এই মুহূর্তে

WEB Ad Valentine 3

WEB Ad_Valentine

আদিবাসী সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে নবান্নের সভাঘরে বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী

Courtesy - Facebook and Google

নিজস্ব প্রতিনিধি: আগামী সপ্তাহেই জেলা সফরে বার হচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়(Mamata Banerjee)। সেই সফরের তালিকায় থাকছে জঙ্গলমহলের(Junglemahal) ৩ জেলা পুরুলিয়া, বাঁকুড়া, ঝাড়গ্রাম এবং সম্ভবত দুই মেদিনীপুর। তবে সেই সফরসূচি এখনও চূড়ান্ত হয়নি। সেই সফরের আগেই অবশ্য এদিন অর্থাৎ বৃহস্পতিবার নবান্নের(Nabanna) সভাঘরে সাঁওতাল, ভূমিজ, মুন্ডা, লোধা, কুড়মি –সহ নানা জনজাতি সংগঠনগুলির(Tribal Social Organizations) সামাজিক নেতাদের সঙ্গে বৈঠক সারলেন মুখ্যমন্ত্রী। সূত্রের খবর সেই বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী রাজ্যের সরকারি আধিকারিকদের একাংশের ভূমিকা নিয়ে তীব্র ক্ষোভ উগরে দেন। এমনকি নির্দিষ্ট ভাবে বেশ কিছু আধিকারিককে কাজ ঠিক মতন না করার জন্য তাঁদের আগামী দিনে বদলি করে দেওয়ার বার্তাও দেন বলে সূত্রের দাবি। এদিনের বৈঠকে কুর্মিদের প্রতিনিধি সহ একাধিক আদিবাসী সংগঠনের ২জন করে প্রতিনিধি হাজির ছিলেন। উপস্থিত ছিলেন মুখ্যসচিব(Chief Secretary of West Bengal) বি পি গোপালিকা(B P Gopalika) এবং রাজ্যের দুই মন্ত্রী বীরবাহা হাঁসদা ও জ্যোৎস্না মান্ডি।  

সূত্রের দাবি অনুযায়ী এদিনের বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী জানতে পারেন রাজ্য সরকারের নানা আর্থসামাজিক প্রকল্পের সুবিধা জঙ্গলমহলের একদম তৃণমূল স্তর অবধি পৌঁছাছে না। বেশ কিছু উন্নয়নমূলক প্রকল্পের কাজ শুরুই হয়নি। আবার কিছু কাজ শুরু হয়ে তা মাঝপথে থমকে দাঁড়িয়ে আছে। আদিবাসী সংগঠনের প্রতিনিধিদের দাবি, বেশ কিছু সরকারি আধিকারিকের জন্যই এই অবস্থা। সেই কথা শুনেই নিজের ক্ষোভ উগরে দেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি জানানা, ‘একটা অফিসারের কাজের জন্য কেন বার বার সরকারের মুখ পুড়বে? কিছু অফিসার আছে যারা কাজ করে না সঠিক সময়ে। আমি কিন্তু অফিসারদের মূল্যায়ন করব। ২ বছর বাদে বদলি হয়ে যাবে, এই ভাবে অফিসাররা কাজ করলে হবে না। আমি কেন কথা শুনব অফিসারদের জন্য?’ তবে মুখ্যমন্ত্রী এই কথা আদিবাসী নেতাদের বলেননি। সূত্রের দাবি অনুযায়ী তিনি তা বলেছেন বৈঠকে উপস্থিত থাকা রাজ্যের মুখ্যসচিবকে। মুখ্যমন্ত্রী স্পষ্ট জানিয়ে দেন, অফিসারদের কাজের রিপোর্ট তাঁর চাই।

এদিনের বৈঠকে শিক্ষক নিয়োগ নিয়েও মুখ্যমন্ত্রীর ক্ষোভের মুখে পড়ে রাজ্যের স্কুল শিক্ষা দফতর। রাজ্যের দফতরের খামতির পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী বিরোধীদেরও এদিন নিশানা বানান। তিনি বলেন, ‘শিক্ষক নিয়োগই তো করতে দিচ্ছে না। এখানে বিজেপির কয়েকজন বসে আছেন। তারা পিল করছেন আর অ্যান্টাসিড খাচ্ছেন। যখন তোমার হাতে কিছুই নেই, তখন প্যারা টিচারদের নিয়ে কাজ চালাতে হবে। স্কুল শিক্ষা দফতরেরও খামতি আছে।’ 

Published by:

Ei Muhurte

Share Link:

More Releted News:

চাষের জমিতে বিদ্যুতের ছেঁড়া তার জড়িয়ে মৃত্যু দুই কৃষকের

১জুন শেষ দফার ভোটের দিন কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গে ঝড়-বৃষ্টির পূর্বাভাস জারি

ভক্তিনগর থানার পুলিশ গৃহস্থ বাড়ির ভেতর থেকে খোঁজ পেল জুয়ার বোর্ডের, গ্রেফতার ১১

রিমল ঘূর্ণিঝড়ের দাপটে নদিয়াতে ব্যাপক ক্ষতি আখ ও কলা গাছের

কৃষ্ণগঞ্জে তিন দিন ধরে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন সীমান্তবর্তী বানপুর প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্র

রথযাত্রার আগেই মুখ্যমন্ত্রীর হাতেই উদ্বোধনের সম্ভাবনা দিঘার জগন্নাথ মন্দিরের

Advertisement
এক ঝলকে
Advertisement

জেলা ভিত্তিক সংবাদ

দার্জিলিং

কালিম্পং

জলপাইগুড়ি

আলিপুরদুয়ার

কোচবিহার

উত্তর দিনাজপুর

দক্ষিণ দিনাজপুর

মালদা

মুর্শিদাবাদ

নদিয়া

পূর্ব বর্ধমান

বীরভূম

পশ্চিম বর্ধমান

বাঁকুড়া

পুরুলিয়া

ঝাড়গ্রাম

পশ্চিম মেদিনীপুর

হুগলি

উত্তর চব্বিশ পরগনা

দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা

হাওড়া

পূর্ব মেদিনীপুর