Comm Ad 005 TBS

'রামের ভোট বামে ফিরলে'ই ভাটপাড়ায় জয় নিশ্চিত, দাবি তৃণমূলের

Share Link:

'রামের ভোট বামে ফিরলে'ই ভাটপাড়ায় জয় নিশ্চিত, দাবি তৃণমূলের

নিজস্ব প্রতিনিধি: গত লোকসভা ভোটের পর থেকেই বার বার সংবাদ শিরোনামে উঠে এসেছে ভাটপাড়ার নাম। সাম্প্রতিক কালে রাজ্যের সব চেয়ে ‘উপদ্রুত’এলাকা হল এটিই। রাত-দুপুরে যেখানে গুলি, বোমাবাজির শব্দে প্রায় নিত্যদিন উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। কিন্তু একসময় এই এলাকার মানুষেরও ঘুম ভাঙত কারখানার ভোঁ আওয়াজ শুনে। করোনা, লকডাউন ও রাজনৈতিক সংঘর্ষের ত্রিফলায় জীবন অতিষ্ঠ লুমটেক্স জুটমিলের মজদুর বস্তি এলাকার মানুষের। একুশের নির্বাচনের মুখে যখন রাজ্যজুড়ে কর্মসংস্থানের দাবি উঠছে সর্বত্র, তখন ভাটপাড়ার সাধারণ মানুষের দাবি, আগে শান্তি ফিরুক এলাকায়। এলাকার চারবারের বিধায়ক তথা বর্তমানে বারাকপুরের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিংয়ের প্রতিপত্তি গত দু'বছরে আরও কয়েক গুন বেড়েছে। একসময় তাঁর বাবা কংগ্রেসের টিকিটে তিনবার জিতেছিলেন এই কেন্দ্রে। অর্জুন সাংসদ হওয়ার পর ভাটপাড়ার উপনির্বাচনেও জয় পেয়েছিল বিজেপি। তৃণমূল প্রার্থী মদন মিত্রকে হারিয়ে জিতেছিলেন অর্জুন-পুত্র পবন সিং। একুশের নির্বাচনে তিনিই ফের একবার বিজেপি প্রার্থী। তৃণমূলের নতুন মুখ আর এক অবাঙালি ভূমিপুত্র জিতেন্দ্র সাউ, এলাকায় জিতু নামেই পরিচিত তিনি। অন্যদিকে সংযুক্ত মোর্চার তরফে কংগ্রেসের টিকিটে লড়ছেন ধর্মেন্দ্র সাউ।
 
তৃণমূল কংগ্রেস----------------------------- জিতেন্দ্র সাউ
বিজেপি-------------------------------------- পবন সিং
সংযুক্ত মোর্চা (কংগ্রেস)--------------------- ধর্মেন্দ্র সাউ
 
ভাটপাড়া পুরসভার ১ থেকে ১৭ নম্বর ওয়ার্ডগুলি নিয়ে গঠিত ভাটপাড়া বিধানসভা কেন্দ্রটি। এটি বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত। ১৯৫৭ সালে প্রথম এই কেন্দ্রে বিধানসভা নির্বাচন হয়। প্রথমবার বিধায়ক হয়েছিলেন কংগ্রেসের বয়ারাম বেড়ি। ১৯৭১, ১৯৭২ ও ১৯৮৭ সালের নির্বাচনে এই কেন্দ্রে কংগ্রেসের টিকিটে জিতেছিলেন অর্জুন সিংয়ের বাবা সত্যনারায়ণ সিং। ২০০১ সাল থেকেই ভাটপাড়ায় চারবার তৃণমূলের টিকিটে জিতেছিলেন অর্জুন। ২০১৯-এর উপনির্বাচনে প্রথমবার ভাটপাড়ায় পদ্মফুল ফুঁটেছিল। একনজরে দেখে নেওয়া যাক, ভাটপাড়ার বিধায়কদের তালিকা...
 
নির্বাচনের বছর বিধায়ক রাজনৈতিক দল
১৯৫১ দয়ারাম বেড়ি জাতীয় কংগ্রেস
১৯৫৭ সীতারাম গুপ্তা সিপিআই
১৯৬২ দয়ারাম বেড়ি জাতীয় কংগ্রেস
১৯৬৭ দয়ারাম বেড়ি জাতীয় কংগ্রেস
১৯৬৯ সীতারাম গুপ্তা সিপিএম
১৯৭১ সত্যনারায়ণ সিং জাতীয় কংগ্রেস
১৯৭২ সত্যনারায়ণ সিং জাতীয় কংগ্রেস
১৯৭৭ সীতারাম গুপ্তা সিপিএম
১৯৮২ সীতারাম গুপ্তা সিপিএম
১৯৮৭ সত্যনারায়ণ সিং জাতীয় কংগ্রেস
১৯৯১ বিদ্যুৎ গঙ্গোপাধ্যায় সিপিএম
১৯৯৬ বিদ্যুৎ গঙ্গোপাধ্যায় সিপিএম
২০০১ অর্জুন সিং তৃণমূল কংগ্রেস
২০০৬ অর্জুন সিং তৃণমূল কংগ্রেস
২০১১ অর্জুন সিং তৃণমূল কংগ্রেস
২০১৬ অর্জুন সিং তৃণমূল কংগ্রেস
২০১৯ (উপনির্বাচন) পবন সিং বিজেপি
 
২০০১ সালে সিপিএমের রামপ্রসাদ কুণ্ডুকে ১৬ হাজার ৭৯৮ ভোটে হারিয়ে প্রথমবার বিধায়ক হয়েছিলেন অর্জুন। তারপর প্রতিবারই জয়ের ব্যবধান বাড়িয়ে নিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু ২০১৬ সালে নির্দলের টিকিটে দাঁড়িয়ে অর্জুন সিংকে জোর লড়াই দিয়েছিলেন জিতেন্দ্র সাউ। সেবার ২৮ হাজার ৯৩৫ ভোটে জিতেছিলেন অর্জুন। ভাটপাড়া থেকে বরাবর বিধানসভা নির্বাচনে জিতলেও বারাকপুর লোকসভায় ভোটে লড়ে তড়িৎ তোপদারের কাছে হেরে যেতেন তিনি। কিন্তু তা সত্ত্বেও ২০১৯ সালেও ভোটে লড়তে চেয়েছিলেন। কিন্তু তৃণমূল তাঁকে টিকিট না দিয়ে দিয়েছিল দীনেশ ত্রিবেদীকে। তারপরই বিজেপিতে যোগ দিয়ে প্রার্থী হন। ভোটে জিতে সাংসদও হন। তাঁর ছেড়ে যাওয়া আসনে ভোটে লড়ে ২৩ হাজার ১০৪ ভোটে  মদন মিত্রকে হারিয়েছিলেব অর্জুন-পুত্র পবন সিং। গত লোকসভা ভোটেও প্রায় ৩০ হাজার ভোটে এই বিধানসভাও এগিয়ে ছিল বিজেপি। একনজরে দেখে নিন, ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে ভাটপাড়ায় কোন দল কত ভোট পেয়েছে...
 
রাজনৈতিক দল প্রার্থী প্রাপ্ত ভোট
বিজেপি অর্জুন সিং ৬৪৬৮০
তৃণমূল কংগ্রেস দীনেশ ত্রিবেদী ৩৪৯৭৩
সিপিএম গার্গী চট্টোপাধ্যায় ৪৫২৪
 
যদিও লোকসভা ভোটের সময় এই বিধানসভার প্রায় প্রতিটি বুথেই ছাপ্পাভোটের অভিযোগ উঠেছিল অর্জুন সিংয়ের বিরুদ্ধে। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, যদি তা নাও হয় তাহলে ফলাফল দেখে ধরে নিতে হবে বাম-কংগ্রেসের ভোট বাধা-ধরা ভোট সেবার বিজেপিতে গিয়েছিল। শুধু তাই  নয়, কিছু তৃণমূলের ভোটারও ভোট দিয়েছিল বিজেপিতে। কিন্তু এবার সেই সম্ভাবনা ক্ষীণ। প্রাক্তন সাংসদ তথা বামফ্রন্টের প্রবীন নেতা তড়িৎ তোপদারের দাবি, লোকসভা ‘যে সব বাম ভোট রামে গিয়েছিল, তার বেশির ভাগই ফিরবে।’ আর এই আশাতেই বুক বাঁধছে সংযুক্ত মোর্চা। আর তার ফসল তুলতে মরিয়া শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস। ষষ্ঠ দফার ভোটে অন্যতম নজরকাড়া কেন্দ্র ভাটপাড়ায় শেষ পর্যন্ত কোন দল জয়ী হয়, তা অবশ্য জানা যাবে ২ মে। 

Puja21-Ad02

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

corona 02

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 2020-Valentine RC

নিউ ইয়র্কে শুরু হল মেট গালা ২০২১। নিউইয়র্কে এই অনুষ্ঠানে ছিল তারকাদের ভিড়। ফ্যাশন, স্টাইল ও দুর্দান্ত ডিজাউনে সব তারকারা হাজির হয়েছিলেন বিচিত্র সব পোশাক পরে। মেট গালার রেড কার্পেটে হাঁটার জন্য কী পরবেন সেলেবরা, তার প্রস্তুতি চলতে থাকে বছরের পর বছর ধরে। করোনার কারণে গত বছর আসরটি বসেনি। তাই এবার যেন তারার মেলা বসে গিয়েছিল।

নিউ ইয়র্কে শুরু হল মেট গালা ২০২১। নিউইয়র্কে এই অনুষ্ঠানে ছিল তারকাদের ভিড়। ফ্যাশন, স্টাইল ও দুর্দান্ত ডিজাউনে সব তারকারা হাজির হয়েছিলেন বিচিত্র সব পোশাক পরে। মেট গালার রেড কার্পেটে হাঁটার জন্য কী পরবেন সেলেবরা, তার প্রস্তুতি চলতে থাকে বছরের পর বছর ধরে। করোনার কারণে গত বছর আসরটি বসেনি। তাই এবার যেন তারার মেলা বসে গিয়েছিল।

দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন লিল নাসকের রাজকীয় পোশাক। সোনালি সুপারহিরোর পোশাকে হাজির ছিলেন তিনি।

দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন লিল নাসকের রাজকীয় পোশাক। সোনালি সুপারহিরোর পোশাকে হাজির ছিলেন তিনি।

সম্পূর্ণ কালো পোশাক নজর কাড়লেন কিম কারদাশিয়ান।

সম্পূর্ণ কালো পোশাক নজর কাড়লেন কিম কারদাশিয়ান।

রালফ লরেনের তৈরি পশমের পোশাকে ধরা দিয়েছেন জেনিফার লোপেজ। সঙ্গে ছিলেন বেন অ্যাফ্লেক। এ বার সামাজিক অনুষ্ঠানেও দেখা দিলেন যুগলে। মেট গালা ২০২১-এর হোয়াইট কার্পেটে অবশ্য আলাদাই হাঁটলেন জেনিফার ও বেন। ভিতরে গিয়ে মাস্ক পরেই চুম্বনে মগ্ন হলেন দুই তারকা।

রালফ লরেনের তৈরি পশমের পোশাকে ধরা দিয়েছেন জেনিফার লোপেজ। সঙ্গে ছিলেন বেন অ্যাফ্লেক। এ বার সামাজিক অনুষ্ঠানেও দেখা দিলেন যুগলে। মেট গালা ২০২১-এর হোয়াইট কার্পেটে অবশ্য আলাদাই হাঁটলেন জেনিফার ও বেন। ভিতরে গিয়ে মাস্ক পরেই চুম্বনে মগ্ন হলেন দুই তারকা।

সুপার মডেল ইমন চমত্কার পালকযুক্ত স্বর্ণ এবং বেইজ হেডড্রেস এবং স্কার্ট বেছে নিয়েছিল। মাথার পিছনে বসানো সাদা আর সোনালি হেড পিস দেখাল চক্রের মতো।

সুপার মডেল ইমন চমত্কার পালকযুক্ত স্বর্ণ এবং বেইজ হেডড্রেস এবং স্কার্ট বেছে নিয়েছিল। মাথার পিছনে বসানো সাদা আর সোনালি হেড পিস দেখাল চক্রের মতো।

Voting Poll (Ratio)

Comm Ad 008 Myra
Comm Ad 2020-Valentine RC