Comm AD 12 Myra

বামেদের ডাকা ধর্মঘট রুখতে তৎপর প্রশাসন, বিক্ষিপ্ত গণ্ডগোল রাজ্যজুড়ে

Share Link:

বামেদের ডাকা ধর্মঘট রুখতে তৎপর প্রশাসন, বিক্ষিপ্ত গণ্ডগোল রাজ্যজুড়ে

নিজস্ব প্রতিনিধি: ১৬ বাম শ্রমিক সংগঠন-সহ বিরোধীদের ডাকা ধর্মঘটে খানিকটা হলেও সাড়া মিলল গোটা রাজ্যে। তবে পুলিশ-প্রশাসনের তৎপরতায় সেভাবে বনধ পরিলক্ষিত না হলেও সাধারণ মানুষ অন্য দিনের তুলনায় রাস্তায় কম বেরিয়েছেন। এদিন সকাল থেকেই কলকাতা থেকে শহরতলী কিংবা গোটা রাজ্যে বেশ কিছু বিক্ষিপ্ত গণ্ডগোলের ঘটনা ঘটেছে। তা ছাড়া মোটের উপর শান্তিপূর্ণভাবেই এই বনধ হচ্ছে।

রাজ্য সরকারের তরফ থেকে ইতিমধ্যেই সব কর্মীকে কাজে যোগ দেওয়ার নির্দেশ দেওয়ায় নবান্ন, রাইটার্স, স্বাস্থ্য ভবন থেকে শুরু করে সব পুরসভা কিংবা জেলাশাসকের দফতর সব জায়গাতেই কর্মীদের উপস্থিতির হার ৯৫ থেকে ৯৯ শতাংশের মধ্যেই রয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বেশ কয়েকটি জায়গায় বিক্ষিপ্ত গণ্ডগোলের খবর পাওয়া গিয়েছে। শহরের মধ্যে লেনিন সরণীতে জোর করে দোকান বন্ধ করে দেওয়ার খবর সামনে এসেছে। মেট্রোর সেন্ট্রাল ও চাঁদনি চক স্টেশনে ঢোকার চেষ্টা ফরওয়ার্ড ব্লক সমর্থকদের। সেখানে পুলিশের সঙ্গে বেশ কিছু গণ্ডগোলও হয়।

সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউ’তে ধর্মঘটিরা জোর করে রাস্তায় শুয়ে বড়ে বাস-গাড়ি চলতে বাধা সৃষ্টি করেছেন, কিন্তু সামান্য বাদেই পুলিশ গিয়ে সেই অবরোধ উঠিয়ে দেয়। ফলে সমস্যা খুব একটা হয়নি। পাশাপাশি, বারাসত চাঁপাডালি মোড়, তিতুমীর বাসস্ট্যান্ডে ধর্মঘটের সমর্থকদের অবরোধ। পাশাপাশি, বিক্ষোভ ফরোয়ার্ড ব্লক সমর্থকদেরও। যশোর রোডের একাধিক জায়গায় সকাল থেকেই পুলিশের সঙ্গে কার্যত লুকোচুরি খেলা চলেছে বাম সমর্থকদের।

পাশাপাশি, যাদবপুর স্টেশনে বাম কর্মী সমর্থকদের রেল অবরোধ করেন। কিন্তু আধঘণ্টার মধ্যেই জিআরপি সেই অবরোধ তুলে দেয়। শিয়ালদহ- বজবজ শাখার নুঙ্গি স্টেশনে ও দক্ষিণ শাখার ক্যানিং স্টেশনে অবরোধ করেন বাম ক্রমীরা। কিন্তু অল্প কিছুক্ষণের মধ্যেই পুলিশ গিয়ে লাঠিচার্জ করে এই ধর্মঘট তুলে দেয়। অন্যদিকে, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের মেন গেটের সামনে এসএফআই, আইসা, আইসি-র মতো ছাত্র সংগঠন দীর্ঘক্ষণ পথ অবরোধ করে, স্লোগান দিতে থাকে। কিন্তু উল্লেখযোগ্যভাবে, সেখানে কোনও পুলিশ কর্মীদের আশেপাশে দেখা যায়নি। ফলে এই রাস্তা সকাল থেকেই কার্যত বন্ধ হয়ে যায়।

এর পাশাপাশি, হাওড়া ও শিয়ালদহ শাখার বিভিন্ন স্টেশনে সকাল থেকেই অবরোধ চললেও বেশিক্ষণ তা চলেনি। পুলিশ এসে লাঠিচার্জ করে তা তুলে দেয়, ফলে সকাল ১০ টার পর থেকে কার্যত স্বাভাবিক হয়ে যায় ট্রেন চলাচল। তবে শহর ও শহরতলির রাস্তায় বাস-গাড়ির দেখা মিললেও সেভাবে লোকের দেখা মেলেনি। মোটের উপর বাসগুলি ফাঁকাই ছিল। এককথায় এদিনের ধর্মঘটের চিত্র বলতে এটাই বলা যেতে পারে।

Comm Ad 005 TBS

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

2020 New Ad HDFC 05

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 006 TBS

কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের  সমাপ্তি অনুষ্ঠান

কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের সমাপ্তি অনুষ্ঠান

#

#

#

#

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 2020-LDC Egg
Comm Ad 2020-WBSEDCL RC