Comm AD 12 Myra

পঞ্চানন বর্মার জন্মদিনেও ছুটি, ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর! মিহিরের বাড়িতে রবীন্দ্রনাথ

Share Link:

পঞ্চানন বর্মার জন্মদিনেও ছুটি, ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রীর! মিহিরের বাড়িতে রবীন্দ্রনাথ

নিজস্ব প্রতিনিধি: জোড়া সমাপতন বোধহয় একেই বলে। একই দিনে জল গড়ালো অনেকটাই দূরে। একদিকে বাঁকুড়া থেকে মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করলেন পঞ্চানন বর্মার জন্মদিনেও এবার থেকে ছুটি থাকবে রাজ্যে, অন্যদিকে এদিনই মিহির গোস্বামীর বাড়িতে চলে গেলেন রবীন্দ্রনাথ ঘোষ। দেখে তাই মনে হতেই পারে শুভেন্দু অধিকারীকে নিয়ে তৃণমূল যেমন বেশ সাবধানে খেলে চলেছে ঠিক তেমনি দলেরই বিক্ষুব্ধ নেতা বিধায়কদের সঙ্গে এবার সমস্যার সমাধানের লক্ষ্যে আলোচনা প্রক্রিয়া শুরু হল। এই প্রক্রিয়া যদি সফল হয় তাহলে রাজ্যের শাসক দলের পক্ষে বিধানসভা নির্বাচনের আগে তা ইতিবাচকই হবে। ঠিক তেমনটাই ধাক্কা খাবে গেরুয়া শিবির। কারই এরাই উঠেপড়ে লেগেছিল তৃণমূল ভাঙিয়ে নিজের শক্তিবৃদ্ধি করতে।
 
এদিন বাঁকুড়া থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়ে দেন এবার থেকে পঞ্চানন বর্মার জন্মদিনে মিলবে সরকারি ছুটি। এদিন বাঁকুড়ার রবীন্দ্রভবনে প্রশাসনিক বৈঠকে চলাকালীন সময়েই মুখ্যমন্ত্রী জানিয়ে দেন, ‘ইতিমধ্যেই নেতাজি, বীরসা মুন্ডা, পঞ্চানন বর্মা-সহ একাধিক ব্যক্তিত্বের নামে বিশ্ববিদ্যালয় করেছি। পঞ্চানন বর্মার জন্মদিনে ছুটি ঘোষণা করার পরিকল্পনা অনেকদিন ধরেই ছিল। এটা হয়ে গেলে খানিকটা নিশ্চিন্ত।’ কোচবিহার ও লাগোয়া আলিপুরদুয়ার-জলপাইগুড়ি জেলার রাজবংশী সম্প্রদায়ের মধ্যে পঞ্চানন বর্মার বেশ প্রভাব রয়েছে। বাম জমানায় পঞ্চানন বর্মাকে ঘিরে রাজংশীদের তথা কোচবিহারবাসীর আবেগকে সম্মাণ না দেওয়া হলেও রাজ্যের ক্ষমতায় এসেই তৃণমূলনেত্রী সে বিষয়ে নজর দেন। এদিনের ঘোষণা তাঁরই অঙ্গ। এদিন মুখ্যমন্ত্রী যখন বাঁকুড়ায় বসে এই কথা ঘোষনা করছেন তখন কোচবিহারে বিক্ষুব্ধ তৃণমূল বিধায়ক মিহির গোস্বামীর বাড়িতে দেখা গেল উত্তরবঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষকে।
 
তৃণমূল সূত্রে জানা গিয়েছে, এদিন কার্যত হুট করেই মিহিরবাবুর বাড়িতে চলে আসেন উত্তরবঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রী। তাঁদের মধ্যে প্রায় ৪০ মিনিট কথা হয়। মনে করা হচ্ছে মিহিরবাবুর সঙ্গে সমস্যা নিয়ে কথা বলতে ও সেই সব সমস্যার সমাধানেই রবীন্দ্রনাথবাবুর আগমন। বৈঠক শেষে মিহিরবাবু সাংবাদিকদের কাছে এই বিষয়ে মুখ না খুললেও রবীন্দ্রনাথবাবু জানিয়েছেন, ‘মিহিরদা পুরনো লোক। ছাত্র আন্দোলনের সঙ্গেও যুক্ত ছিলেন। তাই তিনি দলে থাকুন সেটাই চাইব।’ সূত্রের খবর, দিনকয়েক আগে মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ, বিনয়কৃষ্ণ বর্মন এবং জেলা তৃণমূল সভাপতি পার্থপ্রতিম রায়কে কলকাতায় ডেকে পাঠানো হয়। ওই বৈঠকে মিহির গোস্বামীর অভিমান প্রসঙ্গে আলোচনা হয়। যা মিটিয়ে নিতেও বলা হয়। সূত্রের খবর, রাজ্য নেতৃত্বের নির্দেশ পালনেই মিহির গোস্বামীর বাড়িতে রবীন্দ্রনাথ ঘোষ গিয়েছিলেন। ২০১৬ সালে এই কোচবিহার জেলা থেকেই উত্তরবঙ্গের মধ্যে সব থেকে বেশি আসন পেয়েছিল তৃণমূল। জেলার ৯টি আসনের মধ্যে ৮টিই এসেছিল তৃণমূলের দখলে। তখন জেলার সভাপতি ছিলেন রবীন্দ্রনাথবাবুই। কিন্তু ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে জেলার আসনে শুধু যে বিজেপি জয়ী হয় তাই নয়, জেলার ৯টি আসনের মধ্যে মাত্র ২টি আসনে তৃণমূল লিড ধরে রাখতে সক্ষম হয়। এখন বিধানসভা নির্বাচন যখন দুয়ারে এসে দাঁড়িয়েছে তখন তৃণমূলের তরফে একের পর এক বিক্ষুব্ধ নেতা-বিধায়কদের সঙ্গে বৈঠক শুরু হয়েছে যদি সমস্যার কোনও সমাধান হয়। তবে এদি রাতের দিকে মিহির গোস্বামীর ঘনিষ্ঠজনদের সূত্রে জানা গিয়েছে, রবীন্দ্রনাথবাবুর সঙ্গে বিধায়কের আলোচনা হয়েছে ঠিকই। কিন্তু সংঘাত মেটেনি। নিজের অবস্থান বদল করবেন না বলে মন্ত্রীকে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন কোচবিহার দক্ষিণের তৃণমূল বিধায়ক।  

Comm Ad 2020-Valentine body

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Comm Ad 008 Myra

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 2020-LDC Momo

কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের  সমাপ্তি অনুষ্ঠান

কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের সমাপ্তি অনুষ্ঠান

#

#

#

#

Voting Poll (Ratio)

corona 02
Comm Ad 006 TBS