এই মুহূর্তে

ত্রিপুরায় বিশেষ সক্ষম সন্তান-সহ আত্মঘাতী দম্পতি

নিজস্ব প্রতিনিধি, আগরতলা: বিশেষ সক্ষম সন্তান জন্ম নেওয়ার পরেই দুঃশ্চিন্তায় রাতের ঘুম উবেছিল চিন্তাহরণ পাল ও তাঁর স্ত্রী প্রতিভা পালের। তাদের অবর্তমানে ওই সন্তান কীভাবে বেঁচে থাকবে, তা ভেবেই হতাশ হয়ে পড়েছিলেন। আর সেই হতাশা থেকেই বিশেষ সক্ষম সন্তান-সহ আত্মঘাতী হওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেন শেষ পর্যন্ত। মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে ত্রিপুরার সিপাহিজালায়।

শুক্রবার ঠাকুরপুকুর থানার ওসি দেবাশিস দাস জানিয়েছেন, প্রতিদিন ভোরেই উঠতেন চিন্তাহরণ পাল ও তাঁর স্ত্রী প্রতিভা পাল। এদিন সকাল আটটা নাগাদ তাঁদের সাড়াশব্দ না পেয়ে খোঁজ নিতে এসে চিন্তাহরণের ভাই গৌরাঙ্গ পাল দরজা খুলে ভিতরে ঢুকেই স্তম্ভিত হয়ে পড়েন। দাদা-বৌদি ও ভাইঝির নিথর দেহ বিছানায় পড়ে থাকতে দেখেন। সঙ্গে সঙ্গেই পুলিশকে খবর দেন। পুলিশ গিয়ে তিনটি মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়। ময়নাতদন্তে জানা গিয়েছে, বিষ পানেই মৃত্যু হয়েছে তিন জনের। বৃহস্পতিবার রাতেই বিষপান করেছেন তিন জন।   

মৃতের ভাই গৌরাঙ্গ পাল দাদা-বৌদি এবং ভাইঝির মর্মান্তিক পরিণতির পরে শোকে মুহ্যমান। সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘প্রতিমা গড়েই সংসার চলত দাদার। একমাত্র সন্তান বিশেষভাবে সক্ষম মণিকাকে নিয়ে সারাক্ষণই চিন্তা করতেন তিনি। তাঁর অবর্তমানে কী হবে মেয়ের, এই দুঃশ্চিন্তা কুরে কুরে খেত দাদাকে। গত কয়েকমাস ধরেই মানসিক অবসাদ গ্রাস করেছিল। সেই মানসিক চাপ না নিতে পেরে আত্মঘাতী হয়েছেন।’

Published by:

Sundeep

Share Link:

More Releted News:

আগামী সপ্তাহেই ১০০ আসনের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা বিজেপির

প্রতিশ্রুতি দেওয়ার অধিকার রয়েছে রাজনৈতিক দলগুলির, জানালেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার

১ জুলাই থেকে কার্যকর হচ্ছে নয়া তিন ফৌজদারি আইন

টানা ১১ দিন পর হদিশ মিলল কোটার নিখোঁজ পড়ুয়ার

যোগীরাজ্যে পুকুরে  পড়ল পূণ্যার্থীদের বাস, নিহত ১৫

দিল্লিতে জোট চূড়ান্ত আপ-কংগ্রেসের

Advertisement

এক ঝলকে
Advertisement

জেলা ভিত্তিক সংবাদ

দার্জিলিং

কালিম্পং

জলপাইগুড়ি

আলিপুরদুয়ার

কোচবিহার

উত্তর দিনাজপুর

দক্ষিণ দিনাজপুর

মালদা

মুর্শিদাবাদ

নদিয়া

পূর্ব বর্ধমান

বীরভূম

পশ্চিম বর্ধমান

বাঁকুড়া

পুরুলিয়া

ঝাড়গ্রাম

পশ্চিম মেদিনীপুর

হুগলি

উত্তর চব্বিশ পরগনা

দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা

হাওড়া

পূর্ব মেদিনীপুর