Puja21-Ad02

বাংলার বুকে নয়া বিপদ টর্নেডো! ক্রমেই বাড়ছে দাপট

Share Link:

বাংলার বুকে নয়া বিপদ টর্নেডো! ক্রমেই বাড়ছে দাপট

নিজস্ব প্রতিনিধি: ইদানিংকালে বাংলার বুজে খুব ঘন ঘন টর্নেডোর প্রাদুর্ভাব ঘটছে। এখনও পর্যন্ত তাতে কারও মৃত্যুর ঘটনা না ঘটলেও বেশ কিছু ক্ষেত্রে ঘরবাড়ি ভেঙে যাওয়া বা এলাকার সব গাছ ও ল্যাম্পপোস্ট ভেঙে যাওয়ার মতো ঘটনা ঘটেছে। আবার নদীর বুকেও টর্নেডোর জেরে জলস্তম্ভ জেগে ওঠার পাশাপাশি তা আবার নদীতে বিলীন হয়ে যেতেও দেখা গিয়েছে। আর এইসব কারনের জেরেই টর্নেডোকে নিয়ে রাজ্যবাসীর মধ্যে যেমন কৌতুহল বাড়ছে তেমনি আবহাওয়াবিদদের মধ্যেও প্রশ্ন জাগছে ইদানিংকালে বাংলার বুকে কেন এত ঘন ঘন টর্নেডো দেখা যাচ্ছে? বাংলার পরিবর্তিত জলবায়ুর জন্যই কী এর প্রাদুর্ভাব বাড়ছে নাকি এর পিছনে মানুষের কার্যকলাপের কোনও কারন জড়িয়ে আছে? এই প্রশ্নই এখন ভাবাচ্ছে সকলকে।
 
মৌসুমি জলবায়ুর অন্তর্গত বাংলার বুকে টর্নেডো কিন্তু একদম অপরিচিত ঝড় নয়। ১৮৩৮ সালে প্রথমবার খাস কলকাতার বুকে টর্নেডোর প্রকোপ ব্রিটিশদের হাত ধরেই নথিভুক্ত হয়েছিল। ৮ এপ্রিল তারিখে সেই ঝড়ে মারা গিয়েছিলেন সরকারি হিসাবে ২১৫জন। ১৯৯৩ সালের ৯ এপ্রিল উত্তর ২৪ পরগনা জেলার গাইঘাটায় আছড়ে পড়েছিল টর্নেডো। সেই আকস্মিক ঝড়ে ১৪৫জন মারা গিয়েছিলেন। মাঝের বছরগুলিতে কিন্তু বাংলার বুকে টর্নেডোর দেখা মেলেনি অন্তত সরকারি ভাবে। তবে বেশ কিছু মিনি টর্নেডোর দাবি উঠেছে নানান সময়ে নানান জায়গাতে। কিন্তু এই ১৬০ বছরের ব্যবধানকালে এখনকার বাংলাদেশ বা একসময়কার পূর্ব পাকিস্তান বা আরও আগেকার অবিভক্ত বাংলার বুকে বেশ কিছু টর্নেডোর আছড়ে পড়ার ঘটনা রয়েছে। অর্থাৎ টর্নেডো এই উপমহাদেশে বিরল নয়। চিন, জাপান সহ দক্ষিন পূর্ব এশিয়ার প্রায় সব দেশেই এই ঝড়ের প্রকোপ দেখা যায়। আবার মার্কিন মুলুকে এই ঝড় বাংলার কালবৈশাখী ঝড়ের মতোই সুপরিচিত। তবে যেটা চিন্তা বাড়াচ্ছে তা হল এখন যেমন ঘন ঘন এই ঝড় দেখা যাচ্ছে তা আগে দেখা যেত না। কেন এই বিপদ বাড়ছে সেটাই ভাবাচ্ছে আবহাওয়াবিদদের।
 
আবহাওয়াবিদরা জানিয়েছেন, স্থলভাগে কোনও কারনে নিচেরকার বাতাস গরম হয়ে হু হু করে খুব কম সময়ে ওপরে উঠে গেলে, ওপরের ঠান্ডা বাতাসও হু হু করে নিচে নেম আসে। সেই দুই বায়ুর ওপরে ওঠা ও নিচে নামার ঘটনাই আমরা হাতির শুঁড়ের আকারে টর্নেডোর মতো দেখতে পারি। এই টর্নেডো কতটা শক্তিশালী হবে বা কতটা ধ্বংসাত্মক রূপ নেবে সেটা নির্ভর করে বায়ুমণ্ডলের তাপমাত্রা ও নিকটবর্তী জলভাগের ওপরে। মাটির কাছাকাছি গরম হাওয়া যত দ্রুত উষ্ণ হবে আর তা দ্রুত ওপরে উঠবে ততই জোরে ওপর থেকে ঠান্ডা হাওয়া নীচে নামতে থাকবে। এই নামাওঠার মাঝে যদি সে অনেকটাই জলীয় বাষ্প পেয়ে যায় তখনই টর্নেডোর উল্লম্ব মেঘ তৈরি হয়। সেই মেঘই প্রচন্ড গতিতে ধেয়ে যায় ঠান্ডা হাওয়া বা জলের খোঁজে। সেই হাওয়া বা জল পেলে তা শান্ত হয়ে যায়। কিন্তু না পেলেও সে শুরু করে তাণ্ডব। সাম্প্রতিক কালে বাংলার বুকে যে সব টর্নেডোর দেখা মিলেছে তাতে দেখা যাচ্ছে জলভাগ থেকে দূরে থাকা এলাকায় সে ধ্বংস চালাতে পেরেছে কিছুটা। কিন্তু নদীর বুকে জলস্তম্ভ তৈরি করেও সে তা ধরে রাখতে পারেনি। খুব শীঘ্রই মিলিয়ে গিয়েছে। যেহেতু এখন বর্ষাকাল আর বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ বেশি তাই এইসব টর্নেডোর স্থায়িত্বকাল ও ধ্বংসের ক্ষমতা খুব কম সময়ের মধ্যে কম এলাকাতেই সীমাবদ্ধ থাকছে। কিন্তু ৪৫ ডিগ্রির ওপর শুকনো গরম থাকলে এই টর্নেডোই কার্যত তান্ডব চালাতো।

Comm Ad 005 TBS

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

2020 New Ad HDFC 05

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

corona 02

নিউ ইয়র্কে শুরু হল মেট গালা ২০২১। নিউইয়র্কে এই অনুষ্ঠানে ছিল তারকাদের ভিড়। ফ্যাশন, স্টাইল ও দুর্দান্ত ডিজাউনে সব তারকারা হাজির হয়েছিলেন বিচিত্র সব পোশাক পরে। মেট গালার রেড কার্পেটে হাঁটার জন্য কী পরবেন সেলেবরা, তার প্রস্তুতি চলতে থাকে বছরের পর বছর ধরে। করোনার কারণে গত বছর আসরটি বসেনি। তাই এবার যেন তারার মেলা বসে গিয়েছিল।

নিউ ইয়র্কে শুরু হল মেট গালা ২০২১। নিউইয়র্কে এই অনুষ্ঠানে ছিল তারকাদের ভিড়। ফ্যাশন, স্টাইল ও দুর্দান্ত ডিজাউনে সব তারকারা হাজির হয়েছিলেন বিচিত্র সব পোশাক পরে। মেট গালার রেড কার্পেটে হাঁটার জন্য কী পরবেন সেলেবরা, তার প্রস্তুতি চলতে থাকে বছরের পর বছর ধরে। করোনার কারণে গত বছর আসরটি বসেনি। তাই এবার যেন তারার মেলা বসে গিয়েছিল।

দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন লিল নাসকের রাজকীয় পোশাক। সোনালি সুপারহিরোর পোশাকে হাজির ছিলেন তিনি।

দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন লিল নাসকের রাজকীয় পোশাক। সোনালি সুপারহিরোর পোশাকে হাজির ছিলেন তিনি।

সম্পূর্ণ কালো পোশাক নজর কাড়লেন কিম কারদাশিয়ান।

সম্পূর্ণ কালো পোশাক নজর কাড়লেন কিম কারদাশিয়ান।

রালফ লরেনের তৈরি পশমের পোশাকে ধরা দিয়েছেন জেনিফার লোপেজ। সঙ্গে ছিলেন বেন অ্যাফ্লেক। এ বার সামাজিক অনুষ্ঠানেও দেখা দিলেন যুগলে। মেট গালা ২০২১-এর হোয়াইট কার্পেটে অবশ্য আলাদাই হাঁটলেন জেনিফার ও বেন। ভিতরে গিয়ে মাস্ক পরেই চুম্বনে মগ্ন হলেন দুই তারকা।

রালফ লরেনের তৈরি পশমের পোশাকে ধরা দিয়েছেন জেনিফার লোপেজ। সঙ্গে ছিলেন বেন অ্যাফ্লেক। এ বার সামাজিক অনুষ্ঠানেও দেখা দিলেন যুগলে। মেট গালা ২০২১-এর হোয়াইট কার্পেটে অবশ্য আলাদাই হাঁটলেন জেনিফার ও বেন। ভিতরে গিয়ে মাস্ক পরেই চুম্বনে মগ্ন হলেন দুই তারকা।

সুপার মডেল ইমন চমত্কার পালকযুক্ত স্বর্ণ এবং বেইজ হেডড্রেস এবং স্কার্ট বেছে নিয়েছিল। মাথার পিছনে বসানো সাদা আর সোনালি হেড পিস দেখাল চক্রের মতো।

সুপার মডেল ইমন চমত্কার পালকযুক্ত স্বর্ণ এবং বেইজ হেডড্রেস এবং স্কার্ট বেছে নিয়েছিল। মাথার পিছনে বসানো সাদা আর সোনালি হেড পিস দেখাল চক্রের মতো।

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 026 BM
Comm Ad 2020-LDC Momo