এই মুহূর্তে

WEB Ad Valentine 3

WEB Ad_Valentine

হাতির হানায় মৃতদের স্বজনেরা চাকরি পেয়ে মুগ্ধ মমতায়

Courtesy - Facebook and Google

নিজস্ব প্রতিনিধি: বছরের পর বছজর ধরে হাতির হানায় মারা(Death due to Elephant Attack) যাওয়া কার্যত দস্তুর হয়ে গিয়েছে, জঙ্গলমহলের(Jungalmahal) বাসিন্দাদের একাংশের। প্রতি বছরই ঝাড়গ্রাম, পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার একাধিক মানুষ মারা যান হাতির হানায়। একই ঘটনা মাঝে মধ্যেই চোখে পড়ে পুরুলিয়া, বাঁকুড়া মায় বীরভূম জেলার বুকেও। দুই বর্ধমান জেলাতেও মাঝেমধ্যেই দলছুট হাতি ঢুকে পড়ার ঘটনা ঘটে। যদিও সেখানে মৃত্যুর ঘটনা ঘটেনি এখনও পর্যন্ত। কিন্তু জঙ্গলমহলের বুকে হাতির হানায় মৃত্যু এখন নিত্য বছরের ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। বাম জমানায় এই সব ঘটনায় বেশির ভাগ ক্ষেত্রে আর্থিক ক্ষতিপূরণ পর্যন্ত পেতেন না স্বজনহারা মানুষেরা। কিন্তু পরিবর্তনের পরে সেই ছবিতে বদল এসেছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের(Mamata Banerjee) সরকার দীর্ঘদিন ধরেই হাতির হানায় মৃতদের পরিবারকে ২ লক্ষ টাকা আর্থিক ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নীতি চালু করেছে। এবার সেই নীতির সঙ্গে যোগ হয়েছে চাকরি প্রদানের নীতি(Government Service for Dead Persons Family Member)। হাতির হানায় মৃতের পরিবারের একজনের সরকারি চাকরি। সেই চাকরি পাওয়ার ঘটনাই এবার তৃণমূলকে বাড়তি অ্যাডভান্টেজ এনে দিচ্ছে এবারের লোকসভা নির্বাচনে(Loksabha Election 2024)।

হাতির হানায় মৃত্যুর ঘটনা ঘিরে জঙ্গলমহলের রাজনীতি অনেক কিছুই দেখেছে। লোকালয়ে হাতির হানায় মৃত্যু, ফসলের ক্ষতি, ঘরবাড়ি ভাঙচুর সহ একাধিক বিষয়ে সরব হয়েছে রাজ্যের বিরোধী দলগুলি। বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, পশ্চিম মেদিনীপুর কিংবা ঝাড়গ্রামে ভোট-রাজনীতিতে হাতি ঢুকবে—এটাই এখন দস্তুর হয়ে উঠেছে। এখন লোকসভা নির্বাচনের প্রচারে বিরোধী দলগুলি আপ্রাণ চেষ্টা চালাচ্ছে সেই হাতির হানার ঘটনা তুলে ধরে ফায়দা লুঠতে। তাঁদের দাবি, হাতির তাণ্ডবে ফসল, ঘরবাড়ির ক্ষতি হলে নায্য ক্ষতিপূরণ পাচ্ছেন না কেউ। আর মৃত্যুর ঘটনায় ক্ষতিপূরণ দিয়েই দায় সারছে সরকার। হাতির সমস্যার স্থায়ী সমাধানের কোনও ব্যবস্থাও নেওয়া হচ্ছে না ইত্যাদি ইত্যাদি। কিন্তু এই সব অভিযোগ তুলে ধরে ফায়দা লোটার রাস্তা বন্ধ হয়ে গিয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার হাতির হানায় মৃতদের পরিবারের ১জনকে সরকারি চাকরি দেওয়ার নীতি চালু করায়। কেননা বীরভূম থেকে বাঁকুড়া, পুরুলিয়া থেকে পশ্চিম মেদিনীপুর, বর্ধমান থেকে ঝাড়গ্রাম, ইতিমধ্যেই অনেকে চাকরি পেয়েছে এই নীতির মাধ্যমে। আর তাতেই বিরোধীদের দাবি অনেকাংশেই লঘু হয়ে যাচ্ছে।

Published by:

Ei Muhurte

Share Link:

More Releted News:

‘বিষদাঁত আমি ভেঙে দেব, কী নোটিস পাঠাতে হয় আমি দেখিয়ে দেব’, পাট্টার আশ্বাস মমতার

রামলালকে কাঁঠাল দিয়ে বরন করল জঙ্গলমহলের গ্ৰামবাসীরা

‘আমার প্রার্থী সায়নী, আগের বার আপনারা অতটা সার্ভিস পাননি’ মিমি প্রসঙ্গে মমতা

হাওড়ার শালিমার স্টেশনে দূরপাল্লার দাঁড়িয়ে থাকা ট্রেনের চাকায় আটকানো হল চেন ও তালা

ঘূর্ণিঝড় রিমলের আগেই হাসনাবাদের দু’জায়গায় ধসল নদী বাঁধ

রিমলের আতঙ্কের প্রহর গুনছে হাওড়ার শ্যামপুর দুই ব্লকের সাইবেরিয়া গ্রাম

Advertisement
এক ঝলকে
Advertisement

জেলা ভিত্তিক সংবাদ

দার্জিলিং

কালিম্পং

জলপাইগুড়ি

আলিপুরদুয়ার

কোচবিহার

উত্তর দিনাজপুর

দক্ষিণ দিনাজপুর

মালদা

মুর্শিদাবাদ

নদিয়া

পূর্ব বর্ধমান

বীরভূম

পশ্চিম বর্ধমান

বাঁকুড়া

পুরুলিয়া

ঝাড়গ্রাম

পশ্চিম মেদিনীপুর

হুগলি

উত্তর চব্বিশ পরগনা

দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা

হাওড়া

পূর্ব মেদিনীপুর