেড়ে গেরুয়া শিবিরে পা রাখা এই নেতা ইদানিং কালে তাঁর তৃণমূল বিরোধিতাকে কার্যত নিত্যদিন তুঙ্গে নিয়ে যাচ্ছেন। আর এই অন্ধ তৃণমূল বিরোধিতা করতে গিয়েই এবার নিজেকে তো বিতর্কে জড়ালেনই, বিজেপিকেও অস্বস্তিতে ফেলে দিলেন। ইন্দ্রনীল সেনকে ঘিরে শুভেন্দু অধিকারীর 'কাটমানি' মন্তব্যে বেজায় ক্ষুব্ধ বাংলার সঙ্গীতমহল। সেই ক্ষোভ এতটাই চড়েছে যে শিল্পীরা রাস্তায় নেমে এই মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ করারও কথা জানিয়েছেন। আর বাংলার শিল্পীমহলের এই ক্ষোভের জেরে কিছুটা হলেও অস্বস্তি ছড়িয়েছে গেরুয়া শিবিরেও। কার্যত তৃণমূলকে বিপাকে ফেলতে গিয়ে এখন শুভেন্দু নিজেই পড়ে গিয়েছেন বিপাকে। সঙ্গে গেরুয়া শিবিরকেও ঠেলে দিয়েছেন ব্যাকফুটে।

গত মঙ্গলবার হুগলি জেলার চন্দননগরের সার্কাস মাঠে বিজেপির এক জনসভায় যোগ দিয়েছিলেন শুভেন্দু। সেখানেই তিনি রাজ্যের তথ্য ও সংস্কৃতি দফতরের প্রতিমন্ত্রী ইন্দ্রনীল সেনের বিরুদ্ধে কুরুচিকর মন্তব্য করেন। ভেবেছিলেন হয়তো, এই মন্তব্যের জেরে রাজ্যের মন্ত্রী তথা ওই এলাকার বিধায়ক বিপাকে পড়বে। কিন্তু বাস্তবে হয়েছে ঠিক তার উল্টো। শুভেন্দুর মন্তব্যে যতটা না ইন্দ্রনীল সেন ক্ষুব্ধ হয়েছেন তার থেকেও বেশি ক্ষোভ ছড়িয়েছে রাজ্যের সঙ্গীত শিল্পীদের মধ্যে। তার জেরে ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় কার্যত শুভেন্দুর মুণ্ডপাত হওয়া শুরু হয়ে গিয়েছে। এর পাশাপাশি অনেক শিল্পীই এই মন্তব্যের জেরে রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করার কথা জানিয়েছেন। মঙ্গলবার চন্দনগরের ওই জনসভা থেকে শুভেন্দু বলেছিলেন, 'এখানকার যিনি ছিন্নমূল বিধায়ক, তিনি যখন যে পার্টি ক্ষমতায় থাকে, তাদের ধরে থাকেন। নন্দীগ্রামে আমরা যখন আন্দোলন করছিলাম, উনি বুদ্ধবাবুর পিছনে ঘুরতেন। এখন তৃণমূলে। ইনি গায়ক-গায়িকাদের থেকে সঙ্গীতমেলায় কাটমানি নেন। আমাকে অনেক গায়ক-গায়িকা এ কথা বলেছেন।'

শুভেন্দুর এই মন্তব্যের বিরুদ্ধেই সোচ্চার হয়েছেন বাংলার সঙ্গীতশিল্পীরা। তাঁদের মতে কোনওদিনই তাঁদের কাছে এমন কোনও প্রস্তাব আসেনি। সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকেই এই নিয়ে কার্যত গর্জে উঠেছেন। তাঁদের অনেকেই একমত যে, এ শুধু মন্ত্রীকে অপমান নয়, সমগ্র সঙ্গীত জগতের অপমান। শিল্পী রূপঙ্কর বাগচী লিখেছেন, 'সঙ্গীতমেলায় যতবার পারফর্ম করেছি কোনও কাটমানি কেউ নেননি, ইন্দ্রনীল সেন আমার সিনিয়র, ওনার থেকে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন পরামর্শ পেয়েছি।' শিল্পী রাঘব চট্টোপাধ্যায় বলেন,'যতবার পারফর্ম করেছি সম্মানের সঙ্গেই পারিশ্রমিক পেয়েছি।' শিল্পী মনোময় ভট্টাচার্য জানান, 'ইন্দ্রনীল সেন আমার অগ্রজ শিল্পী। সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক ব্যক্তি হিসেবে আমি বলছি, সঙ্গীতমেলায় আমি বরাবর আমার পারিশ্রমিক পেয়েছি। ওঁর সম্পর্কে এই মন্তব্য ভুল।' গায়িকা ইমন চক্রবর্তী জানিয়েছেন, '২০১১ সালের পরেও আমি গানমেলা থেকে যোগ্য সম্মান আর পারিশ্রমিক পেয়েছি। আর ইন্দ্রনীল’দা শুধু শিল্পী নন। একজন ভাল মানুষও। সে পরিচয়ও বার বার পেয়েছি।' গায়ক সুরজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায়ের ফেসবুক পোস্ট বলছে, ‘শুধু বাংলা সঙ্গীতমেলা নয়, রাজ্য সরকার এবং তার তথ্য ও সংস্কৃতি বিভাগের কোনও অনুষ্ঠানেই আজ অবধি কোনও কাটমানির এতটুকু আভাসও কেউ কখনও দেয়নি। বরং তারা সবসময় পরিচিত, কম পরিচিত, প্রতিষ্ঠিত এবং নতুন— সমস্ত শিল্পীদের এবং যন্ত্রশিল্পীদের সঙ্গে নিয়ে চলার চেষ্টা করে। আমার সঙ্গে সমস্ত শিল্পীরা যে এই নিয়ে আমার সঙ্গে সহমত হবেন, তা নিয়ে আমার কোনও সন্দেহ নেই’।
 
সঙ্গীতশিল্পী রাঘব চট্টোপাধ্যায়ও ফেসবুকে পোস্ট করে জানিয়েছেন, শিল্পীরা গানমেলায় কোনও ভাবেই কাটমানির শিকার হননি। তিনি লিখেছেন, 'আমিও আমার সাম্মানিক সময়মতোই পেয়েছি।' সঙ্গীতশিল্পী গার্গী ঘোষ একটি ভিডিয়ো ফেসবুকে পোস্ট করে শুভেন্দুর মন্তব্যের তীব্র প্রতিবাদ করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, গানমেলায় সমস্ত সঙ্গীতশিল্পীর অ্যাকাউন্টে সরাসরি টাকা পাঠিয়ে দেওয়া হয়। কাটমানির প্রশ্নই নেই। তাঁর কথায়, 'ওই মন্তব্য অত্যন্ত কুরুচিকর। শুভেন্দু অধিকারী যদি প্রমাণ করতে না পারেন যে, ইন্দ্রনীল সেন কাটমানি নেন, তাহলে তাঁকে জনসমক্ষে ক্ষমা চাইতে হবে। নয়তো শিল্পীরা প্রতিবাদে রাস্তায় নামবেন।' তাঁর এই মন্তব্যের সঙ্গে একমত শিল্পী পর্ণাভ বন্দ্যোপাধ্যায়ও। আর এই শিল্পীদের সন্মিলিত চাপেই এখন দিশাহারা গেরুয়া শিবির। বাংলার ক্ষমতা দখলের জন্য কোমর বেঁধে নামতে গিয়ে যখন গেরুয়া শিবির বাংলার শিল্পী ও বিশিষ্টজনদের সমর্থন চাইছে ঠিক তখন শুভেন্দুর মন্তব্যের জেরে উদ্ভূত পরিস্থিতি কার্যত বিপরীত দিকে তাঁদের ঠেলে দিয়েছে। শিল্পীরাই বিজেপির বিরুদ্ধে রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করার দাবি তুলেছেন।

Comm Ad 005 TBS

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Comm Ad 026 BM

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 2020-LDC Momo

সরকারের হাত ধরে সল্টলেকের বুকে চালু হয়েছে প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্র। যেখানে মিলবে পোষ্যদের চিকিৎসা পরিষেবা।

সরকারের হাত ধরে সল্টলেকের বুকে চালু হয়েছে প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্র। যেখানে মিলবে পোষ্যদের চিকিৎসা পরিষেবা।

সল্টলেকের প্রাণী সম্পদ বিকাশ ভবন প্রাঙ্গণেই এই নতুন প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্রের এদিন উদ্বোধন করেছেন রাজ্যের প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ।

সল্টলেকের প্রাণী সম্পদ বিকাশ ভবন প্রাঙ্গণেই এই নতুন প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্রের এদিন উদ্বোধন করেছেন রাজ্যের প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ।

এদিনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ ও স্থানীয় বিধায়ক তথা রাজ্যের দমকলমন্ত্রী সুজিত বসু।

এদিনের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ ও স্থানীয় বিধায়ক তথা রাজ্যের দমকলমন্ত্রী সুজিত বসু।

এই পশু স্বাস্থ্যকেন্দ্রে মিলবে ইসিজি, আল্ট্রাসোনোগ্রাফি, রক্ত সিরামের বিভিন্ন পরীক্ষা, পরজীবী সংক্রমণ সংক্রান্ত খুঁটিনাটি বিশ্লেষণ, আধুনিক শল্য চিকিৎসার যাবতীয় সুযোগসুবিধা।

এই পশু স্বাস্থ্যকেন্দ্রে মিলবে ইসিজি, আল্ট্রাসোনোগ্রাফি, রক্ত সিরামের বিভিন্ন পরীক্ষা, পরজীবী সংক্রমণ সংক্রান্ত খুঁটিনাটি বিশ্লেষণ, আধুনিক শল্য চিকিৎসার যাবতীয় সুযোগসুবিধা।

 আগামী দিনে এই স্বাস্থ্য কেন্দ্রে মিলবে পোষ্যদের চোখ, কান ও দাঁতের পরীক্ষা পরিষেবাও।

আগামী দিনে এই স্বাস্থ্য কেন্দ্রে মিলবে পোষ্যদের চোখ, কান ও দাঁতের পরীক্ষা পরিষেবাও।

প্রায় ১ কোটি টাকা ব্যায়ে এই নবনির্মিত পশু চিকিৎসালয় তৈরি করা হয়েছে।

প্রায় ১ কোটি টাকা ব্যায়ে এই নবনির্মিত পশু চিকিৎসালয় তৈরি করা হয়েছে।

সারা রাজ্যে প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের অধীনে ১০৪টি রাজ্য প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্র, ৮টি পলিক্লিনিক, ৩৪২টি ব্লক প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও ২৭২টি অতিরিক্ত ব্লক প্রাণী স্বাস্থ্য কেন্দ্র চালু থাকলো বাংলার বুকে।

সারা রাজ্যে প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের অধীনে ১০৪টি রাজ্য প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্র, ৮টি পলিক্লিনিক, ৩৪২টি ব্লক প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও ২৭২টি অতিরিক্ত ব্লক প্রাণী স্বাস্থ্য কেন্দ্র চালু থাকলো বাংলার বুকে।

সল্টলেক ও আশেপাশের এলাকার বাসিন্দাদের কাছে বিশেষ করে যাদের বাড়িতে ছোট পোষ্য থাকে তাঁদের ক্ষেত্রে অনেকটাই সমস্যার সমাধান হয়ে যেতে চলেছে এই নবনির্মীত প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি।

সল্টলেক ও আশেপাশের এলাকার বাসিন্দাদের কাছে বিশেষ করে যাদের বাড়িতে ছোট পোষ্য থাকে তাঁদের ক্ষেত্রে অনেকটাই সমস্যার সমাধান হয়ে যেতে চলেছে এই নবনির্মীত প্রাণী স্বাস্থ্যকেন্দ্রটি।

পূর্বস্থলি দক্ষিণ বিধানসভার কালনা ১ নং ব্লকের, বেগপুর অঞ্চলের পাথর ডাঙ্গায় সংখ্যালঘু দপ্তরের বরাদ্দ ১৫,১৯,০০০ টাকায় নির্মিত জল প্রকল্প উদ্বোধনে মন্ত্রী

পূর্বস্থলি দক্ষিণ বিধানসভার কালনা ১ নং ব্লকের, বেগপুর অঞ্চলের পাথর ডাঙ্গায় সংখ্যালঘু দপ্তরের বরাদ্দ ১৫,১৯,০০০ টাকায় নির্মিত জল প্রকল্প উদ্বোধনে মন্ত্রী

এই বিশেষ প্রকল্পের উদ্বোধনে হাজির ছিলেন রাজ্যের প্রাণীসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ

এই বিশেষ প্রকল্পের উদ্বোধনে হাজির ছিলেন রাজ্যের প্রাণীসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ

এই বিশেষ জল প্রকল্পের ফলে উপকৃত হবেন এলাকাবাসী

এই বিশেষ জল প্রকল্পের ফলে উপকৃত হবেন এলাকাবাসী

কেরলে শাড়ি পরে ছবি দিলেন সানি লিওন

কেরলে শাড়ি পরে ছবি দিলেন সানি লিওন

ভগবানের দেশে হাজির থেকে খুবই আনন্দিত সানি লিওনি

ভগবানের দেশে হাজির থেকে খুবই আনন্দিত সানি লিওনি

ভারতীয় সংস্কৃতির সঙ্গে নিজেকে ভালোই মানিয়ে নিয়েছেন সানি

ভারতীয় সংস্কৃতির সঙ্গে নিজেকে ভালোই মানিয়ে নিয়েছেন সানি

সানির এই নতুন ছবি উষ্ণতার পারদ বাড়িয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়

সানির এই নতুন ছবি উষ্ণতার পারদ বাড়িয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়

ছুটি কাটাতেই সপরিবারের কেরল গিয়েছেন সানি

ছুটি কাটাতেই সপরিবারের কেরল গিয়েছেন সানি

Voting Poll (Ratio)

2020 New Ad HDFC 05
Comm Ad 2020-WB Tourism RC