এই মুহূর্তে

WEB Ad Valentine 3

WEB Ad_Valentine

‘নামই দেওয়া হয়নি সিংহীর, নোংরা রাজনীতি হচ্ছে’, দাবি বীরবাহার

Courtesy - Google and Facebook.

নিজস্ব প্রতিনিধি: ওড়িশার ভুবনেশ্বরের কাছেই থাকা নন্দনকাননকে বলা হয়ে দেশের বৃহত্তম মুক্ত চিড়িয়াখানা। সেই নন্দনকাননের ধাঁচেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়(Mamata Banerjee) উত্তরবঙ্গের প্রাণকেন্দ্র শিলিগুড়ির(Siliguri) অদূরেই গড়ে তুলেছেন Bengal Safari Park। নিত্যদিন এখন সেখানে পর্যটকদের ভিড় আছড়ে পড়ছে। রাজ্য সরকারও এই সাফারি পার্কের আকর্ষণ বাড়াতে বাঘ-সিংগ সহ নানা জীবজন্তু নিয়ে আসছে। সম্প্রতি ত্রিপুরা থেকে সেখানে আনা হয়েছে সিংহ ও সিংহী। সেই সিংহ ও সিংহীর নাম এখনও ঠিক হয়নি। অথচ রটে গিয়েছে যে সিংহের নাম রাঝা হয়েছে ‘আকবর’ ও সিংহীর নাম রাখা হয়েছে ‘সীতা’। সেই রটনার ওপর ভর দিয়ে কলকাতা হাইকোর্টের(Calcutta High Court) জলপাইগুড়ি সার্কিট বেঞ্চে(Jalpaiguri Circuit Bench) মামলা ঠুকেছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ(Biswa Hindu Parishad)। সেই ঘটনায় এবার মুখ খুললেন রাজ্যের বনমন্ত্রী বীরবাহা হাঁসদা(Birbaha Hansda)। সাফ জানালেন, ‘নামই দেওয়া হয়নি সিংহীর, নোংরা রাজনীতি হচ্ছে।’ 

ঠিক যেভাবে দক্ষিণবঙ্গের বুকে সন্দেশখালিতে শুধুমাত্র রটনার মাধ্যমে পরিস্থিতি উত্তপ্ত করে তোলা হয়েছিল এক বৃহত্তর ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে, ঠিক সেই ভাবে এখন Bengal Safari Park’র সিংহ ও সিংহী নামকরণকে কেন্দ্র করে সেখানকার পরিস্থিতি উত্তপ্ত করে তোলার চেষ্টা হচ্ছে। সেই লক্ষ্যেই বিশ্ব হিন্দু পরিষদের মামলা কলকাতা হাইকোর্টের জলপাইগুড়ি সার্কিট বেঞ্চে। উল্লেখ্য, গত ১২ ফেব্রুয়ারি ত্রিপুরা থেকে আনা হয়েছে সিংহ ও সিংহী। রটে গিয়েছে যে, সাফারি পার্কে আসা সিংহীর নাম রাখা হয়েছে ‘সীতা’। সিংহের নাম রাখা হয়েছে ‘আকবর’। আর এই ‘সীতা’ নামেই তীব্র আপত্তি রয়েছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদের সদস্যদের। এই নামের মাধ্যমে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের ভাবাবেগে আঘাত করা হয়েছে বলেই অভিযোগ। মামলাকারীদের আইনজীবী শুভঙ্কর দত্তের দাবি, ত্রিপুরা থেকে আসা সিংহ এবং সিংহীর সরকারি নথিতে কোনও নাম উল্লেখ করা ছিল না। শুধুমাত্র লেখা ছিল প্যান্থেরা লায়ন মেল ও ফিমেল। তাদের আইডি নম্বর দেওয়া ছিল। বেঙ্গল সাফারি পার্কে আসার পর তাদের ‘আকবর’ ও ‘সীতা’ নাম দেওয়া হয়েছে বলেই দাবি।  

জানা গিয়েছে, কলকাতা হাইকোর্টের জলপাইগুড়ি সার্কিট বেঞ্চে দায়ের হওয়া ওই মামলায় State Zoo Authority এবং Bengal Safari Park’র ডিরেক্টরকে পার্টিও করা হয়েছে। মামলার পরই ত্রিপুরা সরকারের তরফ থেকে সিংহ দম্পতির সঙ্গে আসা কাগজপত্র চেয়ে পাঠানো হয়েছে। তবে বনমন্ত্রী বীরবাহা হাঁসদার দাবি, এখনও পর্যন্ত সিংহ দম্পতির কোনও নামই দেওয়া হয়নি। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে নাম পাঠানো হয়েছে। সবুজ সংকেত মিললেই নাম চূড়ান্ত করা হবে। কেননা এর আগে ওই পার্কে আসা এবং সেখানে জন্ম নেওয়া নানা জীবজন্তুর শাবকের নামকরণ করেছেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী। এবারে ইচ্ছাকৃত ভাবে সেই ঘটনা ঠেকাতে এবং শিলিগুড়ি এলাকায় সামাজিক অস্থিরতা ছড়িয়ে দিতে বেশ পরিকল্পনা করে এই ঘটনা ঘটানো হচ্ছে বলে দাবি রাজ্যের বন আধিকারিকদের।

Published by:

Ei Muhurte

Share Link:

More Releted News:

চাষের জমিতে বিদ্যুতের ছেঁড়া তার জড়িয়ে মৃত্যু দুই কৃষকের

১জুন শেষ দফার ভোটের দিন কলকাতা সহ দক্ষিণবঙ্গে ঝড়-বৃষ্টির পূর্বাভাস জারি

ভক্তিনগর থানার পুলিশ গৃহস্থ বাড়ির ভেতর থেকে খোঁজ পেল জুয়ার বোর্ডের, গ্রেফতার ১১

রিমল ঘূর্ণিঝড়ের দাপটে নদিয়াতে ব্যাপক ক্ষতি আখ ও কলা গাছের

কৃষ্ণগঞ্জে তিন দিন ধরে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন সীমান্তবর্তী বানপুর প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্র

রথযাত্রার আগেই মুখ্যমন্ত্রীর হাতেই উদ্বোধনের সম্ভাবনা দিঘার জগন্নাথ মন্দিরের

Advertisement
এক ঝলকে
Advertisement

জেলা ভিত্তিক সংবাদ

দার্জিলিং

কালিম্পং

জলপাইগুড়ি

আলিপুরদুয়ার

কোচবিহার

উত্তর দিনাজপুর

দক্ষিণ দিনাজপুর

মালদা

মুর্শিদাবাদ

নদিয়া

পূর্ব বর্ধমান

বীরভূম

পশ্চিম বর্ধমান

বাঁকুড়া

পুরুলিয়া

ঝাড়গ্রাম

পশ্চিম মেদিনীপুর

হুগলি

উত্তর চব্বিশ পরগনা

দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা

হাওড়া

পূর্ব মেদিনীপুর