এই মুহূর্তে

WEB Ad Valentine 3

WEB Ad_Valentine




মমতার বার্তায় বিশ্বাস, তৃণমূলের পাশে ঢেউচা-পাঁচামি

Courtesy - Facebook and Google




নিজস্ব প্রতিনিধি: বীরভূম জেলায়(Birbhum District) সিউড়ি সদর মহকুমার মধ্যে রয়েছে মহম্মদবাজার ব্লকটি(Muhammad Bazaar Block)। সেই ব্লকে রয়েছে ১২টি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকা। ২০১১ সালের আগে মহম্মদবাজার বিধানসভা কেন্দ্রও ছিল। কিন্তু সেই কেন্দ্রের অবলুপ্তি ঘটিয়ে সাঁইথিয়া বিধানসভা কেন্দ্র তৈরি হয়। পরিবর্তে মহম্মদবাজার ব্লকের মধ্যে থাকা ১২টি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকা দুটি বিধানসভা কেন্দ্রের মধ্যে ভাগ হয়ে যায়। ৬টি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকা যায় সাঁইথিয়া বিধানসভা কেন্দ্রের মধ্যে, বাকি ৬টি যায় রামপুরহাট বিধানসভা কেন্দ্রের মধ্যে। কিন্তু সেই দুই বিধানসভা কেন্দ্রই রয়েছে বীরভূম লোকসভা কেন্দ্রের মধ্যে। আবার এই মহম্মদবাজার ব্লকের মধ্যেই আছে ঢেউচা-পাঁচামি কয়লাখনি এলাকা। এবারের লোকসভা নির্বাচনে সারা রাজ্যের দৃষ্টি ছিল এই ঢেউচা-পাঁচামির দিকে। কেননা সকলের এটাই দেখার বিষয় ছিল যে, এই এলাকায় কয়লা খনি শিল্প গড়ে তোলার জন্য রাজ্য সরকারের তরফ থেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়(Mamata Banerjee) যে সব সুযোগ-সুবিধার কথা ঘোষণা করেছেন তাতে আমজনতা কতখানি সায় দেয়। ভোট শেষে দেখা গেল, ঢেউচা-পাঁচামি তো বটেই, গোটা মহম্মদবাজার ব্লক জুড়ে বড় ভোটের লিড পেয়েছে তৃণমূল(TMC)। অর্থাৎ মমতা ও তৃণমূলের পাশেই থাকছে ঢেউচা-পাঁচামি(Deucha Pnachami)। 

লোকসভা নির্বাচনের আগে গত বছর পঞ্চায়েত নির্বাচনে মহম্মদবাজার ব্লকের পঞ্চায়েত সমিতি তৃণমূলের দখলে গেলেও ৩টি গ্রাম পঞ্চায়েত গিয়েছিল বিজেপির দখলে। সেই ৩ গ্রাম পঞ্চায়েত হল – কাপিষ্ঠা, রামপুর ও আঙারগড়িয়া। একই সঙ্গে রাজ্যে পরিবর্তনের পরে এই প্রথম বীরভূমে ভোট হল অনুব্রত মণ্ডলকে ছাড়াই। তাই ভোটের আগে থেকেই একটা চাপ ছিল জোড়াফুল শিবিরের জেলা ও মহম্মদবাজার ব্লক নেতৃত্বের কাছে যে, ভোট বৈতরনী তাঁরা ঠিক ভাবে পার হতে পারবেন কিনা তা নিয়ে। এখন দেখা যাচ্ছে, মহম্মহবাজার ব্লকের ১২টি গ্রাম পঞ্চায়েত থেকে বীরভূম লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী তথা টলি অভিনেত্রী শতাব্দী রায় ১২৭০০ ভোটের লিড পেয়েছেন। শুধু তাই নয়, বিজেপির দখলে থাকা ৩টি গ্রাম পঞ্চায়েত থেকেও অল্প ভোটে হলেও লিড পেয়েছেন শতাব্দী। এই সাফল্যের পিছনে ঢেউচা-পাঁচামি কয়লাখনি প্রকল্প প্রধান ফ্যাক্টর হয়ে কাজ করছে বলে একবাক্যে স্বীকার করছেন প্রত্যেকে। কেননা প্রকল্প শুরুর আগেই রাজ্য সরকার ১৪২২ জন জমিদাতাকে রাজ্য পুলিশের কনস্টেবল ও রাজ্য সরকারের নানা দফতরে গ্রুপ ডি পদে চাকরি দিয়েছে। যাদের ১৮ বছর হয়নি, তারা মাসে ১০ হাজার টাকা করে পাচ্ছে। এছাড়াও মুখ্যমন্ত্রী বীরভূমে ভোট প্রচারে এসে এই প্রকল্প নিয়ে বিশাল সম্ভবনার কথা ঘোষণা করে গিয়েছিলেন।

বীরভূমে ভোট প্রচারে এসে মুখ্যমন্ত্রী ঢেউচা-পাঁচামী সহ মহম্মদবাজারবাসী এবং বীরভূম জেলাবাসীকে মনে করিয়ে দেন যে, এশিয়া মহাদেশের বৃহত্তম কয়লাখনি হতে যাচ্ছে বীরভূমের ঢেউচা-পাঁচামি। কমপক্ষে ৩৫ হাজার কোটি টাকা সেখানে বিনিয়োগ হবে। বাংলার ১০০ বছরের বিদ্যুতের জোগান দেবে এই ঢেউচা-পাঁচামি। পাশাপাশি মহম্মদবাজার এলাকায় একটি ইন্টিগ্রেটেড ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল, বিদ্যুৎ স্টেশনের কথাও বলেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। আর এরই ফল মিলল ভোটবাক্সে। এলাকার মানুষ যে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে রয়েছেন, তারই প্রমাণ দিল এবারের ভোটে। সব থেকে বড় কথা ঢেউচা-পাঁচামিকে ঘিরে সারা বীরভূম জুড়ে অন্তত ১ লক্ষ মানুষের কর্মসংস্থান হতে চলেছে। প্রকল্প শুরুর মুখেই হাজারের বেশি মানুষকে চাকরি পেতে দেখে এখন মহম্মদবাজার ব্লকের সবাই অপেক্ষা করছেন, কবে তাঁদের বাড়ির ছেলেমেয়েরাও চাকরি পাবে।




Published by:

Ei Muhurte

Share Link:

More Releted News:

ডায়মন্ডহারবারে পরাজিত অভিজিৎকে শোকজ  বিজেপির

টাকা দিলেই এমডি বা এমএস পরীক্ষায় পাশ , নিট কাণ্ডের মাঝেই প্রস্তাব পেলেন চিকিৎসক

মানিকচকে পুকুরের জলে বিষ মিশিয়ে মাছ নষ্ট , ক্ষতির পরিমাণ লক্ষাধিক

রানীগঞ্জে ডাস্টবিনে সদ্যজাতর দেহ উদ্ধার ঘিরে চাঞ্চল্য, তদন্তে পুলিশ

ফের পিছল দক্ষিণবঙ্গের পূর্বাভাস, সপ্তাহের শেষ ভাগে দক্ষিণবঙ্গের জেলাতে আগমন ঘটতে পারে বর্ষার

বাইকে ধাক্কা দিয়ে ভারতীয় ডাকের কর্মীকে উত্তরপ্রদেশের গাড়িতে চাপিয়ে অপহরণ,চাঞ্চল্য দুর্গাপুরে

Advertisement




এক ঝলকে
Advertisement




জেলা ভিত্তিক সংবাদ

দার্জিলিং

কালিম্পং

জলপাইগুড়ি

আলিপুরদুয়ার

কোচবিহার

উত্তর দিনাজপুর

দক্ষিণ দিনাজপুর

মালদা

মুর্শিদাবাদ

নদিয়া

পূর্ব বর্ধমান

বীরভূম

পশ্চিম বর্ধমান

বাঁকুড়া

পুরুলিয়া

ঝাড়গ্রাম

পশ্চিম মেদিনীপুর

হুগলি

উত্তর চব্বিশ পরগনা

দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা

হাওড়া

পূর্ব মেদিনীপুর