Puja21-Ad02

এগিয়ে বিজেপি, জয় বজায় রাখতে ভাবমূর্তিই হাতিয়ার মন্ত্রী শশী পাঁজার

Share Link:

এগিয়ে বিজেপি, জয় বজায় রাখতে ভাবমূর্তিই হাতিয়ার মন্ত্রী শশী পাঁজার

নিজস্ব প্রতিনিধি: কলকাতায় থাবা বসাতে পারবে না বিজেপি। আপাত দৃষ্টিতে এমনটা মনে হলেও বেশ কয়েকটা হাতে-গোনা বিধানসভা কেন্দ্রে গত লোকসভা নির্বাচনে এগিয়ে গিয়েছিল বিজেপি। যে ক’টি কেন্দ্রে তৃণমূলের চাপ আছে ভোটবাক্সে, তার মধ্যে একেবারে প্রথম সারিতে রয়েছে শ্যামপুকুর বিধানসভা কেন্দ্রের নাম৷ অথচ এই কেন্দ্রের বিধায়ক ডা. শশী পাঁজা রাজ্য মন্ত্রিসভার সদস্য। এলাকায় তাঁর জনপ্রিয়তা থাকলেও এবারের লড়াই তাঁর কাছে মোটেই সহজ হবে না। অন্যদিকে বিজেপি সন্দীপন বিশ্বাসকে প্রার্থী করার পর থেকেই গোটা এলাকা চষে বেরিয়েছেন তিনি। শ্যামপুকুরে সংযুক্ত মোর্চার তরফে লড়ছেন ফরওয়ার্ড ব্লকের প্রার্থী জীবনপ্রকাশ সাহা। একনজরে দেখে নিনি, প্রার্থী তালিকা...
 
তৃণমূল কংগ্রেস-------------------------- ডা. শশী পাঁজা
বিজেপি----------------------------------- সন্দীপন বিশ্বাস
সংযুক্ত মোর্চা (ফরওয়ার্ড ব্লক)-------- জীবনপ্রকাশ সাহা
 
কলকাতা পুরনিগমের ৭, ৮, ৯, ১০, ১৭, ১৮, ১৯,২০, ২১, ২৪ এবং ২৬ নম্বর ওয়ার্ডগুলি নিয়ে গঠিত শ্যামপুকুর বিধানসভা কেন্দ্রটি। এটি কলকাতা উত্তর লোকসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত। ২০০৯ সালের নির্বাচনের আগে পর্যন্ত কলকাতা উত্তর-পূর্ব লোকসভা কেন্দ্রের অংশ ছিল শ্যামপুকুর। ১৯৫১ সালে শ্যামপুকুর ও কলুটোলায় যুগ্ম আসনে নির্বাচন হয়। বিধায়ক হয়েছিলেন হেমন্তকুমার বসু ও নেপালচন্দ্র রায়। পরে ১৯৭১ সালের নির্বাচনের মুখে সারারাজ্যে যে তিনজন প্রার্থী খুন হয়েছিলেন তাঁর মধ্যে এই বিধানসভার একই দলের দু'জন প্রার্থী ছিলেন। তাঁদের মধ্যেই একজন হেমন্তকুমার বসু।  বরাবর ফরওয়ার্ড ব্লকের শক্ত ঘাঁটি ছিল এই বিধানসভা কেন্দ্রটি। কিন্তু ২০১১ সালের পর এখানেও জোড়াফুল ফুটেছিল শশী পাঁজার হাত ধরে। একনজরে দেখে নিন, শ্যামপুকুরে অতীতে বিধায়ক ছিলেন কারা...
 
নির্বাচন বছর কেন্দ্র বিধায়ক রাজনৈতিক দল
১৯৫১ শ্যামপুকুর
কলুটোলা
হেমন্তকুমার বসু
নেপালচন্দ্র রায়
ফরওয়ার্ড ব্লক
ফরওয়ার্ড ব্লক(এম.জি)
১৯৫৭ শ্যামপুকুর হেমন্তকুমার বসু ফরওয়ার্ড ব্লক
১৯৬২ শ্যামপুকুর হেমন্তকুমার বসু ফরওয়ার্ড ব্লক
১৯৬৭ শ্যামপুকুর জি সি দে জাতীয় কংগ্রেস
১৯৬৯ শ্যামপুকুর হেমন্তকুমার বসু ফরওয়ার্ড ব্লক
১৯৭১ শ্যামপুকুর    
১৯৭২ শ্যামপুকুর বারিদবরণ দাস জাতীয় কংগ্রেস
১৯৭৭ শ্যামপুকুর নলিনীকান্ত গুহ ফরওয়ার্ড ব্লক
১৯৮২ শ্যামপুকুর কিরণ চৌধুরী জাতীয় কংগ্রেস
১৯৮৭ শ্যামপুকুর কিরণ চৌধুরী জাতীয় কংগ্রেস
১৯৯১ শ্যামপুকুর শান্তিরঞ্জন গঙ্গোপাধ্যায় ফরওয়ার্ড ব্লক
১৯৯৬ শ্যামপুকুর শান্তিরঞ্জন গঙ্গোপাধ্যায় ফরওয়ার্ড ব্লক
২০০১ শ্যামপুকুর সুব্রত বসু ফরওয়ার্ড ব্লক
২০০৪ (উপনির্বাচন) শ্যামপুকুর জীবনপ্রকাশ সাহা ফরওয়ার্ড ব্লক
২০০৬ শ্যামপুকুর জীবনপ্রকাশ সাহা ফরওয়ার্ড ব্লক
২০১১ শ্যামপুকুর ডা. শশী পাঁজা তৃণমূল কংগ্রেস
২০১৬ শ্যামপুকুর ডা. শশী পাঁজা তৃণমূল কংগ্রেস
 
২০১১ সালে তৎকালীন দু'বারের ফরওয়ার্ড ব্লক বিধায়ক জীবনপ্রকাশ সাহাকে ২৭ হাজার ৩৬ ভোটে হারিয়ে প্রথমবারের জন্য বিধায়ক হন শশী পাঁজা। ২০১৩ সালের ডিসেম্বর মাসে তিনি পশ্চিমবঙ্গ সরকারের নারী ও শিশুকল্যাণ বিভাগের রাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। ২০১৪ সালের মে মাসে তাঁকে সমাজকল্যাণ বিভাগের অতিরিক্ত দায়িত্ব দেওয়া হয়। ২০১৬ সালের নির্বাচনে আর কংগ্রেসের সমর্থন ছিল না। ওই বছর ফরওয়ার্ড ব্লক প্রার্থী পিয়ালি পালকে ১৩ হাজার ১৫৫ ভোটে হারিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে এই বিধানসভাতেই জোড় ধাক্কা খেয়েছিল রাজ্যের শাসকদল। ২ হাজার ১৭০ ভোটে এগিয়ে গিয়েছিল বিজেপি। একনজরে দেখে নেওয়া যাক, গত লোকসভা নির্বাচনে এই বিধানসভায় কোন দল কত ভোট পেয়েছিল...
 
রাজনৈতিক দল প্রার্থী প্রাপ্ত ভোট
তৃণমূল সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় ৪৬৭৩৫
বিজেপি রাহুল সিনহা ৪৮৯০৫
সিপিএম কনীনিকা ঘোষ ১৩৫৬৯
 
শ্বশুর অজিতকুমার পাঁজা ছিলেন বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ। পাঁচ দশকের বেশি রাজনৈতিক জীবন। তিনি বিধায়ক, রাজ্যের মন্ত্রী, সাংসদ, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী-সব দায়িত্বই সামলেছিলেন। এহেন ডাকসাইটে শ্বশুরের সঙ্গে শশী পাঁজার তুলনা স্বাভাবিকভাবেই চলে আসে। কারণ অজিত পাঁজার জনসংযোগ একেবারেই ভোটকেন্দ্রিক ছিলনা। যেটা লক্ষ্য করা যায় শশী পাঁজার ক্ষেত্রেও। রাজ্যের মন্ত্রীর পাশাপাশি চিকিৎসকও। তা সত্ত্বেও ছোট-খাট জন্মদিন অনুষ্ঠানেও নিমন্ত্রণ পেলে তা রাখার চেষ্টা করেন তিনি। এলাকার মানুষও বিধায়ক নিয়ে খুশী। ডাকলেই যে পাওয়া যায় তা মেনে নিচ্ছেন প্রায় প্রত্যেকেই। কিন্তু লোকসভার ফলাফলই তৃণমূল নেতৃত্বের কপালে চিন্তার ভাজ ফেলছে। এলাকায় ভাল নাম-ডাক আছে ফরওয়ার্ড ব্লক প্রার্থীরও। এদিকে বিজেপি প্রার্থী সন্দীপন বিশ্বাস এলাকার বাম নেতৃত্বকে কাছে টানার চেষ্টা চালিয়ে গিয়েছেন। স্বাভাবিকভাবেই হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হতে চলেছে এই কেন্দ্রে। কে জিতবেন, তা জানা যাবে ২ মে। 

Puja21-Ad02

More News:

Leave A Comment

Don’t worry ! Your email & Phone No. will not be published. Required fields are marked (*).

এই মুহূর্তে Live

Comm Ad 2020-LDC Egg

Stay Connected

Get Newsletter

Featured News

Advertisement

Comm Ad 026 BM

নিউ ইয়র্কে শুরু হল মেট গালা ২০২১। নিউইয়র্কে এই অনুষ্ঠানে ছিল তারকাদের ভিড়। ফ্যাশন, স্টাইল ও দুর্দান্ত ডিজাউনে সব তারকারা হাজির হয়েছিলেন বিচিত্র সব পোশাক পরে। মেট গালার রেড কার্পেটে হাঁটার জন্য কী পরবেন সেলেবরা, তার প্রস্তুতি চলতে থাকে বছরের পর বছর ধরে। করোনার কারণে গত বছর আসরটি বসেনি। তাই এবার যেন তারার মেলা বসে গিয়েছিল।

নিউ ইয়র্কে শুরু হল মেট গালা ২০২১। নিউইয়র্কে এই অনুষ্ঠানে ছিল তারকাদের ভিড়। ফ্যাশন, স্টাইল ও দুর্দান্ত ডিজাউনে সব তারকারা হাজির হয়েছিলেন বিচিত্র সব পোশাক পরে। মেট গালার রেড কার্পেটে হাঁটার জন্য কী পরবেন সেলেবরা, তার প্রস্তুতি চলতে থাকে বছরের পর বছর ধরে। করোনার কারণে গত বছর আসরটি বসেনি। তাই এবার যেন তারার মেলা বসে গিয়েছিল।

দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন লিল নাসকের রাজকীয় পোশাক। সোনালি সুপারহিরোর পোশাকে হাজির ছিলেন তিনি।

দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন লিল নাসকের রাজকীয় পোশাক। সোনালি সুপারহিরোর পোশাকে হাজির ছিলেন তিনি।

সম্পূর্ণ কালো পোশাক নজর কাড়লেন কিম কারদাশিয়ান।

সম্পূর্ণ কালো পোশাক নজর কাড়লেন কিম কারদাশিয়ান।

রালফ লরেনের তৈরি পশমের পোশাকে ধরা দিয়েছেন জেনিফার লোপেজ। সঙ্গে ছিলেন বেন অ্যাফ্লেক। এ বার সামাজিক অনুষ্ঠানেও দেখা দিলেন যুগলে। মেট গালা ২০২১-এর হোয়াইট কার্পেটে অবশ্য আলাদাই হাঁটলেন জেনিফার ও বেন। ভিতরে গিয়ে মাস্ক পরেই চুম্বনে মগ্ন হলেন দুই তারকা।

রালফ লরেনের তৈরি পশমের পোশাকে ধরা দিয়েছেন জেনিফার লোপেজ। সঙ্গে ছিলেন বেন অ্যাফ্লেক। এ বার সামাজিক অনুষ্ঠানেও দেখা দিলেন যুগলে। মেট গালা ২০২১-এর হোয়াইট কার্পেটে অবশ্য আলাদাই হাঁটলেন জেনিফার ও বেন। ভিতরে গিয়ে মাস্ক পরেই চুম্বনে মগ্ন হলেন দুই তারকা।

সুপার মডেল ইমন চমত্কার পালকযুক্ত স্বর্ণ এবং বেইজ হেডড্রেস এবং স্কার্ট বেছে নিয়েছিল। মাথার পিছনে বসানো সাদা আর সোনালি হেড পিস দেখাল চক্রের মতো।

সুপার মডেল ইমন চমত্কার পালকযুক্ত স্বর্ণ এবং বেইজ হেডড্রেস এবং স্কার্ট বেছে নিয়েছিল। মাথার পিছনে বসানো সাদা আর সোনালি হেড পিস দেখাল চক্রের মতো।

Voting Poll (Ratio)

2020 New Ad HDFC 05
Comm Ad 006 TBS