এই মুহূর্তে

সোমবার শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে আন্দোলনকারীদের মুখোমুখি বৈঠক

নিজস্ব প্রতিনিধি: সোমবার শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসুর সঙ্গে বৈঠকে বসতে চলেছেন এসএলএসটি চাকরিপ্রার্থীরা। সেই বৈঠকে সশরীরে হাজির থাকবেন তৃণমূল নেতা কুণাল ঘোষও। তবে পরিচয় বদলে যাবে তাঁর। ভিন্ন পরিচয়ে সোমবার বিকাশ ভবনে চাকরিপ্রার্থীদের সঙ্গে শিক্ষা দফতরের বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন কুণাল।কুণাল কেন বৈঠকে থাকবেন? তিনি তো সরকারি কোনও পদে নেই। আবার তিনি চাকরিপ্রার্থীও নন।  জানা গেছে,‘‘চাকরিপ্রার্থীরা শনিবার কুনাল ঘোষ(Kunal Ghosh) যখন বিক্ষোভ কারীদের সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন তখন বিক্ষোভকারীরা তাকে ওই বৈঠকে থাকার জন্য অনুরোধ জানিয়েছিল। তাই ওই বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন কুনাল ঘোষ।

এসএলএসটি (SLST)চাকরিপ্রার্থীদের আন্দোলনের অন্যতম মুখ অভিষেক সেন বলেন, ‘‘আমরা চেয়েছিলাম কুণাল ঘোষ আমাদের হয়ে বৈঠকে থাকুন। তিনি তাতে রাজি হয়েছেন।’’শনিবার ছিল মেয়ো রোডে চাকরিপ্রার্থীদের ধর্নার হাজারতম দিন। সেই মঞ্চে প্রতিবাদ প্রদর্শন করতে পূর্ব মেদিনীপুর ভোগপুরের বাসিন্দা তথা মহিলা চাকরিপ্রার্থী রাসমণি পাত্র মাথার চুল কামিয়ে ফেলেছিলেন। বিকেলে ওই মঞ্চে ছুটে গিয়েছিলেন কুণাল। তিনি কথা বলেন চাকরিপ্রার্থীদের সঙ্গে।তৃণমূলের তরফে চাকরিপ্রার্থীদের সঙ্গে আগে থেকেই যোগাযোগ রাখছিলেন কুণাল ঘোষ। গান্ধীমূর্তির পাদদেশে শনিবারের ধর্নামঞ্চতে সিপিএম, কংগ্রেস, বিজেপি নেতারা সকলেই গিয়েছিলেন। হঠাৎই কুণাল ঘোষকে পৌঁছে যান সেখানে। প্রথম দিকে কিছুটা বাধার মুখে পড়লেও পরে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে মাটিতে বসে কথা বলেন তিনি। রাসমণির সঙ্গে কথা বলেন আলাদা ভাবে। চাকরিপ্রার্থী আন্দোলনের অন্যতম মুখ অভিষেক বলেন, ‘‘এর আগে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে আমাদের বৈঠক করানোর ক্ষেত্রে কুণাল ঘোষই ছিলেন মূল কাণ্ডারী।

শনিবার তিনি মঞ্চে এসেছিলেন। সোমবারের বৈঠকেও আমরা তাঁকে ডেকেছি।’’শনিবারের ঘটনা নিয়ে রবিবার কুণাল এক্স পোস্টে লেখেন, মুখ্যমন্ত্রী নিয়োগ চান। অভিষেক নিয়োগ চান। তিনি তো আন্দোলনকারীদের সঙ্গে সঙ্গে বসেছিলেন। প্রক্রিয়া এগিয়েছিল। ব্রাত্য বসু(Bratya Basu) নিয়োগ চান। কারুর বা কিছু লোকের জন্য জটিলতা হয়েছে। এই জটিলতা কাটাতে সর্বশক্তিতে চেষ্টা চলছে। সরকার আন্তরিক। আইনি জট কাটাতে কী করা যায়, ভাবছেন তাঁরা, দেখা যাক। আমি এবং আমরা সবাই চাই, জট খুলুক। আইনি সমস্যা কাটুক। নিয়োগ হোক। এখন দেখার বিষয় সোমবার শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে মুখোমুখি আন্দোলনকারীদের বৈঠকে সেই সব জট দূর হয় কিনা।

এদিকে শনিবার আন্দোলনের হাজারতম দিনে নিজের কেস বিসর্জন দিয়ে যে রাসমণি প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন তিনি রবিবার কোলাঘাটে(Kolaghat) নিজের বাড়িতে ফিরে গিয়েছেন।সোমবার একদিকে যখন শিক্ষামন্ত্রী আন্দোলনকারীদের সঙ্গে মুখোমুখি বৈঠকে বসতে চলেছেন ঠিক সেই সময় অর্থাৎ রবিবার বিকেলে আন্দোলনকারীদের পক্ষ থেকে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে একাধিক কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। এরমধ্যে অন্যতম হলো জানুয়ারিতে ‘নবান্ন চলো’ অভিযান।

Published by:

Subrata Roy

Share Link:

More Releted News:

যাদবপুরের সার্ভে পার্ক এলাকাতে ভুয়ো কল সেন্টার চক্রের হদিশ, ধৃত ৮

২৭ ফেব্রুয়ারি দুই ঘণ্টার জন্য বন্ধ দ্বিতীয় হুগলি সেতু

শিশুদের বিরল রোগ দূরীকরণে বিশেষ উদ্যোগ নিল কলকাতা পুরসভা

কেন্দ্রের রিপোর্টেই ফাঁস বাংলাকে নিয়ে গেরুয়ার মিথ্যা প্রচার

রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি কেমন, জানতে চাইলেন মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিক

দলের মুখ পুড়িয়ে দিলেন কোনঠাসা দিলীপ, উগরে দিলেন ক্ষোভ

Advertisement

এক ঝলকে
Advertisement

জেলা ভিত্তিক সংবাদ

দার্জিলিং

কালিম্পং

জলপাইগুড়ি

আলিপুরদুয়ার

কোচবিহার

উত্তর দিনাজপুর

দক্ষিণ দিনাজপুর

মালদা

মুর্শিদাবাদ

নদিয়া

পূর্ব বর্ধমান

বীরভূম

পশ্চিম বর্ধমান

বাঁকুড়া

পুরুলিয়া

ঝাড়গ্রাম

পশ্চিম মেদিনীপুর

হুগলি

উত্তর চব্বিশ পরগনা

দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা

হাওড়া

পূর্ব মেদিনীপুর