এই মুহূর্তে

WEB Ad Valentine 3

WEB Ad_Valentine

কর্মসাথী প্রকল্পে বাড়ি বাড়ি গিয়ে পরিযায়ী শ্রমিকদের নাম তোলার নির্দেশ

Courtesy - Google

নিজস্ব প্রতিনিধি: উত্তরাখণ্ডের সুড়ঙ্গ বিপর্যয়ের ঘটনায় আটকে পড়েছিল বাংলার ৩ শ্রমিক। যদিও তাঁরা শেষ পর্যন্ত সুস্থ শরীরেই বাড়ি ফিরে আসতে পেরেছেন। সেই ঘটনার পরে পরেই এবার নতুন করে জোর দেওয়া হচ্ছে রাজ্য সরকারের চালু করা কর্মসাথী প্রকল্পে(Karsamathi Project) পরিযায়ী শ্রমিকদের(Migrant Workers) নাম তোলার বিষয়ে। পুজোর আগে রাজ্যে যে দুয়ারে সরকার(Duyare Sarkar) কর্মসূচী হয়েছিল সেখানে এই প্রকল্পে পরিযায়ী শ্রমিকদের নাম তোলার ব্যবস্থা রাখা হয়েছিল। অনেক শ্রমিক বা তাঁদের পরিবারের সদস্যরা সেই সময় শিবিরে গিয়ে এই প্রকল্পে শ্রমিকদের নাম তুলিয়েছেন। কিন্তু সব পরিযায়ী শ্রমিক সেই পথে হাঁটেননি। রাজ্যের আধিকারিকদের অভিমত, এখনও পর্যন্ত রাজ্যের ৮০ শতাংশের মতো পরিযায়ী শ্রমিকদের তথ্য রাজ্যের কাছে আছে। উত্তরাখণ্ডে বাংলার যে ৩ শ্রমিক আটকে পড়েছিলেন, তাঁদের কোনও তথ্যই সেই সময় রাজ্যের কাছে ছিল না। কেননা এই ৩ শ্রমিক বা তাঁদের পরিবারের সদস্যরা এই প্রকল্পে তাঁদের নাম নথিভুক্ত করেননি। আর তাই এবার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে আগামী দুয়ারে সরকার শিবির চালুর আগেই বাড়ি বাড়ি গিয়ে(Door to Door Campaign) কর্মসাথী প্রকল্পে রাজ্যের পরিযায়ী শ্রমিকদের নাম নথিভুক্ত(Name Registration) করতে হবে।     

পরিযায়ী শ্রমিকদের বিভিন্ন সামাজিক সুরক্ষা সহ বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা দিতে তৎপর রাজ্য সরকার। তাই সব পরিযায়ী শ্রমিকের নাম সরকারি পোর্টালে নথিভুক্ত করার জন্য আগামী দুয়ারে সরকার শিবিরে বিশেষ ব্যবস্থা রাখা হচ্ছে। কিন্তু অনেক পরিযায়ী শ্রমিক এখনও তাঁদের নাম নথিভুক্ত না করানোয় রাজ্য সরকার সিদ্ধান্ত নিয়েছে এবার প্রতিটি জেলায় প্রতিটি ব্লকে প্রতিটি শহরে বাড়ি বাড়ি গিয়ে এই নাম তোলার কাজ করানো হবে। রাজ্য সরকারের জারি করা নির্দেশিকা অনুযায়ী, গোটা ডিসেম্বর মাস ধরে চলবে এই কর্মসূচি। পরিসংখ্যান বলছে, এখনও ৬ লক্ষের বেশি পরিযায়ী শ্রমিকের নাম তোলা বাকি কর্মসাথী প্রকল্পে। এই কাজের জন্য ব্লক স্তরে বিডিও এবং পুরসভা এলাকায় এগজিকিউটিভ অফিসাররা বিশেষ দায়িত্ব পালন করবেন। বাড়ি বাড়ি যাওয়ার জন্য পঞ্চায়েত স্তরের কর্মীদের পাশাপাশি স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মহিলাদেরও যুক্ত করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। প্রতিদিন জেলায় কত নাম তোলা হচ্ছে, তার রিপোর্ট সংশ্লিষ্ট দফতরে পাঠাতে হবে।

জেলাশাসকদের পাঠানো মুখ্যসচিবের চিঠিতে বলা হয়েছে, ১০ই নভেম্বর পর্যন্ত বিশেষ অভিযান চালিয়ে জেলায় জেলায় বহু পরিযায়ী শ্রমিকের নাম নথিভুক্ত করা হয়েছে। তারপরও কিছু অংশের কাছে এখনও পৌঁছনো যায়নি। তাই বাড়ি বাড়ি গিয়ে নাম তোলার কাজ করতে হবে। সরকারি তথ্য বলছে, এখনও পর্যন্ত ‘কর্মসাথী’ পোর্টালে ২১ লক্ষ ৬৬ হাজার পরিযায়ী শ্রমিকের নাম লিপিবদ্ধ করা হয়েছে। পর্যালোচনার পর আধিকারিকরা দেখেন, প্রায় ১৪ লক্ষ পরিযায়ী শ্রমিকের নাম এখনও তোলা বাকি। সেই মতো নভেম্বরে প্রায় ১০ লক্ষ নাম তোলার লক্ষ্যমাত্রা নির্দিষ্ট করে দেওয়া হয়েছিল। এই সময়কালে ৮ লক্ষ মতো নাম নথিভুক্ত হয়েছে। বাকি প্রায় ৬ লক্ষের শ্রমিকের নাম পোর্টালে তুলতেই ডিসেম্বরজুড়ে এই বিশেষ অভিযান চালানো হচ্ছে। রাজ্য সরকার এই শ্রমিকদের পশ্চিমবঙ্গ পরিযায়ী শ্রমিক কল্যাণ প্রকল্পের আওতায় আনতে চাইছে। ভিন রাজ্যে কাজ করতে গিয়ে অনেকেই নানা সমস্যায় পড়ছেন। তাঁদের সামাজিক সুরক্ষা দিতেই এই উদ্যোগ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের(Mamata Banerjee) নেতৃত্বাধীন সরকারের।

Published by:

Ei Muhurte

Share Link:

More Releted News:

তিন তোলাবাজ যুবককে গ্রেফতারের দাবিতে শান্তিপুর থানা ঘেরাও করে ডেপুটেশন দিলেন আমজনতা

জনজাতি সম্প্রদায়কে নিয়ে মায়াপুর ইসকনের তিনদিন ব্যাপী কনভেনশন

নিউটাউনে উদ্ধার হওয়া ক্ষতবিক্ষত যুবক করুণাময়ীর এইচএসবিসি ব্যাংকের কর্মী

মালদার চাঁচলে মিঠুনের রোড শোতে ‘গো ব্যাক’ স্লোগান তৃণমূলের

তৃণমূল প্রার্থী বিপ্লব মিত্রের সমর্থনে গঙ্গারামপুরে দেবের রোড শোতে জনসুনামি

‘বিজেপির ১০ জন নেতা যোগাযোগ রাখছেন’, বোমা ফাটালেন অভিষেক

Advertisement
এক ঝলকে
Advertisement

জেলা ভিত্তিক সংবাদ

দার্জিলিং

কালিম্পং

জলপাইগুড়ি

আলিপুরদুয়ার

কোচবিহার

উত্তর দিনাজপুর

দক্ষিণ দিনাজপুর

মালদা

মুর্শিদাবাদ

নদিয়া

পূর্ব বর্ধমান

বীরভূম

পশ্চিম বর্ধমান

বাঁকুড়া

পুরুলিয়া

ঝাড়গ্রাম

পশ্চিম মেদিনীপুর

হুগলি

উত্তর চব্বিশ পরগনা

দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা

হাওড়া

পূর্ব মেদিনীপুর